পাকিস্তানের জাতির পিতা মুহাম্মদ আলী জিন্নাহ কোন ধর্মের অনুসারী ছিলেন?

265


।।দেশরিভিউ সংবাদ।।
মুহাম্মদ আলী জিন্নাহকে পাকিস্তানের প্রতিষ্ঠাতা এবং কায়েদে আজম (মহান নেতা) বলা হয়। মুহাম্মদ আলী জিন্নাহকে পাকিস্তানের জাতির পিতা হিসেবেও সম্মান করা হয়।

পাকিস্তান রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠাতা মুহাম্মদ আলী জিন্নাহ ভারতীয় উপমহাদেশে হিন্দু ও মুসলমান দুটি ধর্মীয় সম্প্রদায়কে দুটি পৃথক জাতি হিসেবে আখ্যায়িত করেন। ধর্মীয় দিককে প্রাধান্য দিয়েই দ্বিজাতি তত্ত্ব ঘোষণা করেন তিনি। ১৯৪০ সালে লাহোরে যে “পাকিস্তান প্রস্তাব” গৃহীত হয় তা দ্বিজাতি তত্ত্বের উপর প্রতিষ্ঠিত ছিল। ১৯৪০ সালের ২৩ মার্চ লাহোরে মুসলীম লীগ অধিবেশনে ভাষণে মুহাম্মদ আলী জিন্নাহ বলেন, হিন্দু ও মুসলমান দুটি পৃথক জাতি। হিন্দু-মুসলিমের ধর্মীয় দর্শন, সামাজিক রীতিনীতি ও সাহিত্য পৃথক ও স্বতন্ত্র। জিন্নাহ যুক্তি দেখিয়ে বলেন “একই রাষ্ট্রে দুটি জাতিকে বেঁধে রাখলে সে জাতিদ্বয়ের মধ্যে একটি সংখ্যালঘু এবং অপরটি সংখ্যাগরিষ্ঠ হয়”।

মূলত মুহাম্মদ আলী জিন্নাহর দ্বিজাতি তত্ত্বের উপর দাড়িয়ে ১৯৪৭ সালের ১৪ই আগস্ট পাকিস্তান (মুসলিম রাষ্ট্র) এবং ১৫ আগস্ট ভারত(হিন্দু রাষ্ট্র) নামে দুটি স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্রের জন্ম হয়।

মুহাম্মদ আলী জিন্নাহ ও স্ত্রী-কন্যা কোন ধর্মের অনুসারী?

মুসলিম রাষ্ট্র ‘পাকিস্তান’ প্রতিষ্ঠা করে ‘জাতির জনক’ খেতাব পেলেও মুহাম্মদ আলী জিন্নাহ আপাদমস্তক একজন ভন্ড ধার্মিক ছিলেন। ‘শিয়া’ ইসলাম ধর্মের পরিবারে জন্ম নেওয়া মুহাম্মদ আলী জিন্নাহর স্ত্রী ও একমাত্র কন্যা দুজনেই অমুসলিম ছিলেন।

মুসলিম রাষ্ট্র পাকিস্তান জন্ম নিয়েছিল যে নেতার হাত ধরে সেই মুহাম্মদ আলী জিন্নাহ বিয়ে করেছিলো ‘রতন বাই’ নামের এক অমুসলিম নারীকে। বিয়ের জন্য ‘রতন বাই’ কাগজে কলমে ধর্মান্তরিত হয়ে হলেন ‘মারিয়াম জিন্নাহ’। বিয়ের পর নানা কারণে ক্ৰমশঃ দূরত্ব বেড়েছিল দুজনের মধ্যে। অবশেষে বিবাহ বিচ্ছেদ হওয়া মারিয়াম জিন্নাহ তার পূর্বের নাম ‘রতন বাই’ তে ফিরে গিয়েছেন। মাত্র ২৯ বছর বয়েসে মৃত্যু হলে তার সমাধিক্ষেত্রে নাম লেখা হয় ‘রতন বাই’।

মুহাম্মদ আলী জিন্নাহ বিয়ে করেন অমুসলিম নারী রতন বাইকে।

জিন্নাহর শ্বশুরের নাম ছিল দিনেশ পেটিট। জিন্নাহর রাজনৈতিক গুরু দাদা ভাই, নওরজী এরা কেউ মুসলমান ছিল না। জিন্নাহর স্ত্রী ‘রতন বাই’ এর মতো তাঁর কন্যা ‘দিনা ওয়াদিয়া’ নিজে কখনও ইসলাম ধর্ম গ্রহন করে নাই।
কন্যা ‘দিনা ওয়াদিয়া’ লন্ডনে জন্ম হলেও জীবনের বেশিরভাগ সময় তিনি কাটিয়েছেন ভারতের মুম্বাই ও যুক্তরাষ্ট্রে।

জিন্নাহ’র কন্যা ‘দিনা ওয়াদিয়া’ বিয়ে করেছেন তৎকালীন বোম্বাই এর পারসিক ধর্মের অনুসারী নেভিল ওয়াদিয়াকে। পারসিক ধর্মের অনুসারীরা অগ্নি-উপাসক। পারসিক ধর্মে বিশ্বাসী নেভিল ওয়াদিয়া একসময় খ্রিস্টান ধর্ম গ্রহন করেন এবং পরবর্তীতে আবারও নিজ ধর্ম পারসিকে ফিরে আসেন।

জিন্নাহ’র কন্যা ‘দিনা ওয়াদিয়া’ বিয়ে করেন পারসিক ধর্মের অনুসারী নেভিল ওয়াদিয়াকে।

এই বিয়ের ঘটনাকে কেন্দ্র করে পিতা মুহাম্মদ আলী জিন্নাহর সাথে তার কন্যা ‘দিনা ওয়াদিয়া’ এর সম্পর্কে চিড় ধরেছিলো। একমাত্র কন্যা দিনা ওয়াদিয়া নিউ ইয়র্কে তাঁর বাড়িতে ৯৮ বছর বয়সে মারা যাওযার আগে মাত্র দুবার তার বাবার দেশ পাকিস্তানে গিয়েছিলেন।

মুসলিম রাষ্ট্র পাকিস্তানের প্রতিষ্ঠাতা মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ ধর্মের ভিত্তিতে একটা দেশ তৈরী করেছিল অথচ ওই ধর্মের বাধনে নিজের ঘর ধরে রাখতে পারেনি। জিন্নাহ ধর্মের বাধনে পারেনি স্ত্রীর ভালবাসা আদায় করতে, পারেনি একমাত্র সন্তানকে ধার্মিকতায় অটল রাখতে।

তাই অনেকে বিদ্রুপের সুরে বলেন “কি ঘর বানাইলা জিন্নাহ্ শুন্যের মাঝারে!”

SHARE