ফাঁদ পেতে ইকবালকে আটক করে তিন ছাত্রলীগ নেতা

282


দেশরিভিউ সংবাদ।।
কুমিল্লার নানুয়ার দিঘির পাড়ের অস্থায়ী পূজামণ্ডপে পবিত্র কোরআন শরিফ রাখার ঘটনায় প্রধান অভিযুক্ত ইকবাল হোসেনকে গান শুনিয়ে ও প্রায় ১০ ঘণ্টা আড্ডা দিয়ে পরিচয় নিশ্চিত হন নোয়াখালীর বেগমগঞ্জের চৌমুহনী সরকারি এসএ কলেজের তিন ছাত্রলীগ নেতা মেহেদী হাসান মিশু, সাজ্জাদুর রহমান অনিক ও তার বন্ধু সাইফুল ইসলাম সাইফ। মূলত এই তিন ছাত্রলীগ নেতার পাতা ফাঁদে শেষ পর্যন্ত ইকবাল আটক হয়। এরপরেই বৃহস্পতিবার (২১ অক্টোবর) রাত সাড়ে ১০টার দিকে কক্সবাজারের সুগন্ধা পয়েন্ট থেকে ইকবালকে পুলিশে তুলে দেন এই তিন ছাত্রলীগ নেতা।

এ বিষয়ে ছাত্রলীগ নেতা সাজ্জাদুর রহমান অনিক
বলেন, গত ১৯ অক্টোবর আমরা ৩ জন কক্সবাজারে ঘুরতে আসি। প্রথমে ইকবালকে দেখে আমাদের সন্দেহ হয়। তারপর আমরা তার সঙ্গে সখ্যতা তৈরি করি। এ সময় ইকবাল তাকে গান শোনাতে বলে। সব মিলিয়ে প্রায় ১০ ঘণ্টা সময় কাটিয়ে তার পরিচয় নিশ্চিত করতে সক্ষম হই। পরে বৃহস্পতিবার (২১ অক্টোবর) রাত ৮টা ৫৫ মিনিটের দিকে কক্সবাজার পুলিশকে বিষয়টি জানাই। এ সময় পুলিশ এসে তাকে গ্রেপ্তার করে নিয়ে যায়।

আরেক ছাত্রলীগ নেতা মেহেদী হাসান মিশু বলেন, আমরা কৌশলে কয়েক সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত কয়েক দফা গল্প করেই তার পরিচয় নিশ্চিত হওয়ার চেষ্টা করি। পরে তার কথায় সন্দেহ হলে মূল ঘটনা জিজ্ঞেস করি। এরপর সে পুরো ঘটনা আমাদের সঙ্গে শেয়ার করে। তারপর থেকে কীভাবে তাকে পুলিশে দেওয়া যায় সেই চিন্তা করতে থাকি। রাত ৮টার দিকে আমরা নিশ্চিত হই ইকবালই কুমিল্লার ঘটনার মূল অভিযুক্ত। তারপর পুলিশকে বিষয়টি জানাই।

কক্সবাজার জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) রফিকুল ইসলাম বলেন, অভিযুক্ত ইকবালকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছি। তাকে কুমিল্লা জেলা পুলিশের কর্মকর্তাদের কাছে হস্তান্তর করার পর তারা আরও যাচাই বাছাই করবেন এরপর বিস্তারিত বলবেন।

SHARE