ফুটবলারের সাথে বিয়ের পিঁড়িতে ক্রিকেটার

109

স্পোর্টস ডেস্ক।।
জাতীয় ফুটবল দলের ফরোয়ার্ড মাহবুবুর রহমান সুফিল ঘর বেঁধেছেন নারী ক্রিকেটার জিন্নাত আসিয়া অর্থীর সাথে। দুজনের পরিচয় হয়েছিল বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে (বিকেএসপি) পড়ার সময়েই। এরপরে শুরু হয় প্রেমের গল্প। সেই গল্প স্বার্থক করে দুজনে বাঁধলেন বিয়ের ঘর।

সোমবার সন্ধ্যায় বগুড়ার ম্যক্স মোটেলে ঘরোয়া পরিবেশে হয় তাদের বিয়ের অনুষ্ঠান। দুই পরিবারের সদস্য ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন বগুড়ার বেশ কয়েকজন নারী ক্রিকেটার।
বগুড়ায় সোমবার  অনুষ্ঠানের আগে বর-কনে যান শহীদ চান্দু স্টেডিয়ামে। সেখানে নানান আয়োজনে নারী ক্রিকেটাররা তাদের সংবর্ধনাও দেন।

মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলের ছেলে মাহবুবুর রহমান বয়সভিত্তিক দলের হয়ে নিয়মিত পারফরম্যান্স করার পর বাংলাদেশ জাতীয় দলে অভিষেক লাওসের বিপক্ষে ম্যাচে। অভিষেক ম্যাচেই গোল করে বাংলাদেশকে জয়ের সমান ড্র এনে দেন মৌলভীবাজারের এই ছেলে। তাঁর বাবা সেলিম মিয়া। মা রেবেকা সুলতানা। চার ভাই, চার বোনের মধ্যে সবার ছোট মাহবুবুর। ২০১১ সাল থেকে ফুটবল ক্যারিয়ার শুরু তাঁর। তিনি জাতীয় দলের আক্রমণভাগের খেলোয়াড়। গত বছর ভুটানে অনুষ্ঠিত অনূর্ধ্ব-১৮ সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে ভারতের বিপক্ষে ৪-৩ গোলে জিতেছিল বাংলাদেশ। সেখানে সমতাসূচক গোল করেছিলেন তিনি। তাজিকিস্তানে অনুষ্ঠিত অনূর্ধ্ব-১৯ বাছাই পর্বেও তিন ম্যাচে ৩ গোল করেছিলেন মাহবুবুর।

পাত্রী মোহামেডানের নারী ক্রিকেটার জিন্নাত আছিয়া অর্থি মোহামেডানের প্রমীলা দলের উইকেটকিপার। বগুড়া শহরের জলেশ্বরীতলার বাসিন্দা আলমগীর হোসেনের দুই মেয়ের মধ্যে জিন্নাত আছিয়া ছোট। প্রায় এক যুগ আগে বগুড়ার প্রয়াত ক্রিকেট প্রশিক্ষক মোসলেম উদ্দিনের হাত ধরে ক্রিকেটে অভিষেক জিন্নাত আছিয়ার। এরপর শহীদ চান্দু স্টেডিয়াম থেকে ভর্তির সুযোগ পান বিকেএসপিতে। সেখানেই পরিচয় ফুটবলার মাহবুবুর রহমানের সঙ্গে। পরিচয় থেকে টুকটাক কথা, এরপর হৃদয়ের লেনাদেনা। পারিবারিক সম্মতিতেই সোমবার বিয়ের আনুষ্ঠানিকতার প্রথম পর্ব আয়োজন করা হয় বগুড়া শহরের শেরপুর সড়কের একটি চায়নিজ রেস্টুরেন্টে। সেখানে দুই পক্ষের অভিভাবক ছাড়াও দুই পরিবারের সদস্যদের উপস্থিতিতে পারিবারিক পরিবেশে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা হয়। এক দিন আগে হয়েছে গায়েহলুদ। পরে বিবাহোত্তর সংবর্ধনার আয়োজন করা হবে বলে জানিয়েছেন মাহবুবুর রহমানের অভিভাবকেরা।

SHARE