বাংলাদেশের অর্থনীতিতে বড় ধরনের জাগরণ চলছে: অমর্ত্য সেন

134

।।দেশরিভিউ, সংবাদ।।

নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেন বলেছেন, বাংলাদেশের অর্থনীতিতে বড় ধরনের জাগরণ চলছে। এদেশের মানুষ অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে ব্যাপকভাবে সংযুক্ত। কর্মসংস্থান ও যোগাযোগ অবকাঠামোতে ব্যাপক পরিবর্তন হয়েছে। এই উন্নয়ন ভারত কিংবা পাকিস্তানসহ প্রতিবেশী অন্য কোনো দেশে হয়নি। এমনকি বাংলাদেশ যতদিন পাকিস্তানের অধীন ছিল, ততদিন এ দেশে এ রকম উন্নয়ন ছিল না।

অবকাঠামো উন্নয়নের উদাহরণ দিয়ে ভারতীয় এ অর্থনীতিবিদ ও দার্শনিক বলেন, ঢাকার মানিকগঞ্জের তার বাবার বাড়ি থেকে বিক্রমপুরে মামার বাড়ি যেতে দুই দিন সময়ের প্রয়োজন হতো। এখন দুই ঘণ্টাও লাগে না।

গতকাল সোমবার ঢাকায় ‘সমৃদ্ধ ও ন্যায্য সমাজের সন্ধানে অমর্ত্য সেন’ বিষয়ক আলোচনায় এসব কথা বলেছেন অমর্ত্য সেন। স্কাইপি সংযোগের মাধ্যমে ভারত থেকে আলোচনায় অংশ নেন তিনি।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকার কথা থাকলেও বিশ্বব্যাপী করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের পরিপ্রেক্ষিতে স্বাস্থ্য সতর্কতার কারণে তিনি আসেননি।

এ জন্য একাধিকবার দুঃখ প্রকাশ করে অমর্ত্য সেন বলেন, ‘বাংলাদেশ আমার খুবই প্রিয় দেশ। এবার আসতে না পেরে আমি দুঃখিত। আমি বাংলাদেশে অবশ্যই আসব। এ বিষয়ে আলোচনা করব। সম্ভব হলে আগামী সেপ্টেম্বরেই ঢাকায় আসব আমি।’

স্কাইপি সংযোগে দুর্বল ফ্রিকোয়েন্সির কারণে ঢাকার প্রান্তের সঙ্গে কথা বলতে প্রায়ই সমস্যা হচ্ছিল। সংযোগে সুস্পষ্ট কথা শোনা গেলে আবেগে আনন্দ প্রকাশ করতে দেখা গেছে তাকে। এ সময় তিনি বলেন, ‘ক্যান্সারের বিরুদ্ধেও যুদ্ধে জিতব।’

এ অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে অমর্ত্য সেনের জীবন ও কর্মের ওপর বছরব্যাপী বাংলা ভাষায় অমর্ত্য সেন পাঠচক্রের উদ্বোধন করা হলো। বাঙলার পাঠশালা এর আয়োজক। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট ভবনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন অর্থনীতিবিদ ও বেসরকারি গবেষণা সংস্থা সিপিডির চেয়ারম্যান অধ্যাপক রেহমান সোবহান।

অনুষ্ঠানের মূল বক্তা ছিলেন অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক ওয়াহিদউদ্দিন মাহমুদ। আরও বক্তব্য দেন প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিক উপদেষ্টা ড. মসিউর রহমান, সাবেক অর্থমন্ত্রী এম সাইদুজ্জামান এবং অমর্ত্য সেন পাঠচক্রের আহ্বায়ক অধ্যাপক সিদ্দিকুর রহমান ওসমানী। সভা সঞ্চালনা করেন বাঙলার পাঠশালা ফাউন্ডেশনের সভাপতি আহমেদ জাভেদ।

বাংলাদেশের উন্নয়নের পেছনে সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা এনজিওর অবদানের কথা বলেন অধ্যাপক অমর্ত্য সেন। ব্র্যাক, গ্রামীণ ব্যাংক ও গণস্বাস্থ্যের কথা বিশেষভাবে উল্লেখ করেন তিনি। ব্র্যাকের প্রতিষ্ঠাতা স্যার ফজলে হাসান আবেদের প্রসঙ্গ এনে তিনি বলেন, ‘আবেদ চলে গেছেন। ৭৮ সাল থেকে তার মধ্যে জবাবদিহি ও কর্তব্যবোধ দেখেছি।’

অমর্ত্য সেন আরও বলেন, স্বাধীনতা সংগ্রামের পর এনজিওগুলো নারী উন্নয়নে কাজ করেছে। তাদের কর্মসূচির ফলেই সাধারণ মানুষের মধ্যে যোগাযোগ বেড়েছে। তবে এসব বিষয়ে আরও চিন্তার প্রয়োজন রয়েছে। বিশেষ করে জবাবদিহি ও কর্তব্যবোধের বিষয়গুলো গুরুত্বপূর্ণ। অর্থনীতির আলোচনায় এ বিষয় খুব একটা নেই। ইংল্যান্ডের মতো নিয়ম মেনে চলা, জবাবদিহি এবং কর্তব্যবোধ অন্য কোনো দেশে হবে না- তা মেনে নিয়ে বলা যায়, বাংলাদেশে এটা খুব সামান্যই দেখা যায়, যা কষ্টদায়ক। এক সময় এ দেশে কীভাবে অন্যকে সাহায্য করতে হয়, সেই সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ছিল।

SHARE