বাঁশেরকেল্লার অপপ্রচার: সম্মানহানির বিচার চাইলেন ফারহান জাওয়াদ

    487


    ।।দেশরিভিউ, মোর্শেদ ইব্রাহিম।।
    জামায়াত শিবিরের বহুল বিতর্কিত ও সমালোচিত ফেসবুক পেইজ ‘বাঁশেরকেল্লা’ থেকে আবারো গুজব রটানোর অভিযোগ উঠেছে। ঘটনার সাথে জড়িত ছিলো না, এমনকি  বিগত ৫ দিন সেন্টমার্টিনে অবস্থান করা এক ছাত্রলীগ নেতাকে খুনি হিসাবে উল্লেখ করে এই পেইজ থেকে নাম ও ছবি ভাইরাল করার অভিযোগ উঠেছে।

    গতকাল সোমবার বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) তড়িৎকৌশল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ডের পর ‘বাঁশেরকেল্লা’ নামক বিতর্কিত ফেসবুক পেইজটি থেকে ১১জন ছাত্রলীগ নেতার নাম ও ছবি দিয়ে একটি পোষ্টার প্রকাশ করা হয়।

    ‘আবরারের খুনি ছাত্রলীগ নেতাদের ফাঁসি চাই’ শিরোনামের ঐ পোষ্টারটি ফেসবুকে আপলোড করার সময় ক্যাপশনে লিখা হয়, আবরার ফাহাদের খুনিদের তালিকা; যেখানে ১১ জন ছাত্রলীগ নেতার নাম ক্রমান্বয়ে লিখা হয়।

    জানা গেছে, বাঁশেরকেল্লার এই পোষ্টারটি প্রকাশের পর শিবিরের অনলাইন উয়িংয়ের নেতাকর্মীরা তা দ্রুত ফেসবুকে ছড়িয়ে দেয়। পাশাপাশি দেশের বাইরে থেকে পরিচালিত জামায়াতের কিছু অনলাইন নিউজ পোর্টাল পোষ্টারটি দিয়ে সংবাদ পরিবেশন করে।

    এদিকে পুলিশ বলছে, বাঁশেরকেল্লা সেই পোষ্টারে ১১জন ছাত্রলীগ নেতার নাম ও ছবি থাকলেও তাদের সবাই এ খুনে জড়িত ছিলো না। এরমধ্যে যে কয়েকজন জড়িত ছিলো তাদের সবাইকে আগেই আটক করেছে পুলিশ।

    জামায়াত শিবিরের ফেসবুক পেইজ বাঁশেরকেল্লার সেই পোষ্টারে ‘খুনিদের তালিকায়’ ১০ নম্বরে উল্লেখ করা হয়েছে বুয়েট ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক ফারহান জাওয়াদের নাম।কিন্তু বিগত ৩ অক্টোবর রাত থেকে ফারহান জাওয়াদ সেন্ট মার্টিনে অবস্থান করছেন বলে জানিয়েছেন। এ বিষয়ে মঙ্গলবার রাতে নিজের ফেসবুকে একটি পোষ্ট করেন ফরহান জাওয়াদ। ফরহান জাওয়াদের সেই ফেসবুক স্ট্যাটাস হুবুহু তুলে ধরে হলো।

    বাঁশেরকেল্লা পোষ্টার (বামে) ফারহান জাওয়াদের স্ট্যাটাস (ডানে)

    “এই ছবিটা ভাইরাল হওয়ার পর থেকে অনেকেই দেখলাম আমার নামে বেশ কিছু কথা বলছে, এই ছবিটার রেশ ধরে আমার ফ্যামিলিকে হ্যারাজ করা হচ্ছে, আমার পার্সোনাল লাইফেও অনেক অসুবিধার শিকার হতে হচ্ছে, যেখানে ঘটনার সাথে কোনও ইনভলভমেন্টই আমার নাই।
    গত ৩ তারিখ রাত ১১ টায় আমি ঢাকা থেকে সেন্ট মার্টিনের উদ্দেশ্যে রওনা দেই, এখনও সেন্ট মার্টিনেই আছি আমি। যেখানে হলে সে সময় আমি উপস্থিতই ছিলাম না।
    হলের সিসিটিভি ক্যামেরার কোথাও ৩ তারিখ সন্ধ্যার পর আমাকে দেখা যায়নি, তদন্ত রিপোর্টের কোথাও আমার নাম নাই সেখানে কেন আমার নামে এমন কথা ছড়ানো হচ্ছে? আমার পার্সোনাল লাইফে যে এত হ্যারাজমেন্টের শিকার হতে হচ্ছে, এত গালি খেতে হচ্ছে এর দায়ভার কে নেবে? একমাত্র ছাত্রলীগ করি বলে আমি দোষী? আবরার আমার হলের জুনিওর, আমার ডিপার্টমেন্টের জুনিওর, তার হত্যার বিচার আমি নিজেও চাই। কিন্তু একজন নির্দোষ কে কেন এসব সইতে হবে? যেখানে আমি নিজেই ঘটনা জেনেছি আজকে দুপুরে আমার দোষ কি?
    আপনারা যারা এসব ছবি শেয়ার দিচ্ছেন বা এসব পোস্ট করছেন তাদের সবার কাছে আমার রিকুয়েস্ট, আপনারা ভালোভাবে জানুন ঘটনা, এরপর আমার দোষ থাকলে আপনারা আমাকে দোষী সাব্যস্ত করুন।”

    SHARE