প্রথম কাজ সারাদেশের শিক্ষাব্যবস্থাকে কল্যানমুখী করা: নওফেল

520

তারুণ্যের প্রতিনিধি। এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর প্রতিচ্ছায়া। মার্জিত ও যুক্তিবাদী ব্যারিস্টার। পরিশীলিত রাজনীতিবিদ। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক। এতদিন মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলের সাথে এ শব্দগুলো যুক্ত ছিল। ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচনের পর যুক্ত হয় এমপি শব্দটিও। তবে গতকাল রোববার উপমন্ত্রী পদবি যুক্ত হয়ে চট্টলবীর মহিউদ্দিন চৌধুরীর ছেলে উঠে গেলেন অনন্য উচ্চতায়। সেই সাথে চট্টগ্রামবাসীও তার নেতৃত্বে আগামীদিনে উন্নয়ন অগ্রগতির স্বপ্নের জাল বুনতে শুরু করল।

তিনি পেয়েছেন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী পদ। চট্টগ্রাম তথা সারাদেশের শিক্ষা ব্যবস্থাকে তিনি এগিয়ে নেবেন কাঙ্ক্ষিত দরজায় এ প্রত্যাশা চট্টগ্রামের সর্বস্তরের মানুষের।

এদিকে নওফেলের মন্ত্রী সভায় যোগদানের খবরে সবচেয়ে বেশি উল্লসিত তরুণ প্রজন্ম। তরুণ এ নেতা চট্টগ্রামের সার্বিক শিক্ষা ব্যবস্থাকে অনেকদূর এগিয়ে নেবেন এ প্রত্যাশা চট্টলাবাসীর।

এ বিষয়ে চট্টগ্রাম সরকারি সিটি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষক মোহাম্মদ মুজিবুর রহমান বলেন, মাত্র ৯টি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় রয়েছে নগরীতে। এ সংখ্যক প্রতিষ্ঠান মোটেও যথেষ্ট নয়। এ বিষয়টি মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলের মাথায় আছে বলে জানান তিনি।
এদিকে উপমন্ত্রী হওয়ার প্রতিক্রিয়া হিসেবে ব্যারিস্টার নওফেল বলেন, চট্টলবাসীর প্রতি কৃতজ্ঞ। এর চেয়ে বেশি কৃতজ্ঞ জননেত্রী শেখ হাসিনার প্রতি। যিনি এ চট্টগ্রামকে গুরুত্ব দিয়েছেন। আজ বাবাকে খুব মনে পড়ছে। উনি থাকলে বেশি খুশী হতেন।

তিনি আরো বলেন, জননেত্রী নির্বাচনের আগে সর্বস্তরের মানুষের উন্নয়নের জন্য যে ইশতেহার দিয়েছেন তাতে আস্থা রেখেছে মানুষ। আস্থা রেখেছে চট্টগ্রামবাসী। আমি নেত্রী ও মানুষের সেই আস্থার মর্যাদা অক্ষুণ্ন রাখব।

শিক্ষা ব্যবস্থা নিয়ে তিনি বলেন, চট্টগ্রামের শিক্ষা ব্যবস্থার উন্নয়নের পাশাপাশি সারাদেশের শিক্ষাব্যবস্থাকে কল্যাণমুখী শিক্ষা ব্যবস্থায় রূপান্তরে কাজ করে যাব।

এদিকে নওফেলের উপমন্ত্রী হওয়ার খবরে উচ্ছ্বসিত চট্টগ্রামের তরুণ প্রজন্ম। তারা বলছেন, এবারের সংসদে তরুণ প্রজন্মের প্রতিনিধিত্ব করবেন তিনি। উপমন্ত্রী হওয়ার খবরে ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলের নির্বাচনী এলাকা কোতোয়ালী-বাকলিয়াতে আনন্দ মিছিল ও মিষ্টি বিতরণ করেছে ছাত্রলীগ ও যুবলীগ।

৩০ ডিসেম্বর একাদশ সংসদ নির্বাচনে সাবেক মেয়র ও নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর ছেলে ব্যারিস্টার নওফেল চট্টগ্রাম-৯ আসনের ১৪৪টি কেন্দ্রে ২ লাখ ২৩ হাজার ৬১৪ ভোট পেয়ে প্রথমবারের মতো সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

১৯৮৩ সালের ২৬ জুন চট্টগ্রামে জন্মগ্রহণ করেন ব্যারিস্টার নওফেল। ২০১০ সালে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বাবার পক্ষে কাজ করে আলোচনায় আসেন তিনি। ২০১৪ সালে ৭১ সদস্যের আওয়ামী লীগের নগর কমিটির নির্বাহী সদস্য করা হয় তাকে। যুক্ত ছিলেন যুবলীগের রাজনীতির সাথেও। লন্ডন স্কুল অব ইকনোমিক থেকে স্নাতক করা মহিবুল পরে লন্ডন থেকে ব্যারিস্টারি সম্পন্ন করেন।

বাবা মহিউদ্দিন চৌধুরীর মতো আওয়ামী লীগের প্রতি ত্যাগ এবং নওফেলের বুদ্ধিদীপ্ত তারুণ্য পছন্দ হয় শেখ হাসিনার। এ কারণে মাত্র ৩৩ বছর বয়সে আওয়ামী লীগের মতো ঐতিহ্যবাহী রাজনৈতিক সংগঠনের সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব দেওয়া হয় নওফেলকে। ৩৫ বছর বয়সে প্রধানমন্ত্রী এবার উপমন্ত্রী পদ দিয়ে আস্থা রাখলেন ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলের উপর।

SHARE