প্রথম আলোর পক্ষ নিয়ে তোপের মুখে ভিপি নুর

166

।।দেশরিভিউ সংবাদ।।

রাজধানীর রেসিডেনসিয়াল মডেল স্কুলের শিক্ষার্থী নাইমুল আবরারের মৃত্যুর ঘটনায় প্রথম আলোর সম্পাদক মতিউর রহমান এবং সহযোগী সম্পাদক আনিসুল হকসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছে আদালত। আসামীদেরগ্রেফতারি পরোয়ানা জারির ঘটনায় নিন্দা জানিয়ে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে তোপের মুখে পড়েছেন ডাকসু ভিপি নুরুল হক নুর।

বৃহস্পতিবার পুলিশ আদালতে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিলে প্রথম আলো সম্পাদকসহ ১০ জনের বিপক্ষে গ্রেফতারি পরোয়ানাজারি করে আদালত। মোহাম্মদপুর থানা পুলিশের তদন্ত রিপোর্টে অবহেলাজনিত মৃত্যুর কারন উঠে আসলে আদেশ দেনআদালত। এরপরেই ডাকসু ভিপি নুরুল হক নুর নিজের ফেসবুকে ঘটনায় প্রথম আলো সম্পাদক মতিউর রহমানকে নির্দোষদাবী করেন। গণমাধ্যমের উপর সরকারের নগ্ন হস্তক্ষেপ হয়রানির তীব্র নিন্দা প্রতিবাদ জানিয়ে ফেসবুকে স্ট্যাটাসও দেন ভিপিনুর। ভিপি নুরুল হক নুর ফেসবুকে লিখেন, সরকারের দুর্নীতিদুঃশাসন, ব্যর্থতা ফ্যাসিজমের চিত্র তুলে ধরে সংবাদ পরিবেশনকরার কারণে প্রথম আলো পরিবারকে এমন হয়রানি করা হলে তার তীব্র নিন্দা প্রতিবাদ জানাই।

আবরারের মৃত্যুর জন্য দায়ী মতিউর রহমান অন্যান্যদের পক্ষ নিয়ে সরাসরি ভিপি নুরের এমন অবস্থান মেনে নিতে পারেনি তার কর্মী সমর্থক অনুসারীরাও। তারা ভিপি নুরের এমন অবস্থানের বিরোধিতা করে ফেসবুকে নানা মন্তব্যও করেন।

রানা হোসেন নামে একজন মন্তব্য করেন, নূর ভাই  সব জায়গায়  নাক গলাবেন না। এতে আপনার সন্মান হানি হবে।

আদিত্য দেবনাথ লিখেছেন, নুরকে শ্রদ্ধা করতাম, কিন্তুু সব জায়গায় বাড়াবাড়ি মোটেই পছন্দ না। শেষে আম যাবে ছালাওযাবে। ইমরান এইস সরকারের মত অবস্থা হবে।আইন তার নিজস্ব গতিতে চলুক না।

সাইদুর সাকিব লিখেছেন নুর ভাই, আপনি জানেন না যে সে দিন কি হয়েছিল। তাই এই বিচার কার্যে অন্যায় ভাবে প্রতিবাদজানাবেন না। এবং এখানে রাজনীতি কে প্রবেশ করাবেন না। আমি আবরারের সহপাঠী।

এমএসএন তুহিন লিখেছেন প্রথম আলো সম্পাদকের সাথে তোকেও আটক করা দরকার। ইডিয়ট একটা।

কামরুল হাসান মাসুম লিখেছেন হত্যাকারীর পক্ষে অবস্থান নেওয়ায় এখন স্কুল ছাত্রদের উচিত নুরুকে গণধোলাই দেওয়া।

মো: আনসার উদ্দিন লিখেছেন এখানে নিন্দা না জানাইয়া যে মারা গেছে তার বিচারের জন্য দাবী জানানো উচিৎ ছিল।

উল্লেখ্য, গত পহেলা নভেম্বর ঢাকার রেসিডেনশিয়াল মডেল স্কুল কলেজে প্রথম আলোর কিশোর ম্যাগাজিনকিশোর আলোবর্ষপূর্তি অনুষ্ঠানে বিদ্যুৎ দুর্ঘটনা ঘটেছিলো। ওই অনুষ্ঠান দেখতে গিয়েছিলো স্কুলটির নবম শ্রেণীর শিক্ষার্থী নাঈমুল আবরার।মৃত্যুর অনেকক্ষণ পরও ঘটনা চেপে রেখে অনুষ্ঠান চালিয়ে যাওয়ায় আয়োজক কলেজ কর্তৃপক্ষের দায়িত্ব নিয়ে প্রশ্ন তুলে আন্দোলনে নামেন শিক্ষার্থী অভিভাবকরা। এর কয়েকদিন পর ৬ই নভেম্বর তার বাবা মজিবুর রহমান মহানগর হাকিম আদালতে মামলা করেন যাতে তার সন্তানকে অবহেলাজনিত হত্যার অভিযোগ আনেন প্রথম আলো সম্পাদকসহ অনুষ্ঠান আয়োজন কমিটির বিরুদ্ধে। আবরারের বাবার দায়ের করামামলার বিষয়ে একটি প্রতিবেদন দেয়ার জন্য নির্দেশ দেয় আদালত। প্রেক্ষাপটে আদালতে একটি প্রতিবেদন দাখিল করেছেনমোহাম্মদপুর থানা পুলিশ।  যাতে মতিউর রহমান আনিসুল হকসহ দশজনকে আসামি করা হয়।

SHARE