ফের নির্বাচন বানচালের ষড়যন্ত্রে জামায়াত,শীর্ষ ৩ জেলা নেতা সহ আটক ১৭….

23

আগামী ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিতব্য একাদশ জাতীয় সংসদ  নির্বাচনের দিন নাশকতা ও সহিংসতা সৃষ্টি করে দেশত্যাগের পরিকল্পনাকালে জামায়াতের শীর্ষ ৩ জেলা নেতাসহ ১৭ জনকে আটক করেছে গোয়েন্দা পুলিশ। জামায়াত শিবিরের আটককৃত ক্যাডারদের কাছ থেকে ৭ শতাধিক পাসপোর্ট,বোমা তৈরির সরঞ্জাম, পেট্রল, , দেশীয় অস্ত্র ও ২৫ লাখ টাকা উদ্ধার করা হয়েছে।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সূত্রে  জানা গেছে, গতকাল নাশকতার পরিকল্পনার অভিযোগে সাতক্ষীরায় জামায়াতে ইসলামী থেকে বহিষ্কৃত শ্যামনগর উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল বারীসহ দলটির ৪ জন নেতাকে গ্রেপ্তার করে গোয়েন্দা পুলিশ। তাদের কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ বোমা তৈরির সরঞ্জাম, পেট্রল ও দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করা হয়। আটককৃতদের প্রদত্ত তথ্যের ভিত্তিতে রাজশাহীর পুঠিয়ায় জেলা (পূর্ব) জামায়াতের আমির মকবুল হোসেন (৫৫) ও নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থেকে ১২ জন শিবির ক্যাডারকে আটক করে গোয়েন্দা পুলিশ। এ সময় তাদের কাছ থেকে ২৫ লাখ টাকা ও ৭ শতাধিক পাসপোর্ট জব্দ করা হয়। আটককৃতদের মধ্যে ২ জন ঢাকার ফকিরাপুলের ট্রাভেল এজেন্ট বলে জানিয়েছে গোয়েন্দা পুলিশ।

গোয়েন্দা পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তারকৃতরা জানায়, নির্বাচনের দিন পাবনা, রাজশাহী, সাতক্ষীরা ও নারায়ণগঞ্জে প্রায় ৩শ’ ভোটকেন্দ্রে হামলা করার পরিকল্পনা করা হয়েছিল। সাতক্ষীরা-৪ আসনের ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী জামায়াত নেতা জি. এম. নজরুল ইসলাম এই সহিংসতা সৃষ্টির পরিকল্পনায় সমন্বয়কের ভূমিকা পালন করছেন। নৈরাজ্য সৃষ্টির পরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম বা সংবাদ মাধ্যমে পরিচিতি প্রকাশ হওয়ার আশঙ্কায় তারা দেশত্যাগের প্রস্তুতি গ্রহণ করছিলো।

নির্বাচন বানচালে মূল নাশকতার পরিকল্পনায় কারা জড়িত সে সম্পর্কে আটককৃতদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে বলে জানিয়েছে গোয়েন্দা পুলিশ।

সংবাদমাধ্যমকে ফতুল্লা মডেল থানার সাব ইন্সপেক্টর আশরাফুল ইসলাম বলেন, পাসপোর্টগুলো কাদের তা চিহ্নিত করতে ইতিমধ্যে গোয়েন্দা পুলিশের একটি টিম কাজ শুরু করেছে।

অনুসন্ধানে জানা যায়, বছরের শেষে সাধারণত বিমানের টিকেট সহজলভ্য হয় না। তাই বড় কোনো সিন্ডিকেট ছাড়া বিপুলসংখ্যক মানুষের টিকেট কনফার্ম করা সম্ভব নয়। বিএনপি ও জামায়াতের মালিকানাধীন কয়েকটি ট্রাভেল এজেন্সি এই পরিকল্পনার সঙ্গে জড়িত বলে ধারণা করা হচ্ছে। এছাড়া তারা কোন দেশে যাবে, কীভাবে নির্দিষ্ট সময়ে এত সংখ্যক ভিসা সংগ্রহ করবে তা উদ্ঘাটনে গোয়েন্দা সংস্থাসহ একাধিক কর্তৃপক্ষের সহযোগিতা নেয়ার প্রয়োজন হবে বলে জানা গেছে।
উল্লেখ্য,বিগত দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সহিংসতা সৃষ্টি করে নির্বাচন বানচালের চেষ্টা চালিয়েছিলো যুদ্ধপরাধের দায়ে অভিযুক্ত এই সংগঠনটি।

এই ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে সতর্কতার সঙ্গে তদন্ত পরিচালনা ও বিএনপি জামায়াতের সন্দেহভাজন নেতাদের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা জারির পক্ষে অভিমত ব্যক্ত করেছেন নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞরা।

SHARE