পুরোদমে শুরু হয়েছে মেট্রোরেলের কাজ

47

।। দেশরিভিউ , সংবাদ ।।

স্বাস্থ্য বিধি ও সামাজিক দুরত্ব মেনে পুরোদমে কাজ চলছে মেট্রোরেল প্রকল্পে। কাজ করছেন জাপানসহ বিদেশী পরামর্শক ও প্রকৌশলীরাও। ২০ দশমিক ১০ কিলোমিটার দৈর্ঘে্যর এই প্রকল্পে উড়াল পথ বসেছে ১১ কিলোমিটার জুড়ে। আর রেললাইন বসেছে পাঁচ কিলোমিটার। সেপ্টেম্বর পর্যন্ত প্রকল্পের গড় অগ্রগতি পঞ্চাশ দশমিক ৪০ শতাংশ। প্রকল্প কর্মকর্তারা বলছেন, ২০২১ সালের মধ্যেই মেট্রোরেল চালু করার চেষ্টা চলছে।

মহামারি করোনাভাইরাস থমকে দিয়েছে পুরো পৃথিবীকে। তার আঁচড় কিছুটা লেগেছে এই প্রকল্পেও। তবে সংশ্লিষ্টদের দক্ষতা, আন্তরিকতা আর প্রযুক্তির সর্বোচ্চ ব্যবহারে এরই মধ্যে পুরোদমে কাজ শুরু হয়েছে। কিছুটা বিলম্বিত হলেও দ্রুত সময়ের মধ্যে রাজধানী বাসীকে স্বপ্নের মেট্রোরেল উপহার দিতে চায় সরকার।

মেট্রোরেল প্রকল্পে চলছে ব্যাপক কর্মজজ্ঞ। পুরো প্রকল্প জুড়ে শ্রমিক, প্রকৌশলীদের এমন কর্মতৎপরতা।
প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হচ্ছে ৮টি প্যাকেজে। এর মধ্যে তিন ও চারে ৭৪ শতাংশ, ৫-এ ৪৮ শতাংশের কিছু বেশি আর সবশেষ প্যাকেজ ৮-এ প্রায় ৩১ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে।

বিদেশী বড় প্রকল্পের অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে করোনা পরিস্থিতিতেও নির্মাণ অব্যাহত রেখেছে কর্তৃপক্ষ।
ডিএমটিসিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম এন ছিদ্দিক বলেন, আস্তে আস্তে লকডাউনটা উঠলে আমরা আস্তে আস্তে খুলে দিচ্ছি। তখন কিন্তু আইসিপি ব্যবহার করে যে কাজগুলো দূরে বসে সুপারভাইস করে করা যায় সেই কাজগুলো শুরু করলাম। চার্টার্ড ফ্লাইটে যারা কনসালটেন্ড আছেন, যারা কন্ডাক্ট্রর আছেন আমরা তাদেরকে নিয়ে এসে শুরু করলাম।

প্রকল্প এলাকায় নির্মিত দুটি ফিল্ড হাসপাতাল বিদেশীদের আস্থা অর্জন করে।
ডিএমটিসিএলের এমডি বলেন, আমাদের এক্সিস্টিং স্থাপনাগুলোকে আইসোলেশন সেন্টার হিসেবে রূপান্তর করেছি। আমরা কোয়ারেন্টাইন সেন্টার এখানে রূপান্তর করেছি, তারপর আমরা ফিল্ড হাসপাতাল করেছি।
এমআরটি লাইন সিক্স অর্থাৎ দিয়াবাড়ি থেকে মতিঝিল পর্যন্ত মেট্রোরেল নির্মাণের অভিজ্ঞতা বাকি প্রকল্পগুলোর কাজ দ্রুত শেষ করতে সহায়ক হবে বলে মনে করে ডিএমটিসিএল কর্তৃপক্ষ।

SHARE