পহেলা বৈশাখের সাজ পোশাক

90

বৈশাখ বাঙালির সব থেকে বড় উৎসব। আর এ উৎসব নিয়ে সবার মাতামাতি একটু বেশিই থাকে। এদেশের মানুষের প্রস্তুতির শেষ নেই বাংলা বছরের প্রথম দিনটিকে বরণ করে নিতে।

যুগ যুগ ধরে এই দিনে আনন্দ উৎসব চলে আসছে। আর বর্তমানে সেটা যেন একটু নতুনত্ব পেয়েছে। বৈশাখে ঘোরাঘুরি, আড্ডা অনুষ্ঠান কি না হয়! আর ঘোরাঘুরি, আড্ডা অনুষ্ঠান মানেই একটু বাড়তি সাজ লাগবেই। আর তাই আজ আমরা আপনাদের জানাচ্ছি, বৈশাখী সাজ-পোশাক কেমন হতে পারে তা নিয়ে;

মেয়েরা সাদা শাড়ি-লাল পাড়ে নিজেকে কতটা আকর্ষণীয় করে তোলা যায় সে প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে। আর এই উৎসবে নিজেদের একটু ভিন্নভাবে ফুটিয়ে তুলতে ছেলেরাও পিছিয়ে নেই।

বৈশাখ হলো বাঙালির একমাত্র প্রাণের উৎসব যেখানে ধর্ম, বর্ণ ভেদাভেদ ছাড়াই সবাই একসঙ্গে জড়ো হয় নতুন একটি বছরকে বরণ করে নিতে। আর দিনটিকে বরণ করতে সাদা-লাল রং-ই বেছে নিয়ে থাকেন সবাই।

শাড়ি ও ব্লাউজ:
পহেলা বৈশাখে সাজটি হতে হবে স্বাভাবিক সময়ের থেকে বর্ণিল। বৈশাখে গরমের প্রকোপ থাকায় পোশাক নির্বাচনে সতর্ক হতে হবে। এক্ষেত্রে সুতির শাড়ি বা স্যালোয়ার কামিজ বেশি আরামদায়ক। শাড়ির ক্ষেত্রে আপনি তাঁতের শাড়ি, ঢাকাই জামদানী বা টাঙ্গাইলের শাড়ির প্রাধান্য দিতে পারেন।

বর্তমানে শাড়িতে ব্লক-বাটিক, এব্রোয়েডারি এবং স্ক্রিন প্রিন্টের কাজ বেশ চলছে। কিন্তু, খেয়াল রাখতে হবে সেটা যেন একটু উজ্জ্বল রঙের হয়। সাদা-লাল, সাদা-সবুজ, অথবা সাদার সঙ্গে অন্য যে কোনো রঙের মিশ্রণ হোক না কেন, সেটা অবশ্যই উজ্জ্বল হতে হবে। বৈশাখে শুধু যে সাদা-লালই পরতে হবে এমন কোনো কথা নেই। আপনি আপনার পছন্দ মত যে কোনো শাড়িই পরতে পারেন।

শাড়ির সঙ্গে ব্লাউজের রং এবং ডিজাইনেও আনতে পারেন কিছুটা চমক। এক্ষেত্রে আপনি ব্লাউজে বিভিন্ন ডিজাইন দিয়ে তৈরি করতে পারেন। ব্লাউজটি হতে হবে উজ্জ্বল রঙের। এটি আপনি আপনার পছন্দ মতো ছোট হাতা, থ্রি-কোয়ার্টার অথবা ফুল হাতা যেভাবে খুশি পরতে পারেন, এটি আপনার রুচি ও স্বাচ্ছ্যন্দের ওপর নির্ভর করবে। ব্লাউজের ক্ষেত্রেও সুতি কাপড় ব্যবহার হবে বুদ্ধিমানের কাজ, এটি গরমে বেশ আরামদায়ক।

বৈশাখী মেকআপ:
নারীদের সাজগোজের অন্যতম একটি বিষয় হচ্ছে সুন্দর মেকআপ। এক্ষেত্রে আপনাকে অবশ্যই আগের দিন ফ্রেসিয়াল করে নিতে হবে, যার ফলে মেকআপ সহজেই মুখে বসে যাবে। যদি পার্লারে গিয়ে মেকআপ করা সম্ভাব না হয়, তাহলে ঘরে বসেই ফ্রেসিয়াল করে নিতে পারেন। তারপর টোনার দিয়ে ত্বকটোন করে নিতে পারেন। তারপর মুখে মশ্চারাইজার লাগাবেন এবং এর পাঁচ (৫) মিনিট পর সানস্ক্রিম বা ফাউন্ডেশন লাগাবেন।

তারপর কিছু সময় অপেক্ষা করে ট্রান্সলুশন পাউডার অথবা পিং সেড এর ফেস পাউডার পাস করবেন। একটি মেকআপ করবার পর অন্য একটি মেকআপ লাগাতে যাবার আগে ৫-৭ মিনিট অপেক্ষা করে নিলে মেকআপটি ত্বকে ভালোভাবে বসবে। এরপর মুখে একটু বেশি করে পাউডার লাগান এবং সামান্য পানি স্প্রে করুন। পাউডার ত্বকের সঙ্গে ভালোভাবে মিশে গেলে ত্বক দেখতে সুন্দর লাগবে।

এছাড়া ত্বকে পাউডার দিয়ে স্প্রে করে নিলে সারাদিন ঘাম হওয়ার এবং ঘামের কারণে মেকআপ নষ্ট হবার ভয় থাকবে না।

এরপর চিকবোন হাইলাইট করুন বল্গাশন দিয়ে। খেয়াল রাখবেন বল্গাশন যেন বেশি ডিপ না হয়ে যায়। এটা আপনার ত্বকের রঙের সঙ্গে মিলিয়ে করতে হবে। ফর্সা মেয়েরা লাল, মেরুন, গোলাপী ব্লাশন ব্যবহার করতে পারেন। আর যাদের গায়ের রং চাঁপা, তারা বাদামী রঙের ব্লাশন লাগাতে পারেন।

দেশরিভিউ/শিমুল