পশ্চিমবঙ্গে তান্ডব চালিয়ে ‘বুলবুল’ মাথা নুইয়েছে বাংলাদেশে

136


।।দেশরিভিউ সংবাদ।।
১৯৬০ সালের পর হারিক্যানের মতো শক্তি অর্জন করা ২য় ভয়ংকর ঘূর্নিঝড় ‘বুলবুল’। শেষ পর্যন্ত পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের বিস্তীর্ণ অংশ লন্ডভন্ড করে দিয়েছে মহা প্রলংকারী ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’। তবে বাংলাদেশে প্রবেশ করার আগেই ‘মাথা নুইয়েছে’ বুলবুল।

ভয়ংকর ‘বুলবুল’ তাণ্ডবে বিধ্বস্ত পশ্চিমবঙ্গ

আয়লার স্মৃতি ফিরিয়ে আনল ঘূর্ণিঝড় বুলবুল। বঙ্গোপসাগরের উত্তর-পশ্চিম অংশে সৃষ্টি হয়ে এই অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড় ঘণ্টায় ১১ কিমি গতিবেগে ধেয়ে আসে উত্তর-পূর্ব দিকে। শনিবার রাত সাড়ে ৮টা থেকে সাড়ে ১১টা অবধি ঘণ্টায় ১১০-১২০ কিমি বেগে বুলবুল বয়ে যায় সুন্দরবনের ধানচি জঙ্গল সংলগ্ন অঞ্চল দিয়ে। স্থলভাগে আছড়ে পড়ার আগে কিছুটা শক্তিক্ষয় করলেও এর তাণ্ডবলীলা থেকে রেহাই পায়নি পশ্চিমবঙ্গ।
বুলবুলের তাণ্ডবে দুই পরগনা, দুই মেদিনীপুর ও হাওড়ায় বেশ কিছু কাঁচা ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এ ঘূর্ণিঝড়ে সবথেকে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে কৃষিফসল। বিদ্যুত সরবারহ চরম বিঘ্নিত হয়েছে। বিভিন্ন জেলার বেশ কিছু অংশে গাছ ভেঙে পড়ে। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে কাঁচা ও পাকা, দু’ রকমের রাস্তাই।

ভয়ংকর বুলবুল ‘মাথা নুইয়েছে’ বাংলাদেশে

পশ্চিমবঙ্গের উপকূল অতিক্রমের পর ঘূর্ণিঝড় বুলবুল দুর্বল হতে হতে পূর্ব-উত্তরপূর্ব দিকে এগিয়ে বাংলাদেশ সীমানায় প্রবেশ করে। রোববার ভোর রাত সোয়া ৩টার দিকে ‘বুলবুল’ বাংলাদেশের সাতক্ষীরা উপকূল অতিক্রম করে বলে জেলা আবহাওয়া অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

বুলেটিনে বলা হয়, এ সময় ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের কাছে বাতাসের গতিবেগ ছিল ঘণ্টায় ৯৫ থেকে ১০৫ কিলোমিটার, যা দমকা হাওয়া আকারে ১১৫ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছিল। ঝড়টি ঘণ্টায় ১২ কিলোমিটার গতিতে পূর্ব-উত্তরপূর্ব দিকে এগোচ্ছিল।

এদিকে বাংলাদেশের আবহাওয়া অধিদপ্তরের উপপরিচালক আয়শা খাতুন বলেন, ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৬৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের টানা গতিবেগ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ৯০ কিলোমিটার, যা দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ১১০ কিলোমিটার পর্যন্ত বাড়ছে।
ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে সাগর উত্তাল থাকায় মোংলা ও পায়রা বন্দরকে ১০ নম্বর মহাবিপদ সঙ্কেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তরের সর্বশেষ বুলেটিনে।
এতে বলা হয়, উপকূলীয় জেলা ভোলা, বরগুনা, পটুয়াখালী, বরিশাল, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, বাগেরহাট, খুলনা, সাতক্ষীরা এবং এসব জেলার অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরগুলোও এই মহাবিপদ সংকেতের আওতায় থাকবে।
চট্টগ্রাম সমুদ্র বন্দরকে ৯ নম্বর মহাবিপদ সঙ্কেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে বুলেটিনে।

এছাড়া উপকূলীয় জেলা চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, ফেনী, চাঁদপুর এবং এসব জেলার অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরগুলোও ৯ নম্বর মহাবিপদ সঙ্কেতের আওতায় থাকবে।
কক্সবাজার সমুদ্র বন্দরকে ৪ নম্বর স্থানীয় হুঁশিয়ারি সঙ্কেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে।

SHARE