পাকিস্তানে অ-মুসলিমদের নির্যাতন; আন্দোলন ছড়িয়েছে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে

84


।।দেশরিভিউ সংবাদ।।

পাকিস্থানে অ-মুসলিমদের ওপর সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলিম গোষ্ঠী কর্তৃক অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের ঘটনা নতুন কিছু নয়। সবচেয়ে বেশি ঘটনা ঘটে দেশটির সিন্ধু প্রদেশে। বারবার অভিযোগের পরও কখনো মেলে না সুবিচার। বিগত কয়েক দশকে সিন্ধু থেকে বহু হিন্দু ও শিখ পরিবার দেশ ছেড়ে গেছে। দেশটির প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের আশ্বাসও কোনো কাজে আসছে না।

ধর্মকে ব্যবহার করে অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের বিষয়টি আন্তর্জাতিক অঙ্গনে তুলে ধরতে সম্প্রতি জেনেভায় জড়ো হন কয়েকজন আন্দোলনকারী। জাতিসংঘের মানবধিকার কাউন্সিলের ৪৪তম সেশন চলাকালে হাতে প্লেকার্ড নিয়ে তারা একটি সমাবেশও করেন। এ সময় তারা তুলে ধরেন ইমরান খান সরকারের সমর্থন পাওয়া সংখ্যাগরিষ্ঠদের শক্তি প্রদর্শনের চিত্র।

প্রতিবাদকারীরা জানান, পাকিস্থানের হিন্দুরা একেবারেই খারাপ অবস্থায় আছে। তাদের সাথে ধর্মীয় বৈষম্যমূলক আচরণ করা হয়। যৌন হয়রানি ও মার্ডারের মতো অপরাধগুলো বেড়েছে। উপরন্তু বিদ্বেষমূলক বার্তা ছড়াচ্ছেন দেশটির আইনপ্রণতারা ও রাজনীতিবিদরা।

পাকিস্থানে মন্দির নির্মাণেও বাধা দিচ্ছে দেশটির সংখ্যাগরিষ্ঠরা। তাদের দাবি, দেশে মন্দির নির্মাণ করার অর্থ সংখ্যাগরিষ্ঠদের ভাবাবেগের প্রতি অ’সন্মান দেখানো। সম্প্রতি একটি মন্দির গুঁ’ড়িয়ে হয়েছে।
জেনেভার আন্দোলনকারীরা জানান, এমন ঘটনা ধর্মীয় সংখ্যাগরিষ্ঠ নেতাদের পরিকল্পনাতেই হয়ে থাকে। আর তাদের পৃষ্ঠপোষক পাকিস্থান সরকার। সেই সাথে এমন ঘটনাকে টুইটার, ফেসবুকে প্রসংশা করা হয়, আরও উৎসাহ দেওয়া হয়।

কয়েক দশক ধরে, পাকিস্থানে অ-মুসলিমদের ওপর খ’ড়গ চালানো হচ্ছে। বিষয়টি সম্প্রতি প্রকাশিত হয়েছে একটি পোস্টারে। সেখানে দেখা গেছে, ইমরান খানের দল পাকিস্থান তেহরিক-ই-ইনসাফের (পিটিআই) এক নেতা হিন্দুদের প্রতি প্রকাশ্যেই হুম’কি দিয়েছেন।
চলতি বছরের মে মাসে দেশটির পাঞ্জাব প্রদেশের বাশাওয়ালপুর শহরের অ-মুসলিমদের বাড়ি থেকে বের করে দেওয়া হয়। মানবাধিকার কমিশন এক টুইট বার্তায় এই ঘটনার নিন্দাও জানিয়েছে। স্থানীয় প্রশাসনের সহায়তায় ও রাজনৈতিক প্রভাব খাটিয়ে বাড়ি থেকে বের করে দেওয়া হয়। তাদের ঘরগুলো গুঁ’ড়িয়ে দেওয়া হয়।
মানবাধিকার ল’ঙ্ঘনের ক্ষেত্রে বিশ্বব্যাপী ‘সুপরিচিত’ পাকিস্থান। অ-মুসলিমদের বিভিন্ন ধর্মীয় অনুষ্ঠানে দেশটির সরকারের পক্ষ থেকে নিরাপত্তা দেওয়ার কথা বলা হয়। কিন্তু বাস্তবে ভিন্ন চিত্র দেখা যায়। বিভিন্নভাবে তাদের ওপর নেমে আসে খড়গ।

পাকিস্থানে কান পাতলেই সহিংসতা, বিচারবহির্ভূত হত্যা, শ্লীলতাহানি, ইসলাম গ্রহণ করানোর মতো নানা ঘটনা দেখা যায় দেশটিতে। ক্ষমতায় আসার পর প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান এসব চিত্র পাল্টে দেওয়া কথা বললেও কোনো কিছুই পরিবর্তন হয়নি।

SHARE