বাংলাদেশের রফতানি বাড়বে যুক্তরাষ্ট্রে

206


।।দেশরিভিউ।।
তৈরি পোশাকের একক প্রধান বাজার যুক্তরাষ্ট্রে রফতানি বাড়ানোর নতুন সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে প্রবেশের ক্ষেত্রে চীনের পোশাকে নতুন করে বাড়তি ১৫ শতাংশ শুল্ক্কারোপের ঘোষণার পর সে দেশে বাংলাদেশের রফতানি আরও বৃদ্ধির সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। প্রধান প্রতিযোগী দেশের সক্ষমতা কিছুটা কমে আসার সুবিধা পাবে বাংলাদেশ। রফতানিকারক উদ্যোক্তা এবং বাণিজ্য বিশ্নেষকরা মনে করেন, ট্রাম্প প্রশাসনের ওই সিদ্ধান্তর ফলে মার্কিন এবং চীনা ক্রেতা প্রতিষ্ঠানগুলোর বাংলাদেশে বিনিয়োগও বাড়তে পারে।

প্রায় এক বছর আগে চীন-মার্কিন শুল্ক্ক লড়াই শুরুর পর থেকেই বাংলাদেশের রফতানি খাত কিছুটা সুবিধা পাচ্ছে। গত বছরের জুলাই মাসে ২০ হাজার কোটি ডলার মূল্যমানের চীনা পণ্যে ১০ শতাংশ হারে অতিরিক্ত শুল্ক্কারোপ করে ট্রাম্প প্রশাসন। যদিও সে ঘোষণায় পোশাক পণ্য অন্তর্ভুক্ত ছিল না। তবে পর্যায়ক্রমে পোশাকসহ ৫০ হাজার কোটি ডলার মূল্যের পণ্যের ওপর শুল্ক্কারোপের হুমকি দেওয়া হয় তখন। ওই পরিস্থিতির পরপরই মার্কিন ক্রেতারা বাংলাদেশের পোশাকপণ্যের প্রতি নতুন করে মনোযোগ বাড়ায়। এর ফলে দেশটিতে রফতানিতে গতি আসে। চলতি অর্থবছরের গত জুলাই থেকে মার্চ পর্যন্ত সময়ে যুক্তরাষ্ট্রে পোশাক রফতানি বেড়েছে আগের একই সময়ের তুলনায় ১৭ শতাংশের বেশি। গত অর্থবছরের একই সময়ে বৃদ্ধির এ হার ছিল মাত্র ২ দশমিক ৩৮ শতাংশ।

গত শুক্রবার নতুন করে ২০ হাজার কোটি ডলার মূল্যের চীনাপণ্যে ২৫ শতাংশ হারে শুল্ক্কারোপের ঘোষণা দেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এতে তৈরি পোশাক অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। চীনের এসব পণ্যে ১০ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ২৫ শতাংশ হারে শুল্ক্কারোপ হবে। চীনের পোশাকের তুলনায় অন্তত ১০ শতাংশ শুল্ক্ক কম থাকবে বাংলাদেশের পোশাকের।

বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রে রফতানিতে বাংলাদেশের পোশাকের ওপর পণ্য ভেদে সাড়ে ৮ থেকে ৩৫ শতাংশ পর্যন্ত শুল্ক্কারোপ রয়েছে। গড়ে এই হার ১৬ শতাংশ। বিজিএমইর এক প্রতিবেদনে দেখানো হয়, চীন, ভিয়েতনামসহ অন্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশ থেকে রফতানি হওয়া পণ্যে বেশি হারে শুল্ক্ক ছিল।

উদ্যোক্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, চীনা পণ্যে যুক্তরাষ্ট্রের অতিরিক্ত শুল্ক্কারোপের ফলে রফতানি আদেশ বাড়তে শুরু করেছে। তবে দরের বিষয়ে এখনও কৃপণ মার্কিন ক্রেতারা। তারা জানান, উচ্চ মূল্যের পোশাকের ক্ষেত্রে দরদামের বিষয়টি খুব গুরুত্বপূর্ণ না হলেও মৌলিক পণ্যের ক্ষেত্রে বিষয়টি একেবারেই ভিন্ন। এ ধরনের পণ্যে দুই-এক সেন্টের ব্যবধানেরও প্রভাব থাকে বাজারে। জানতে চাইলে বিজিএমইএর সহসভাপতি এসএম মান্নান কচি সমকালকে বলেন, চীন-মার্কিন শুল্ক্ক লড়াই থেকে লাভবান হওয়ার সুযোগ এখন বাংলাদেশের। কারণ, বর্ধিত শুল্ক্কে মার্কিন ক্রেতারা চীনের প্রতি আগ্রহ হারাবেন। খুব স্বাভাবিকভাবেই ওইসব ক্রেতা বাংলাদেশেই বেশি আসবেন। বাংলাদেশের জন্য এটি অবশ্যই বড় সুযোগ। তিনি বলেন, মার্কিন ক্রেতারা ছাড়া চীনা উদ্যোক্তারাও যুক্তরাষ্ট্রে রফতানিতে অতিরিক্ত শুল্ক্ক থেকে রেহাই পেতে বাংলাদেশ থেকে উৎপাদনের চিন্তা করছেন। ফলে বিনিয়োগের ক্ষেত্রেও একটা ইতিবাচক সাড়া পড়বে।

উদ্যোক্তাদের এই বক্তব্যের সঙ্গে পুরোপুরি একমত নন বেসরকারি গবেষণা সংস্থা সাউথ এশিয়ান নেটওয়ার্ক অন ইকোনমিক মডেলিংয়ের (সানেম) নির্বাহী পরিচালক ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ড. সেলিম রায়হান। তিনি বলেন, চীন-মার্কিন শুল্ক্ক লড়াইয়ে আপাতত একটা সুবিধা পাবে বাংলাদেশ। তবে বাংলাদেশের রফতানি পণ্যের সঙ্গে চীনা রফতানি পণ্যের সামঞ্জস্য কম। বাংলাদেশ এখনও মৌলিক মানের পোশাক বেশি রফতানি করে। অন্যদিকে চীন আগে থেকেই এ মানের পণ্য থেকে আস্তে আস্তে বেরিয়ে আসার চেষ্টা করছে। দু’দেশের পণ্যে এখনও যতটুকু মিল আছে সেখানে বাংলাদেশ সুবিধা পাবে। তিনি বলেন, মনে রাখতে হবে, এই সুবিধা ভিয়েতনাম, কম্বোডিয়াসহ অন্যান্য প্রতিযোগী দেশের জন্যও উন্মুক্ত। তবে দুই অর্থনৈতিক পরাশক্তির শুল্ক্কযুদ্ধ দীর্ঘমেয়াদে গড়ালে বিশ্ব অর্থনীতিতে নেতিবাচক যে প্রভাব পড়বে বাংলাদেশ তার বাইরে থাকবে না।

পোশাক বাণিজ্যের শুরু থেকেই যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশের প্রধান গন্তব্য। মোট পোশাক রফতানির ১৭ শতাংশের মতো যায় সে দেশে। গত অর্থবছরে যুক্তরাষ্ট্রে ৫৩৫ কোটি ডলারের পোশাক রফতানি হয়েছে। চলতি অর্থবছরের জুলাই- মার্চ পর্যন্ত

৯ মাসেই রফতানি হয়েছে ৫৬০ কোটি ডলারের পোশাক।


SHARE