বন্যা পরিস্থিতি মোকাবিলায় সর্ব্বোচ্চ প্রস্তুতির নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

189

||দেশরিভিউ নিউজ ডেস্ক || দেশের বন্যা পরিস্থিতি মোকাবিলায় ব্যাপক প্রস্তুতি নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বন্যা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ ও তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহের জন্য পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ে খোলা হয়েছে নিয়ন্ত্রণ কক্ষ। সার্বিক পরিস্থিতি মোকাবেলায় ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে সরকার।

আজ শুক্রবার (১২ জুলাই) বিকেলে গণমাধ্যমে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

বন্যা-সংক্রান্ত তথ্য প্রদানের জন্য  নিয়ন্ত্রণ কক্ষের (০২৯৫৭০০২৮) নম্বরে ফোন করার অনুরোধ জানিয়ে মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. আবু নাছের জানান, নিয়ন্ত্রণ কক্ষ থেকে সারা দেশে বন্যা সংক্রান্ত তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করা হবে।

 

পানিসম্পদ মন্ত্রণালয় ছাড়াও পানি উন্নয়ন বোর্ডের ‘বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র’ এর টোল ফ্রি ১০৯০ নম্বরে ফোন করার পর ৫ প্রেস করে জানা যাবে বন্যার পূর্বাভাস-সংক্রান্ত তথ্য। নিয়ন্ত্রণ কক্ষ খোলার পাশাপাশি মেডিক্যাল টিম গঠন করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। প্রস্তুত রাখা হয়েছে প্রচুর পরিমাণে পানি বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেট।

 

এদিকে, ভারী বর্ষণের কারণে নদ-নদীর পানি বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়া ১০ জেলায় বন্যা পরিস্থিতির অবনতির আশঙ্কায় ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে সরকার। দুর্গত জেলাগুলোতে পাঠানো হয়েছে সাড়ে ১৭ হাজার মেট্রিকটন চাল এবং ৫০ হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার এবং দুই কোটি ৯৩ লাখ নগদ টাকা। দুই-এক দিনের মধ্যে এসব জেলায় ৫০০টি করে তাঁবু এবং মেডিক্যাল টিম পৌঁছে যাবে বলে জানিয়েছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী এনামুর রহমান।

 

ত্রাণ সচিব শাহ কামাল বলেন, দুর্গত এবং বন্যা হওয়ার সম্ভাব্য জেলাগুলোতেও সমান প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। প্রতিটি জেলায় দুই হাজার প্যাকেট করে মোট ৫০ হাজার প্যাকেট শুকনা খাবার পাঠানো হয়েছে। একটি প্যাকেটে চিড়া, মুড়ি, বিস্কুট, তেল, আটা, মসুরের ডাল, শিশু খাবারসহ একটি পরিবারের সাত দিনের খাবার রয়েছে।

এখন পর্যন্ত দুই কোটি ৯৩ লাখ টাকা এবং দুই দফায় সাড়ে ১৭ হাজার মেট্রিকটন চাল বিভিন্ন জেলায় পাঠানো হয়েছে জানিয়ে শাহ কামাল বলেন, কোনো জেলা প্রশাসক চাহিদা পাঠানোর সঙ্গে সঙ্গে চাল দেওয়া হবে।

 

বন্যা মোকাবেলায় সরকারের প্রস্তুতি বিস্তারিতভাবে তুলে ধরে প্রতিমন্ত্রী এনামুর রহমান বলেন, আশ্রয়কেন্দ্রের পাশাপাশি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো যাতে আশ্রয়কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহার করা যায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে সেই নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। বন্যাকবলিত জনগণকে আশ্রয়কেন্দ্রে সরিয়ে নিতে স্বেচ্ছাসেবকদের প্রস্তুত রাখা হয়েছে। সিভিল সার্জনদের নেতৃত্বে টিম গঠন করা হয়েছে যাতে পানিবাহিত রোগ বিস্তার রোধ করা যায়। বাতিল করা হয়েছে খাদ্যগুদামের কর্মরতদের ছুটি।

 

প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমরা আশা করি এই বন্যায় আমরা মানুষের জীবন রক্ষা পাশাপাশি গবাদিপশু এবং খাদ্যশষ্যেরও নিরাপত্তা দিতে পারব এবং সমন্বিত প্রচেষ্টার মাধ্যমে প্রতিবারের মত বন্যা পরিস্থিতি মোকাবেলায় আমরা সফল হব।

 

 

SHARE