পুলিশের গুলিতে প্রাণ গেল হলিউড অভিনেত্রীর

49

হলিউড ভেনেসা মার্কেজ গত বৃহস্পতিবার সকালেও লস অ্যাঞ্জেলসের বাড়িতে দিব্য শ্বাস-প্রশ্বাস নিয়ে বেঁচে ছিলেন। কিন্তু এদিন তার আচরণ মোটেও স্বাভাবিক ছিল না। আর যে কারণে এটাই তার জীবনের শেষ গল্প হয়ে লেখা থাকলো।

আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে খবর, এদিন মার্কেজের উন্মত্ত আচরণ দেখে বাড়ির মালিক পুলিশে খবর দেন। খবর পেয়ে পুলিশ একটা মেডিকেল টিমও ঘটনাস্থলে হাজির হয়। চিকিৎসকরা মার্কেজকে শান্ত করার চেষ্টা করছিল, এমন সময় হঠাৎ অভিনেত্রী একটা বন্দুক এনে পুলিশের দিকে তাক করেন। পরিস্থিতি বেগতিক দেখে আত্মরক্ষার্থে পুলিশের এক অফিসার মার্কেজকে গুলি করেন। এতে তার মৃত্যু হয়।

ঘটনার পর পুলিশের দাবি, মার্কেজের হাতে বিবি-টাইপ বন্দুক ছিল। এটা এক ধরনের সেমি-অটোমেটিক হ্যান্ড গান। এক বিবৃতিতে লস অ্যাঞ্জেলস পুলিশ জানিয়েছে, মার্কেজের বাড়িতে পৌঁছে অফিসাররা যখন তাঁর সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করেন, অদ্ভুত আচরণ করছিলেন তিনি। মার্কেজকে বোঝানোর চেষ্টা করেও কোনও লাভ হয়নি। উল্টে হঠাত্ই তিনি আক্রমণাত্মক হয়ে ওঠেন।

পুলিশ তাঁকে মানসিক ভাবে অসুস্থ দাবি করলেও, মার্কেজের এক ঘনিষ্ঠ বন্ধু টেরেন্স টোয়েল্স ক্যান্টো সংবাদ সংস্থা এপি-কে জানান, তাঁর বন্ধুর শারীরিক ও আর্থিক সমস্যা থাকলেও মানসিক কোনও সমস্যা ছিল না। তিনি বার বারই বলতেন, অভিনয়ে ফিরবেন। অস্কার জেতার স্বপ্নও দেখতেন বলে জানিয়েছেন টেরেন্স।

গত বছরই তাঁর সহ-অভিনেতা জর্জ ক্লুনির বিরুদ্ধে যৌন হেনস্থার অভিযোগ এনেছিলেন এই অভিনেত্রী। যৌন হেনস্থার ঘটনা প্রকাশ্যে আনার জন্য টিভি সিরিজ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়ে বলেও অভিযোগ করেছিলেন মার্কেজ। যদিও পরে এক বিবৃতি দিয়ে জর্জ ক্লুনি সেই অভিযোগ অস্বীকার করেন।

১৯৯৪-’৯৭ পর্যন্ত আমেরিকার বিখ্যাত টিভি সিরিজ ‘ইআর’-এ অভিনয় করেছেন মার্কেজ।  সেখানে তাঁকে ওয়েন্ডি গোল্ডম্যান নামে এক নার্সের ভূমিকায় অভিনয় করতে দেখা গিয়েছিল। এ ছাড়া ‘ব্লাড ইন ব্লাড আউট (১৯৯৩) এবং ‘টোয়েন্টি বাকস’ নামে ছবিতে অভিনয় করেছেন।

দেশরিভিউ/এস এস

SHARE