বাবা মা পুত্র ও কন্যাসহ একই পরিবারের ৪ জনকে জবাই

135

জেলা প্রতিনিধি, সাতক্ষীরা:

সাতক্ষীরায় বাবা মা পুত্র ও কন্যাসহ একই পরিবারের ৪ জনকে জবাই করে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। জেলার কলারোয়া উপজেলার হেলাতলা ইউনিয়নের খলিসা গ্রামে এই নির্মম হত্যাকা- ঘটে বুধবার শেষ রাতের কোন এক সময়ে। হত্যার আগে হত্যাকারীরা শাহিনুরের পা বেঁধে রেখে যায়। নিহতরা হলেন খলসি গ্রামের শাহাজান আলীর ছেলে হ্যাচারি মালিক মোঃ শাহীনুর রহমান (৪০), তার স্ত্রী সাবিনা খাতুন (৩০), ছেলে সিয়াম হোসেন মাহী (৯) ও মেয়ে তাসমিন সুলতানা (৬)। হত্যাকারীরা ওই পরিবারের ৪ মাসের শিশু মারিয়াকে হত্যা না করে ফেলে রেখে যায়।

স্থানীয়রা জানান, ভোরে তারা ওই বাড়ির চিৎকার চেঁচামেচি শুনে ছুটে যান। পরে দরজা খুলে দেখতে পান সাবিনা খাতুন ও তার দুই শিশু তাসনিম ও মাহী একঘরে এবং আরেক ঘরে শাহীনুরের জবাই করা লাশ। একই পরিবারে থাকা শাহীনুরের ছোটভাই রায়হানুল ইসলাম জানান, তিনি গোঙ্গানির শব্দ শুনে ছুটে যান। পরে সবাইকে খবর দেন। তিনি জানান, হত্যাকারীরা সিঁড়ির ঘর দিয়ে ঢুকে তাদের খুন করে দরজায় শিকল দিয়ে চলে যায়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। সেখানে পুলিশের ক্রাইম সেকশন কাজ করছে বলে সংবাদকর্মী ও অন্য কাউকে ঢুকতে দেয়া হয়নি।
রায়হানুল ইসলাম জানান, তার বড়ভাই শাহীনুর ইসলাম নিজস্ব ৭-৮ বিঘা জমিতে পাঙ্গাস মাছ চাষ করতেন। গত ২২ বছর ধরে তাদের পারিবারিক সাড়ে ১৬ শতক জমি নিয়ে নিকট প্রতিবেশী ওয়াজেদ কারিগরের ছেলে আকবরের সঙ্গে মামলা চলছিল। এই মামলা ও পারিবারিক বিরোধের জের ধরে এই হত্যাকা- ঘটে থাকতে পারে বলে তিনি সন্দেহ করছেন। পরিবারের স্বজনরা জানান, শাহীনুরের বাবা ডাঃ শাজাহান আলী কলারোয়ার দামোদরকাটি গ্রামের নূর আলীর ছেলে জনৈক আকবর হোসেনের কাছ থেকে ৩৪ শতক জমি ক্রয় করেন। এই জমির ক্রেতা ছিলেন ডাঃ শাজাহান ও তার প্রতিবেশী ওয়াজেদ আলীর ছেলে আকবর। এদিকে, একই পরিবারের ৪ জনকে হত্যার ঘটনায় পরিবারের স্বজনদের মাঝে চলছে শোকের মাতম। উপজেলাব্যাপী নেমে এসেছে শোকের ছায়া। ঘটনাস্থলে এসে জানা গেছে, জীবিত থাকা একমাত্র শিশুকন্যা মারিয়া সুলতানাকে (৪ মাস) স্থানীয় ইউপি সদস্য নাসিমা খাতুন নিয়ে যান। পরে তিনি তাকে আত্মীয়দের কাছে হস্তান্তর করেন।

কলারোয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (চলতি দায়িত্বে) হারান চন্দ্র পাল জানান, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমানসহ সকলেই ঘটনাস্থলে পরিদর্শন করেছেন। হত্যার কোন মোটিভ জানা যায়নি। ঘটনাস্থলে সিআইডি, গোয়েন্দা পুলিশ, ডিএসবি, র‌্যাব এবং অন্য গোয়েন্দা বিভাগের কর্মকর্তারা ঘটনাটি খতিয়ে দেখছেন। সাতক্ষীরা-যশোর সড়কের ধারেই অবস্থিত এই বাড়িতে এখন শত শত লোক ভিড় করছেন।
পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, নিহত শাহীনুরের মা শাহিদা খাতুন(৬০) আত্মীয়ের বাড়িতে ছিলেন। শাহীনুরদের তিন ভাইয়ের একভাই আশরাফুল মালয়েশিয়া থাকেন। তাদের বোন আছিয়া খাতুন বুক চাপড়ে আহাজারি করছেন। তিনি বলছেন, আমার মা ও আরেকটা ভাই এখানে থাকলে তাদেরও খুন করত সন্ত্রাসীরা।

বেঁচে আছে শুধু চার মাসের মারিয়া ॥ হয়তো মধ্যরাত বা শেষ রাতের কোন এক সময়ে ৪ মাসের শিশু মারিয়া শেষ বারের মতো মায়ের বুকের দুধপান করে নিশ্চিন্তে ঘুমিয়ে ছিল। কিন্তু মারিয়া জানেনা গত রাতই ছিল তার মায়ের সঙ্গে কাটানো শেষ রাত। বাবা, মা ভাই বোনের আদর ¯েœহ থেকে সন্ত্রাসীরা তাকে চিরদিনের জন্য বঞ্চিত করেছে। ফুটফুটে নিষ্পাপ এই শিশুটির মুখের দিকে তাকিয়ে হয়তো হত্যাকারীদের মনে দয়া হয়েছিল।

বাবা মা ভাই বোনহারা জীবিত থাকা শিশুকন্যা মারিয়া সুলতানাকে (৪ মাস) রক্তাক্ত মায়ের নিথর বুক থেকে উদ্ধার করে স্থানীয় ইউপি সদস্য নাসিমা খাতুন নিয়ে যান। পরে তিনি তাকে আত্মীয়দের কাছে হস্তান্তর করেন। শত শত মানুষের বুকফাটা কান্না আর প্রচ- শব্দের মধ্যেও শিশু মারিয়া নিশ্চিন্তে ঘুমিয়ে আছে স্বজনদের কাঁধে। এ দৃশ্য এলাকার মানুষের চোখের পানি ধরে রাখতে পারিনি।

SHARE