পাশে দাড়ানোর নামে লোকসমাগম করবেন না: শিক্ষা উপমন্ত্রী নওফেল

472

।।দেশরিভিউ নিউজডেস্ক।।

“পাশে দাড়ানোর” নামে ঘটা করে নানান ধরনের বিতরণ উদযাপন না করার আহ্ববান জানিয়েছেন শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল। ঘুরাঘুরি করে এভাবে বিতরণ করাকে “মহামারি ছড়ানোর ব্যবস্থা” হিসেবে উল্লেখ করেন তিনি।

শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলের ফেসবুক পোস্টটি হুবহু তুলে ধরা হলো,

“পাশে দাড়ানোর” নামে ঘটা করে নানান ধরনের বিতরণ উদযাপন দয়া করে করবেন না। চাল ডাল বিতরন, মাস্ক বিতরণ, হেন্ড সেনিটাইসার বিতরণের নামে আরো বেশি জনসমাগম করা হচ্ছে।

আমাদের অনেকেই অনেক খাদ্য বিতরণ করেছে, এখন খাদ্যের অভাবের কথা বলে জনসমাগম করে বিতরণ করা, কোনোভাবেই উচিৎ নয়। এই কাজ করতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নিজেই মানা করেছেন। হাত সাবান দিয়ে বিশ সেকেন্ড ধোয়ার প্রচারণা করুন, হাতে হাতে সেনিটাইসার নিয়ে ঘুরে ঘুরে এটি হাতে দেয়ার জন্য কাউকেই দায়িত্ব দেয়া হয় নাই, বরং এটি সরকারী নির্দেশনার বরখেলাপ

এই ঘুরাঘুরি করে মহামারি ছড়ানোর ব্যবস্থা যেন আমরা কাজ দেখাতে গিয়ে না করি। তাই বলা হয়েছে প্রশাসনের কাজ তাদেরকে করতে দিতে।

গনমাধ্যমের প্রতি অনুরোধ, কাজ হচ্ছে দেখানোর চাইতে কিভাবে নিরাপদ দুরত্ব বজায় রাখবে মানুষ আর অপ্রয়োজনীয় কাজে ঘরের বাইরে বেরোবেনা, সেটার প্রতি নজর দিলে ভালো হবে। আপনাদের ক্যামেরা অনেক সময় আমাদের অতিউৎসাহী হয়ে উঠতেও উৎসাহ দেয়, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমতো আছেই।”

উল্লেখ্য, সন্ধ্যায় জাতির উদ্দেশ্যে দেওয়া ভাষণে প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা ঘোষণা করেন, করোনা ভাইরাস থেকে সৃষ্ট পরিস্থিতিতে নিম্ন আয়ের মানুষের জন্য তার সরকারের পরিকল্পনার কথা জানান। তিনি বলেন নিম্ন আয়ের মানুষদের জন্য ‘ঘরে ফেরা প্রকল্পের’ আওতায় নিজ নিজ গ্রামে সহায়তা প্রদান করা হবে।

গৃহহীন ও ভূমিহীনদের জন্য বিনামূল্যে ঘর, ৬ মাসের খাদ্য ও নগদ অর্থ প্রদান করা হবে। সকল জেলা প্রশাসকদের ইতিমধ্যেই এই ব্যাপারে নির্দেশও প্রদান করা হয়েছে। ভাসান চরে ১ লক্ষ মানুষের আবাসন ও কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা হয়েছে। সেখানে কেউ যেতে চাইলে সরকার ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। এছাড়াও ভিজিডি, ভিজিএফ ও ১০ টাকা কেজি চাল বিক্রয়ের ব্যবস্থা চালু থাকবে।

SHARE