পা দিয়ে লিখে জিপিএ-৫ পাওয়া তামান্না ভবিষ্যতে ডাক্তার হওয়ার ইচ্ছা

1248

।।দেশরিভিউ নিউজরুম।।
যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার পানিসারা মোড়লপাড়া এলাকার রওশন আলী ও খাদিজা পারভীন শিল্পী দম্পতির মেয়ে তামান্না আক্তার নূরা শারীরিক প্রতিবন্ধী। তামান্না আক্তার নূরার জন্ম থেকেই দুটি হাত ও ডান পা নেই।

এক পায়ে লিখে সে প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা, জেএসসি এবং সর্বশেষ এবার এসএসসিতেও জিপিএ-৫ পেলো। তার এমন কৃতিত্বে বাবা-মা দারুন খুশি। স্কুলের শিক্ষকরা এই ফলাফলে দারুণ সন্তোষ প্রকাশ করেছেন।

তামান্না আক্তার নুরার বাবা একটি মাদ্রাসার নন এমপিওভূক্ত শিক্ষক এবং তার মা একজন গৃহিনী। এই দম্পতির পরিবারে তিন সন্তানের মধ্যে তামান্না আক্তার নূরা সবার বড়, মেঝজন মেয়ে মুমতাহিনা রশ্মি তৃতীয় শ্রেণিতে এবং সবার ছোট সন্তান মহিবুল্লাহ তাজের বয়স চার বছর।

তামান্না আক্তার নুরার বাবা মা জামান, জন্মের পরে এই দম্পতি মেয়েকে দেখে খুব কষ্ট পেয়েছিলেন। কিন্তু সে কারও বোঝা হোক- এটা তারা চাইতেন না। তাই ছয় বছর বয়সে অনেক চেষ্টা করে নূরাকে তার মা লেখা শেখিয়েছেন। প্রথমে পায়ের ভেতর কাঠি দিয়ে এবং পরে কলম দিয়ে লেখা শেখান। মাত্র দু’মাসেই মেয়ে পা দিয়ে লেখা ও ছবি আঁকা রপ্ত করে ফেলে। পরে নূরাকে ভর্তি করান বাঁকড়ার একটি স্কুলে। তাকে স্কুলে আনা নেওয়ার কাজটা করতেন তার বাবা-মা।

২০১৩ সালে পিইসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ ও বৃত্তি পায়। এতে তার উৎসাহ আরও বেড়ে যায়, পরে জেএসসিতেও সে জিপিএ-৫ পায়।
তামান্নার বাবা রওশন আলী জানান, মেয়ের মা একজন মহান ব্যক্তি। তিনিই মেয়েটিকে আজকের এই অবস্থানে নিয়ে এসেছেন। বহু প্রতিকূলতা বয়ে গেছে তার জীবনে। সন্তানদের লেখাপড়ার জন্য এই উপজেলার বাঁকড়া আলীপুর এলাকায় শ্বশুরের জায়গায় সেমিপাকা ঘর করে তারা থাকেন।
রওশন আলী বলেন, এসএসসি পরীক্ষার মাস তিনেক আগে মেয়েকে অংক আর রসায়ণ পড়ানোর জন্য দুইজন শিক্ষকের সহায়তা নিই। এছাড়া অন্য সাবজেক্টগুলো আমি নিজেই পড়াতাম।
বছরখানের আগে ব্যক্তিগতভাবে একটি প্রতিষ্ঠানের কয়েক কর্মী নূরাকে একটি হুইল চেয়ার দেয়। যার ফলে মেয়েটির চলাচলে কিছুটা সুবিধে হয়েছে।মেয়ের এই ফলাফলে তিনি ও তার স্ত্রী সন্তোষ প্রকাশ করেন।
অনুভূতি জানতে চাইলে তামান্না জানায়, আশা ছিল গোল্ডেন এ প্লাস মার্ক পাবে। তবুও সে এই ফলাফলে খুব খুশি। ভবিষ্যতে চিকিৎসক হওয়ার ইচ্ছে তার। চিকিৎসক হয়ে দেশের মানুষের সেবা করতে চায় নূরা।

SHARE