বরিশালে মাংস, ফলমূলের দোকানে অভিযান: ৪ দোকানদারকে জরিমানা

165

।।দেশরিভিউ।।
পবিত্র রমজান উপলক্ষে বরিশালে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্য নিয়ন্ত্রণ ও গুণগত মান এবং বাজার মনিটরিং সংক্রান্ত ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে।

বুধবার (৮ মে) সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের নেতৃত্বে পরিচালিত হয়। এ অভিযানে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) ও পুলিশ সদস্যরা সহায়তা করে। জেলা প্রশাসনের মিডিয়া সেল সূত্রে জানা যায়, নগরের বটতলা বাজারে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জয়দেব চক্রবর্তী এবং পোর্ট রোড এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রুম্পা ঘোষ।

বটতলা বাজারে অভিযান চালিয়ে মেয়াদ উত্তীর্ণ খেজুর, কোমল পানীয় এবং বিভিন্ন খাবার সামগ্রী পাওয়া যায়। এ সময় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইনে আলামিন স্টোরের মালিক জুয়েলকে ৫ হাজার টাকা, আলম স্টোরের মালিক মাসুম বিল্লাহকে ১০ হাজার টাকা ও নিউ আলাম স্টোরের মালিক নজরুল ইসলামকে ২৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এদিকে পোর্ট রোড এলাকার একটি দোকানে নোংরা পরিবেশে মাংস বিক্রি করার অপরাধে বিক্রেতা আলমগীরকে ২ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।
পণ্যের সঠিক মূল্য তালিকা ও খাবারের গুণগত মান বজায় রাখার পাশাপাশি অস্বাস্থ্যকর নোংরা পরিবেশ ও খাবারের নিম্নমান, পোড়া তেলের ব্যবহার এবং ফ্রিজে সংরক্ষিত পুরনো মাছ মাংসসহ খাদ্য প্রস্তুতকরণে বিষয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত তদারকি করছে, পাশাপাশি ব্যবসায়ী এবং ক্রেতাদের এসব বিষয়ে সচেতন করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জয়দেব।
প্রশাসনসহ বিভিন্ন সংস্থার তদারকির পরও এক সপ্তাহের ব্যবধানে নিত্যপ্রয়োজনী কিছু পণ্যের বাজার দর বেড়েছে।
সরেজমিনে নগরের বাজার ঘুরে দেখা যায় রসুন, আদা, ডাল, আলু, মাছ, গরুর মাংস এবং শসা, টমেটোসহ বেশ কিছু সবজির দাম বেড়েছে। এছাড়া গত এক সপ্তাহের ব্যবধানে বিভিন্ন মাছের দাম বেড়েছে। এর মধ্যে চিংড়ি ও ইলিশ মাছের দাম কেজিতে ২০০ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে, আর অন্যান্য মাছ কেজিতে ৫০ থেকে ১০০ টাকা বেড়েছে।
ব্যবসায়ীদের দাবি আমদানি কম থাকায় এবং চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় নিত্যপণ্যে দাম বেড়েছে। তবে বাজারে পণ্যের দাম সহনশীল রাখতে কাজ করছে বলে জানিয়েছে জেলা প্রশাসন।
এদিকে রমজান মাস উপলক্ষে বরিশাল নগরে ফল-মূল ফরমালিনের উপস্থিতি নির্ণয়ে সার্ভিল্যান্স অভিযান পরিচালনা করছে বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড টেস্টিং ইনস্টিটিটিউশনের (বিএসটিআই) বরিশাল বিভাগীয় কার্যালয়।
বিএসটিআইর সহকারী পরিচালক (পদার্থ) প্রকৌশলী আব্দুস সবুর বাংলানিউজকে জানান, এখন পর্যন্ত নগরের ফল পট্টি ও নতুন বাজার এলাকার ১৩টি ফলের দোকানে অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। ১৩টি ফলের দোকানের মধ্যে নগরের ফলপট্টি এলাকার মেসার্স আলিজা আমরিন নামে একটি ফলের দোকানের আমে ফরমালিনের উপস্থিতি পাওয়া যায়। পরে এ প্রতিষ্ঠানের পাঁচ কেজি আম জনসম্মুখে ধ্বংস করা হয়।
তবে নগরে অন্যান্য ফলের দোকানে আপেল, আঙ্গুর, মাল্টা, আম, নাশপাতি, পেয়ারা, কমলা, চায়নিজ কমলাসহ বিভিন্ন ফল পরীক্ষা করে কোনো ফরমালিন পাওয়া যায়নি বলেও জানান সহকারী পরিচালক (পদার্থ) সবুর।

SHARE