পাকিস্তানের এ কেমন জালিয়াতি!

57

সম্প্রতি ঢাকায় অনুষ্ঠিত ওআইসির পররাষ্ট্রমন্ত্রী সম্মেলনে জালিয়াতির আশ্রয় নিয়েছে পাকিস্তান। বিষয়টি ধরা পড়েছে ওআইসি সম্মেলন পরবর্তী পাকিস্তানের পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, তথ্য গোপন করে পাকিস্তানের ‘পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী’ পরিচয় দিয়ে পাকিস্তানের পররাষ্ট্র সচিব তেহমিনা জানজুয়া সম্প্রতি ঢাকায় অনুষ্ঠিত ওআইসির পররাষ্ট্রমন্ত্রী সম্মেলনে অংশ নেয়া জালিয়াতির সামিল।

গত ৪ মে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাকিস্তানের পাঠানো এক আনুষ্ঠানিক পত্রে বলা হয় ‘প্রতিমন্ত্রী তেহমিনা জানজুয়া’ ওআইসির মন্ত্রী পর্যায়ের সম্মেলনে অংশ নেন।

পরে সম্মেলন শেষে ৭ মে বাংলাদেশে পাকিস্তান দূতাবাস থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘৪৫ তম ওআইসি কাউন্সিল অব ফরেন মিনিস্টারস বৈঠক ৬ মে ঢাকায় সমাপ্ত হয়েছে। পাকিস্তান দলের নেতৃত্ব দিয়েছে পররাষ্ট্র সচিব তেহমিনা জানজুয়া।’

এমন জালিয়াতি দেখে তাজ্জব বনেছেন বাংলাদেশের কূটনীতিক বিশ্লেষকরা। তারা বলছেন, একটি দেশ তাদের হয়ে কোনো একটি অনুষ্ঠানে কে প্রতিনিধিত্ব করবেন, তা নিয়ে এমন মিথ্যাচার কূটনীতিতে বিরল।মিথ্যাচার  কেন একজন পরাষ্ট্র সচিব নিজেকে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী পরিচয় দিয়ে ওআইসির মতো গুরুত্বপূর্ণ সংস্থার সম্মেলনে একটি দেশের প্রতিনিধিত্ব করলেন সেটি ধারণারই বাইরে।

যদিও ক্ষেত্র বিশেষে বৈদেশিক সম্পর্কে একজন ব্যক্তিকে ‘বিশেষ দূত’ হিসেবে অভিহিত করা হয়। সেক্ষেত্রে পররাষ্ট্র সচিব ‘প্রতিমন্ত্রী’ পর্যায়ের মর্যাদা পান।

তবে তা আগেভাগেই সংশ্লিষ্ট দেশটির তরফ থেকে জানিয়ে দেওয়া হয় যে, ‘এই অনুষ্ঠানের জন্য’ বা ‘এই মেয়াদের জন্য’ ‘প্রতিমন্ত্রীর প্রটোকল’ দেওয়া হলো। কিন্তু ওআইসি সম্মেলনের প্রতিনিধি পাঠানোর বেলায় পাকিস্তান সেটা করেনি।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা বলেন, ‘পাকিস্তান কেন এ কাজটা করতে গেল সেটাই আমার বোধগম্য নয়। সবচেয়ে বড় কথা হচ্ছে এটার দরকার ছিল না, কারণ পাকিস্তান চাইলে পররাষ্ট্রসচিবকে বিশেষ দূতের মর্যদা দিয়ে, প্রতিমন্ত্রী পর্যায়ে সম্মান দিয়ে তাকে পাঠাতে পারতেন।’

‘ওআইসি পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সম্মেলনে কিছু কিছু দেশের পররাষ্ট্রসচিব এসেছিলেন, তারা সম্মেলনের মেয়াদের জন্য প্রতিমন্ত্রী প্রটোকল নিয়েই এসেছেন। তাহলে তাদের (পাকিস্তান) কেন এই মিথ্যাচার করতে হবে?’

গত ৬ মে ওআইসির ৪৫তম পররাষ্ট্রমন্ত্রী সম্মেলন ‘ঢাকা ঘোষণা’ গ্রহণের মাধ্যমে সমাপ্ত হয়। এই ঘোষণাপত্রের ১৮ নম্বর প্যারা সম্পর্কে সোমবার আপত্তি জানায় পাকিস্তান।

দেশটি দাবি করেছে, ‘কনফারেন্স শেষ হওয়ার আগেই ঢাকা ঘোষণা সবার মাঝে বিতরণ করে দেয় আয়োজক দেশ। ফলে ঘোষণায় শুধু তাদেরই দৃষ্টিভঙ্গী প্রতিফলিত হয়েছে। এ কারণে স্বাগতিক দেশ তার নিজ দায়িত্বে এটি ইস্যু করেছে। এই ঘোষণা নিয়ে সদস্য দেশগুলোর সঙ্গে আলোচনা বা দর কষাকষি করা হয়নি।’

বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এর উত্তরে একটি বিজ্ঞপ্তি ইস্যু করে বলে, ‘ঢাকা ঘোষণার মূল খসড়া ওআইসির সেক্রেটারিয়েট থেকে প্রস্তুত করা হয়েছে। পরবর্তীতে কিছু সদস্য, ওআইসির সঙ্গে সম্পর্কিত সংস্থা ও স্বাগতিক দেশ এর কয়েকটি বাড়তি প্যারাগ্রাফ সংযোজনের প্রস্তাব করে। কিন্তু মূল খসড়ায় যে ১৮ নম্বর প্যারা নিয়ে পাকিস্তানের আপত্তি তার কোনও রকম পরিবর্তন করা হয়নি।

দেশরিভিউ/শিমুল

SHARE