প্রেমের দৃশ্য নিষিদ্ধ মিসরীয় সিনেমায়

279

এক সময়ের মধ্যপ্রাচ্যের হলিউড ছিল মিসর। মিসরে সত্তরের দশকেও নির্মিত হত মানব সম্পর্কের অনেক প্রগতিশীল সিনেমা। কিন্তু বর্তমানে দেশটির চলচ্চিত্র নির্মাতারা বলছেন অনেক নিয়ম কানুন মেনে সিনেমায় প্রেমের দৃশ্য দেখাতে হয়।

এক সময় পর্দায় অনেক দৃশ্য স্বাভাবিকভাবে দেখানো হলেও ,এখন সেটা হয়ে উঠেছে প্রায় অসম্ভব ।

 মিসরের একজন নামী চলচ্চিত্র নির্মাতা হানা খলিল বলেন,আমার দ্বিতীয় চলচ্চিত্রে, একটি প্রেমের দৃশ্য লিখেছিলাম।কিন্তু সেটা নিয়ে সমস্যা হয়েছিল। সেন্সরশিপের কারণে মিশরের আরও অনেক পরিচালকের মত আমাকেও সিনেমা থেকে বাদ দিতে হয়েছে প্রেমের দৃশ্য ।

হানা আরও বলেন, এখনকার চাইতে আগে মিশরের সমাজ অনেক মুক্তমনা ছিল। নারীপুরুষ নিয়ে সমাজের যেকোনো ক্ষেত্রে আলোচনা, সাহিত্য, সিনেমা বা নাটকে এর উপস্থাপন ছিল খুবই স্বাভাবিক। কিন্তু সেই চিত্র এখন অনেকটাই বদলে গেছে ।

যৌনতা যেমন জীবনের অংশ, তেমনি সিনেমারও অংশ হিসেবে ছিল মিশরীয়দের কাছে । বাস্তবের টানাপড়েন নিয়ে  লজ্জিত ছিল না সমাজ।

১৯৬০ এর দশকে মিশরীয় চলচ্চিত্র যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপীয় নির্মাতাদের দ্বারা অনেক প্রভাবিত থাকায় সিনেমায় নারী-পুরুষ সম্পর্কের উপস্থাপনও ছিল উদার এবং মানবিক। কিন্তু ১৯৭০ এর দশকে দেশটির অনেক নির্মাতা অর্থের খোঁজে মধ্যপ্রাচ্যের বাজার ধরার জন্য,সেখানকার মানুষের রুচি ও চাহিদা অনুযায়ী সিনেমা বানাতে শুরু করেন।

যার ফলে পাশ্চাত্যের উদার সংস্কৃতির বদলে ,সেখানে তাদের সিনেমায় প্রাচ্যের রক্ষণশীলতাই বেশি ফুটে উঠে। কিন্তু এখন এ ধারার ছাপ পড়েছে মিশরীয় চলচ্চিত্রে।

“আগে হিজাব পরা নারীদের সাথেও হাত মেলানো নিয়ে কোন প্রশ্ন ছিলনা । কিন্তু এখন বলা হয় ক্যামেরার সামনে চুম্বন বা ‘হট’ সিন থাকতে পারবেনা।  নৈতিক এবং ধর্মীয় বিষয় মাথায় রেখে গল্প তৈরী করতে বলা হয়।

দেশরিভিউ/ আরিফুল ইসলাম

SHARE