প্রধানমন্ত্রীর ক্ষোভের আগুন দ্বিগুণ, গণভবনে প্রবেশ পাস বাতিলের গুঞ্জন

851

।।মেহেদী হাসান ও নয়ন চৌধুরী।।

ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি ও সাধারন সম্পাদকের বিরুদ্ধে বিভিন্ন বিতর্কিত কর্মকান্ডের খবরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেছিলেন গণভবনের এক বৈঠকে। ঐ বৈঠকের পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে সাক্ষাত করার চেষ্টা করেও সফল হননি ছাত্রলীগের সভাপতি রেজোয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী।

ছাত্রলীগের উপর প্রধানমন্ত্রীর এমন ক্ষোভের মধ্যেই গত দুইদিনে ছাত্রলীগের সভাপতি, সাধারন সম্পাদক জড়িয়েছেন নতুন দুইটি বিতর্কে। এমন অবস্থায় ছাত্রলীগ সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানীর গণভবনে সরাসরি প্রবেশ করার স্থায়ী পাস বাতিল করা হয়েছে বলে ‘গুন্জন’ উঠেছে।

প্রবেশ পাস বাতিল হলে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক গণভবনে প্রবেশ করতে চাইলে দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের কাছ থেকে অন্যদের মতো আলাদা অস্থায়ী পাস নিতে হবে। যদিও গণভবনে প্রবেশের স্থায়ী পাস বাতিলের বিষয়টি ‘স্পর্শকাতর’ উল্লেখ করে এ বিষয়ে গণভবনের কোন কর্মকর্তা সাংবাদিকদের কাছে কোন তথ্য প্রকাশ করেনি।

তবে দলীয় সূত্রগুলো বলছে, শোভন-রাব্বানী গণভবনে প্রবেশের জন্য যে স্থায়ী পাস রয়েছে তা কেবল প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশেই বাতিল হতে পারে।

সূত্র বলছে, শনিবার (৭ই মার্চ) গণভবনের আলোচিত সেই বৈঠকের পর শোভন-রাব্বানী নতুন করে দুইটি বিতর্কে জড়িয়েছেন। নতুন বিতর্কের কারনেই হয়তো প্রধানমন্ত্রী তাদের উপর আরো বেশী ক্ষুব্ধ হয়ে প্রবেশ পাস বাতিল করতে পারেন।

দুইদিনে দুই বিতর্কে শোভন-রাব্বানী:

শোভনের সামনেই মারামারি ও সাংবাদিক লাঞ্ছিত: গতকাল মঙ্গলবার দুপুর দেড়টায় ছাত্রলীগ সভাপতি রেজোয়ানুল হক চৌধুরী শোভনের গাড়িতে উঠতে গিয়ে সংগঠনটির দুই সহসভাপতি তৌহিদুল ইসলাম চৌধুরী জহির ও শাহরিয়ার কবির বিদ্যুৎ মধুর ক্যান্টিনের সামনেই একে অপরকে মারধর করেন। মারামারির দৃশ্য ভিডিও ধারণকারী এক সাংবাদিককে এসময় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা মারধর করে। পরে সভাপতি শোভন নিজের গাড়িতে তুলে নিয়ে ঐ সাংবাদিকের মোবাইল থেকে জোরপূর্বক ভিডিও মুছে ফেলেন। পরে ঐ সাংবাদিক অনুরোধ করলে হাতিরপুল বাজারের কাছে তাকে গাড়ি থেকে নামতে দেওয়া হয়।

রাব্বানীর কক্ষে এসি (শীততাপ নিয়ন্ত্রিত) বিতর্ক: ছাত্রলীগ সাধারন সম্পাদক ও ডাকসু জিএস গোলাম রাব্বানীকে নিয়েও গত দুইদিন সরগরম ছিল দেশের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম থেকে শুরু করে গণমাধ্যম পর্যন্ত। বিশ্ববিদ্যালয়ে আবাসান সংকটের কারনে সাধারণ শিক্ষার্থীরা যখন গণরুমে গাদাগাদি ও ফ্লোরিং করে থাকছে ঠিক তখন ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক ও ডাকসু জিএস গোলাম রাব্বানীর হলের কক্ষটি শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত বলে গণমাধ্যমে প্রথমবারের মতো উঠে আসে। আগস্ট মাসের প্রথম সপ্তাহে রাব্বানীর কক্ষে ঐ এসি স্থাপন করা হলেও বিষয়টি সর্বমহলে জানাজানি হয়েছে গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর ‘ছাত্রলীগ নিয়ে ক্ষুব্দ’ প্রতিক্রিয়ার পর। এ বিষয়ে ছাত্রলীগ সাধারন সম্পাদক ও ডাকসুতে ছাত্রলীগের প্রতিনিধি (জিএস) গোলাম রাব্বানী ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েন।

এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের একটি সূত্র দেশরিভিউকে বলেন, প্রধানমন্ত্রী বারবারই ছাত্রলীগকে ত্যাগী হওয়ার নির্দেশ দেন। কিন্তু, ছাত্র সংগঠনটির শীর্ষ দুই নেতা বরাবরই আরামপ্রিয় ও ক্ষমতার ছায়াতলে থাকতে পছন্দ করেন। গত শনিবার (৭ সেপ্টেম্বর) গণভবনে প্রধানমন্ত্রী ছাত্রলীগকে নিয়ে যেভাবে হতাশা ও ক্ষুব্দ প্রতিক্রিয়া প্রকাশ করেছেন এরপর তার পক্ষে সব ধরনের কঠিন সিদ্ধান্তে যাওয়াটা খুব স্বাভাবিক বিষয়।

দেশরিভিউ/ঢাকা-ম-ন

SHARE