প্রযুক্তি খাতের উন্নয়নে বাংলাদেশ-কম্বোডিয়া সমঝোতা স্মারক সই

72

।।দেশরিভিউ সংবাদ।।

দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের উন্নয়ন এবং বিকাশে বাংলাদেশ-কম্বোডিয়া একসঙ্গে কাজ করবে। একসঙ্গে কাজ করতে এজন্য দুই দেশের মধ্যে দুটি সমঝোতা স্মারক সই হয়েছে।

তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক মঙ্গলবার রাজধানীর আগারগাঁও আইসিটি টাওয়ারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান।

দুই দেশের সমঝোতা চুক্তি দুটি হয়েছে তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগের অধীন ‘স্টার্টআপ বাংলাদেশ-আইডিয়া’ প্রকল্পের সঙ্গে কম্বোডিয়ার ‘ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব পোস্ট টেলিকমিউনিকেশনস্ অ্যান্ড আইসিটি’ বিভাগের। আরেকটি ‘ডিজিটাল সিকিউরিটি এজেন্সি, বাংলাদেশ’ এর সঙ্গে কম্বোডিয়ার ‘কম্পিউটার ইমারজেন্সি রেসপন্স টিম’ এর সঙ্গে।
প্রথম সমঝোতা স্মারকে আইডিয়া প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক সৈয়দ মজিবুল হক এবং কম্বোডিয়ার এনআইপিটিআইসিটি’র ভাইস প্রেসিডেন্ট হেন স্যামবওয়েন নিজ নিজ পক্ষে স্বাক্ষর করেন। অপরটিতে ‘ডিজিটাল সিকিউরিটি এজেন্সি, বাংলাদেশ’ এর মহাপরিচালক মো. রেজাউল করিম এবং কম্বোডিয়ার ডিরেক্টর জেনারেল অব আইসিটি চুনভাট নিজ প্রতিষ্ঠানের পক্ষে স্বাক্ষর করেন।

সংবাদ সম্মেলনে প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক জানান, স্টার্টআপ বাংলাদেশ-আইডিয়ার সঙ্গে কম্বোডিয়ার ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব পোস্ট, টেলিকমস অ্যান্ড আইসিটি একে অপরকে স্টার্টআপ সংস্কৃতি তৈরিতে সহযোগিতা করবে। সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্ট ও ফ্রন্টিয়ার টেকনোলজি বিষয়ক গবেষণা ও উন্নয়ন, ডিজিটাল ট্যালেন্ট ও শিক্ষার উন্নয়নের মাধ্যমে ক্যাপাসিটি বিল্ডিং, শর্ট-টার্মভিত্তিক বিভিন্ন কার্যক্রম যেমন-কনফারেন্স, সেমিনার, ওয়ার্কশপ, শিক্ষা সফর, কম্বোডিয়ার তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক স্টার্টআপকে বিনিয়োগ ও বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ করবে দেশ দুটি।
আর ডিজিটাল সিকিউরিটি এজেন্সি, বাংলাদেশ এবং কম্বোডিয়ার কম্পিউটার ইমারজেন্সি রেসপন্স টিম সাইবার অপরাধ দমনের লক্ষ্যে কাজ করবে। সাইবার ক্রাইম নিরসনে স্ট্যান্ডার্ড অপারেশন পদ্ধতি, ব্রডার ফ্রেমওয়ার্ক চালু, জাতীয় তথ্য সুরক্ষা ব্যবস্থাপনার উন্নয়ন, মানবসম্পদের দক্ষতা বৃদ্ধি এবং বিশেষজ্ঞদের আদান-প্রদান করবে দুই দেশ।
সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরের আগে উভয় দেশের জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপের দ্বি-পাক্ষীক প্রথম সভা অনুষ্ঠিত হয়।
সভায় ২০১৭ সালে উভয় দেশের সমঝোতা স্মারকের আওতায় ই-গভার্নমেন্ট, ই-পাবলিক সার্ভিস ডেলিভারি, ই-লার্নিং, টেলিমেডিসিন, সাইবার সিকিউরিটি, ক্যাপাসিটি বিল্ডিং, তথ্যপ্রযুক্তি খাতে গবেষণা ও উন্নয়নসহ নানান বিষয়ে বেস্ট প্র্যাক্টিসগুলো বিনিময় করার মাধ্যমে দুই দেশের আইসিটি খাতের উন্নয়নে কাজ করার বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়।
আগামী সেপ্টেম্বরে জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপের দ্বিতীয় বৈঠক কম্বোডিয়া অনুষ্ঠিত হবে।
সভা এবং সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরের সময় উপস্থিত ছিলেন কম্বোডিয়ার পোস্ট অ্যান্ড টেলিকমিউনিকেশনস মন্ত্রণালয়ের সেক্রেটারি অব স্টেট কান চ্যানমেতা, ডিরেক্টর জেনারেল অব টেলিকম টল ন্যাক, ডিরেক্টর জেনারেল অব আইসিটি চুন ভাট, এনআইপিটিআইসিটি এর ভাইস প্রেসিডেন্ট হেন স্যামবওয়েন এবং বোর্ড অব ক্যাপাসিটি বিল্ডিং অ্যান্ড রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট ফান্ড সেক্রেটারিয়েট কর্মকর্তা ভিথ ভিউথ।
তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগের সিনিয়র সচিব এন এম জিয়াউল আলম, বাংলাদেশ হাইটেক পার্কের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হোসনে আরা বেগম, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এ. বি.এম. আরশাদ হোসেন, কন্ট্রোলার অব সার্টিফাইং অথরিটির নিয়ন্ত্রক আবুল মানসুর মোহাম্মদ সার্‌ফ উদ্দিনসহ অন্যান্যরা।
২০১৭ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কম্বোডিয়া সফরকালে দুই দেশের মধ্যে দুই দেশের মধ্যে তথ্যপ্রযুক্তিতে সহায়তার বিষয়ে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর হয়েছিল।

SHARE