প্রবাসীর স্ত্রীকে ইউপি সদস্যের কুপ্রস্তাব, রাজি না হওয়ায় হত্যার চেষ্টা

    371

    ।। দেশরিভিউ , সংবাদ ।।

    চট্টগ্রামের পটিয়া উপজেলার শোভনদন্ডী ইউনিয়নের মধ্যম হিলচিয়া গ্রামের ৭নং ওয়ার্ডের মেম্বার নুরুল হকের (৫৩) কুপ্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় উক্ত এলাকার প্রবাসীর নিরীহ গৃহবধূকে হত্যার চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে।

    অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গত ১৩ অক্টোবর সকালে মুদির দোকান থেকে মর্জিয়া বেগম (ভুক্তভোগী) বাজার করতে গেলে শোভনদন্ডী ইউনিয়নের মধ্যম হিলচিয়া গ্রামের ৭নং ওয়ার্ডের মেম্বার নুরুল হক মর্জিয়া বেগমকে কু-প্রস্তাব দেয়। মর্জিয়া বেগম কু-প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় পূর্ব পরিকল্পিতভাবে নুরুল হক ও তার ছেলে এনামুল হকসহ আরো কয়েকজন লোক মর্জিয়া বেগমকে পথরোধ করে রাখে এবং নুরুল হক মর্জিয়া বেগমকে জরিয়ে ধরে রাখে।

    নুরুল হকের ছেলে এনামুল হক তাকে লোহার রড দিয়ে মাথায় আঘাত করে সারা শরীরে রক্তাক্ত ও জখম করে। এক পর্যায়ে নুরুল হক মর্জিয়া বেগমের গলা চেপে ধরে শাসরোধ করে প্রাণে মেরে ফেলার চেষ্টা চালায়।

    মর্জিয়া বেগমের আর্তচিৎকার শুনে তার ছেলে ও মেয়ের জামাই তাকে উদ্ধার করে পটিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। তার শারীরিক অবস্থার খুবই অবনতি হওয়ায় তাকে পটিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন।

    এ বিষয়ে পটিয়া থানার এস আই মো. নাজমুল কবীর জানান, বাদী ও বিবাদী দুপক্ষের মধ্যে মারামারি হয়েছিল। সরেজমিনে গিয়ে আমি মহিলাকে মারধরের সত্যতা পেয়েছি। এই বিষয়ে আরো তদন্ত করে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দিব।

    শোভনদন্ডী ইউনিয়ন পরিষদের অভিযুক্ত মেম্বার নুরুল হকের কাছ থেকে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি তিন তিনবারের ইউপি মেম্বার। এমন কাজ আমি করতে পারি আপনি আপনি বলুন, এ ঘটনাটি সাজানো এবং আমাকে ফাঁসানো হচ্ছে।

    এ বিষয়ে ভুক্তোভুগী মর্জিয়া বেগম বলেন, আমার স্বামী প্রবাসে থাকে করোনার কারণে আমার স্বামী ঠিকমত টাকা পাঠাতে পারে নাই। আমার তিন ছেলে-মেয়েকে নিয়ে আমি খুবই দুঃখ-কষ্টে জীবন নির্বাহ করছি। করোনাকালীন সরকারি ত্রাণসামগ্রী সবাই পেলেও আমি পাইনি। ত্রাণের জন্য ইউনিয়ন পরিষদে গিয়ে মেম্বার নুরুল হকের নিকটে গেলে তিনি বলেন- ‘তোমাকে সব দিব। আমার একটা শর্ত আছে তা পূরণ করলে তোমার ত্রাণের অভাব হবেনা।’

    আমি জিজ্ঞেস করি- আপনার শর্ত কী? তিনি বললেন- ‘আমি প্রতিদিন রাত ১২টায় কল দিব তুমি আমাকে সুযোগ করে দিবে।’ আমি বললাম- এ শর্ত দিয়ে আমার ত্রাণের প্রয়োজন নাই। এরপর থেকে নুরুল হক আমাকে বিভিন্নভাবে খারাপ কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য করতে থাকে।

    ভুক্তভোগী আরো জানান, গত১৩ অক্টোবর সকালে আমি কেনাকাটার জন্য বাজারে গেলে নুরুল হক ও তার ছেলে এনামুল হক আরো ৫-৬ জন লোক আমার পথ গতিরোধ করে আমাকে লোহার রড দিয়ে এলোপাতারি মারধর করে অজ্ঞান করে পেলে চলে যায়। পরে আমার ছেলে ও মেয়ের জামায় আমাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়।

    SHARE