বিএনপির মনোনয়ন পরিবর্তনের আভাস; রোববার সকালে বঞ্চিতদের সাথে হাইকমান্ডের বৈঠক

183

চলমান পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে কয়েকটি স্থানে মনোনয়ন পরিবর্তনের আভাস দিলো বিএনপির হাইকমান্ড। এজন্য রোববার সকাল ৯ টায় মনোনয়ন বঞ্চিতদের সাথে গুলশানে অবস্থিত দলীয় চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক কার্যালয়ে বৈঠকে বসবে বিএনপির শীর্ষস্থানীয় নেতৃত্ত্ব।

সুত্র জানায় বিএনপির মনোনয়ন না পেয়ে দলটির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক কার্যালয়ে তীব্র বিক্ষোভ করছে মনোনয়ন বঞ্চিতদের সমর্থকরা। শনিবার (৮ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় তারা বিএনপি হাইকমান্ডের কাছে সিদ্ধান্ত বদলের দাবিতে এই বিক্ষোভ শুরু করে। এ সময় দলীয় চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে ঢিল ছোড়াসহ ভাঙচুর করে তারা। রিপোর্টি লেখা পর্যন্ত বিক্ষোভ অব্যাহত ছিল।

এদিকে বিক্ষোভের বিষয়টি গুরুত্ত্ব সহকারে নিয়েছে দলটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। এবিষয়ে সন্ধ্যা থেকেই দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সাথে একাধিকবার ফোনে কথা বলেন তিনি। যদিপ মির্জা ফখরুল সরাসরি এনিয়ে কথা না বলেননি। তবে দলটির স্থায়ী কমিটির প্রভাবশালী এক সদস্য দেশরিভিউকে জানান মুলত তারেক রহমানের নির্দেশে আগামীকাল বঞ্চিতদের সাথে বৈঠকে ডেকেছে মহাসচিব। বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনায় কয়েকটি স্থানে মনোনয়ন পরিবর্তনের সম্ভাবনার কথাও বলেন তিনি।

বিএনপির এক যুগ্ম-মহাসচিব দেশরিভিউকে জানান কয়েকটি স্থানে আমাদের মনোনয়ন প্রদানে ভুল সিদ্ধান্ত ছিল। আমাদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আন্দোলনকে ইতিবাচকভাবেই নিয়ে তৃণমূলের মতামতকে প্রাধান্য দেবার জন্য মহাসচিবকে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দিয়েছেন। আশাকরছি রোববার (আগামীকাল) সকালে সব সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে। কয়টি আসনে মনোনয়ন পরিবর্তন হতে পারে এমন প্রশ্ন করা হলে তিনি জানান যেগুলোতে ত্যাগিদের মুল্যায়ন করা হয়নি মূলত সেই আসনগিলোতেই পরিবর্তন হবে। এর বেশি কিছু জানাতে অপারগতা প্রকাশ করেন তিনি।

উল্লেখ্য মনোনয়ন না পেয়ে বিক্ষোভকারীদের মধ্যে রয়েছেন চাঁদপুর-১ আসনের এহসানুল হক মিলন (সাবেক সংসদ সদস্য ও বিএনপি সরকারের শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী), মানিকগঞ্জ-১ আসনে মনোনয়ন বঞ্চিত খোন্দকার দেলোয়ার হোসেনের ছেলে খন্দকার আব্দুল হামিদ ডাবলু, কুমিল্লা-৪ আসনের ইঞ্জিনিয়ার মঞ্জুরুল আহসান মঞ্জু ও গোপালগঞ্জ-১ আসনের মনোনয়ন প্রত্যাশী সেলিমুজ্জামান সেলিমের সমর্থকরা।

বিক্ষোভকালীন সময় মনোনয়ন বঞ্চিতরা ঢিল ছুড়লে ভেঙে যায় বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ের কাঁচ।

সুত্র জানায় চাঁদপুর-১ (কচুয়া) আসনে এহসানুল হক মিলনের বদলে দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মোশাররফ হোসেন। কিন্তু এ খবরে বিক্ষুব্ধ হয়েছেন এহসানুল হক মিলনের সমর্থকরা। তাদের দাবি, মোশাররফ কেন্দ্রে পরিচিত হলেও এলাকায় তাকে কেউ চেনেন না। এ দাবি করে কচুয়া আসনে প্রার্থী বদলে মিলনকে প্রার্থীর দাবিতে আজ শনিবার ( ৮ ডিসেম্বর) দুপুরে প্রথমে নয়াপল্টনের দলীয় কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে তালা লাগিয়ে সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদের কাছে প্রার্থী বদলের জন্য ১২ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দেয় তারা। রিজভী আশ্বস্ত করলে তারা সেখান থেকে দলীয় চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ের উদ্দেশে রওনা দেয়। বিকাল ৫টার দিকে এহসানুল হক মিলনের সমর্থকদের পাশাপাশি মনোনয়ন বঞ্চিত অপর নেতাদের সমর্থকরাও সেখানে বিক্ষোভ শুরু করে। সন্ধ্যা ৬টার দিকে কার্যালয়ে দেয়াল টপকে অনেকে ভেতরে প্রবেশ করার চেষ্টা করে এবং বাইরে থেকে কার্যালয় লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছুড়ে মারে। এ সময় ইন্ডিপেন্ডেন্ট টিভির ক্যামেরাপারসন শাহ আলম ইটের আঘাতে আহত হন।

গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ের সামনে দলীয় মনোনয়ন বঞ্চিতদের সমর্থকদের বিক্ষোভ নিয়ে বিএনপি চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইং সদস্য শামসুদ্দিন দিদার দেশরিভিউকে বলেন, বিক্ষোভের ঘটনায়, বিশেষ করে ভাঙচুরের ঘটনায় অনুপ্রবেশকারীরা জড়িত বলে সন্দেহ করছি। বড় একটি রাজনৈতিক দলে মনোনয়ন পাওয়া না পাওয়ার ক্ষোভ থাকাটা স্বাভাবিক। আশা করি এই ক্ষোভ কেটে যাবে। আগামীকালের বৈঠকে কয়েকটি আসনের মনোনয়ন পরিবর্তন করা হবে বলেও তিনি জানান।

এদিকে, দলীয় প্রার্থীর বদলে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী দেওয়ার খবরে ক্ষুব্ধ কুমিল্লা-৪ আসনের মনোনয়ন প্রত্যাশী ইঞ্জিনিয়ার মঞ্জুরুল আহসান মঞ্জুর সমর্থকরা। গুলশান কার্যালয়ে তার সমর্থনে বিক্ষোভ করতে এসে জেলা যুবদলের এক সাংগঠনিক সম্পাদক বলেন, গতকাল আমাদের নেতার মনোনয়ন দেওয়ার ঘোষণা দেওয়া হয়। অথচ আজকে বাতিল করা হয়েছে। দেওয়া হয়েছে আবদুল মালেক রতনকে। যে কিনা আওয়ামী লীগের চর হিসেবে কাজ করে। আমাদের নেতা চারবার সংসদ সদস্য হয়েছেন। ২৪ মাস জেল খেটেছেন। অথচ তাকে বাদ দিয়েছে। আমরা এই সিদ্ধান্ত মানি না।

দেশরিভউ/ডেস্ক