বাংলাদেশ টিমের জন্য প্রেসিডেন্সিয়াল সিকিউরিটি: ক্রিকেটের আমেজে ভাটা

104


।।দেশরিভিউ সংবাদ।।
দেখে মনে হবে যুদ্ধের থমথমে পরিস্থিতি। যে কোন মূহুর্তে শত্রুর আক্রমন হতে পারে! আবার সে আক্রমন ঠেকাতে সবাই প্রস্তুত প্রতিটি মূহুর্তে। পাকিস্তান সফররত বাংলাদেশ
ক্রিকেট টিমের সুরক্ষায় প্রেসিডেন্সিয়াল সিকিউরিটির চাদরে ঢেকে ফেলা হয়েছে পাকিস্তানের পুরো লাহোরকে। যুদ্ধের পুরো প্রস্তুতির আদলে প্রেসিডেন্সিয়াল সিকিউরিটি ক্রিকেটের আমেজকে অনেকেটা ম্লান করে দিয়েছে। পাকিস্তানের সর্বোচ্চ সতর্কবস্থায় প্রমান করছে দেশটি কতটা জঙ্গী ও সন্ত্রাসী ঝুকির মধ্যে রয়েছে।

অনেক বিদেশি সাংবাদিক এরমধ্যেই মন্তব্য করেছেন, উপমহাদেশের অন্যতম পরমানু শক্তিধর দেশ পাকিস্তান কি আসলেই সন্ত্রাস নির্মূলে অকার্যকর রাষ্ট্রের দারপ্রান্তে? অন্যতায় কেন এত শংকা সংকট?

জানা গেছে প্রেসিডেন্সিয়াল সিকিউরিটির আওতায় ইতোমধ্যে ১৭টি সুপার পুলিশ ডিভিশন এবং ৪৮টি ডেপুটি সুপার পুলিশ ডিভিশন নিরাপত্তায় নিয়োজিত করা হয়েছে।বাংলাদেশে ক্রিকেটারদের পাশাপাশি পাকিস্তানের ক্রিকেটারদেরকেও একই ধরণের নিরাপত্তা দেয়া হচ্ছে।

এত কঠোর নিরাপত্তায় স্টেডিয়ামে জঙ্গি হামলা হওয়ার সম্ভাবনা নেই বললেই চলে। তবে স্টেডিয়ামের নিরাপত্তার চেয়ে ক্রিকেটারদের হোটেল থেকে স্টেডিয়ামে আসা যাওয়ার পথের নিরাপত্তা পাকিস্হানে সবচেয়ে বড় ইস্যু ।যেমনটা হয়েছিল শ্রীলঙ্কার ক্রিকেট দলের টিম বাসে যে হামলা হয়েছিল, তা ঘটেছিল হোটেল থেকে ক্রিকেটাররা স্টেডিয়াম যাওয়ার পথে।তাই ক্রিকেট টিম দুটি যেসব পথ দিয়ে আসা যাওয়া করবে, সেসব জায়গায় বাড়তি নিরাপত্তার ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে ইতোমধ্যে।ওই এলাকাগুলোর বিভিন্ন ছাদে পাকিস্হানের সুপ্রশিক্ষিত স্নাইপারদের ডেপ্লয় করা হয়েছে। পুরো আসা যাওয়ার পথ স্নাইপারদের নজরে রাখার জন্য বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে বেশ কয়েকজন স্নাইপার কড়া দৃষ্টি রাখছে। এছাড়া মোতায়েন থাকবে Dolphin squad, SSG কমান্ডো এবং পুলিশের রেসপন্স টিম”।

এছাড়া টিম বাংলাদেশের সাথে রয়েছে DGFI এর সুপ্রশিক্ষিত কর্মকর্তারা। তারা যেকোন মুহুর্তে ক্রিকেটারদের রক্ষায় সচেষ্ট থাকবে। সর্বমোট ৩০-৩৫টি গাড়ি বহরের কড়া নিরাপত্তায় হোটেল থেকে স্টেডিয়ামে যাওয়া আসা করবে দুদেশের ক্রিকেটাররা। যদি কোন কারণে সন্ত্রাসী হামলা হয়েও থাকে তাহলে সন্ত্রাসীরা যাতে বুঝতে না পারে সেজন্য ক্রিকেটারদের বহনকারী বাসের মত দেখতে আরো বেশ কয়েকটি বাস এই বহরে থাকবে।এতে চলাচলের পথে কেউ জানতে পারবেনা ঠিক কোন গাড়িতে ক্রিকেটাররা রয়েছেন।

SHARE