বিএনপি নেতার কবলে লামা বিদ্যুৎ অফিস, অনিয়ম দুর্নীতির আখড়ায় পরিণত

143

।। স্বপন কর্মকার, লামা বান্দরবান প্রতিনিধি ।।

বান্দরবানের লামায় বিদ্যুৎ অফিসের ব্যাপক অনিয়ম দুর্নীতির আখড়ায় পরিনত হয়েছে বলে জানা গেছে। সাধারন গ্রাহক মহল মামলা হামলা ও হয়রাণীর ভয়ে নিরবে এ সকল অনিয়ম দুর্নীতি বিরুদ্ধে কোন ধরনের অভিযোগ করার সাহস পাচ্ছে না।সরেজমিনে পরিদর্শনকালে জানা গেছে,ব্যক্তিগত ঘর ,বাড়ি ,ভবন নিমার্নকালে বিদ্যুৎ খুঁটি সরানো ,অন্যত্র বসানো কালে এ কর্মকর্তা দালাল চক্রের মাধ্যমে মোটাঅংকের টাকা হাতিয়ে নিয়ে যাচ্ছে বলে নাম প্রকাশ না করা শর্তে এক কর্মচারী বলেন,টাকা ছাড়া বিদ্যুৎ অফিসের কোন কাজ হয়না। আগে টাকা পরে কাজ বলে জানান।

এদিকে এক বিএনপির নেতার মাধ্যমে লামা বিদ্যুৎ বিভাগের প্রকৌশলী গিতী বসু চাকমার বিভিন্ন্ অনিয়ম দুর্নীতি সহ নানা অপকর্ম করে যাচ্ছেন একের পর এক বলে অভিযোগ ওঠেছে। শহরের বিভিন্ন চায়ের দোকানে ও হাঠ বাজারে আলোচনায় সরব ওঠেছে এই দুর্নীতিবাজ র্কমকর্তার বিরুদ্ধে। একটি ”শ্নোগান রাতে টাকা নিয়ে আসুন দিনে খুঁটি সরে যাবে”। এদিকে লামায় যোগ দান করার পর থেকে দুর্নীতি পাগলা ঘোড়া লাফিয়ে লাফিয়ে চলছে কোন ক্রমেই এর লাগাম টেনে ধরা যাচ্ছে না, ভুক্তভোগীরা ।

অপর দিকে লামা উপজেলার ৭টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভা এবং পার্শ্ববর্তী উপজেলা আলীকদম এ দুর্নীতির কবল থেকে রেহাই পাচ্ছেন সাধারন গ্রাহকরা । এ প্রতিবেদক কে স্হনীয়রা জানায়, বিদ্যুৎ বিভাগে লোকজন তো দেখি নাই, তবে ওয়ার্ড কমিশনার ফরিদ কে দেখছি এসকল কাজ করতে। তিনি সকল বিদ্যুৎ বিভাগের কাজ করছেন দীর্ঘ দিনধরে। এদিকে ,ফরিদ মিয়ার র্দূব্যবহার অত্যাচার বহুদিন ধরে সাধারন গ্রাহকেরা চরম অবহেলা র্দূব্যবহার গালমন্দ শোনে নিরবে সহ্য করতে হচ্ছে বলে জানা গেছে। তার বিরুদ্ধে কেউ প্রতিবাদ করলে তার কয়েক জন ছেলে রয়েছে যারা বিএনপির ক্যাডার বাহিনী তারা রাতে হামলা ও গুম করার হুমর্কী প্রদর্শন করে থাকে বলে জানা গেছে। লামা বিদ্যুৎ অফিস এখন পিতা পুত্রের দখলে জিম্মী বলে জানাগেছে। এনিয়ে সম্প্রতিকালে লামা ও আলীকদম উপজেলার শত শত গ্রাহকের মিটার না দেখে বিল করে গ্রাহক থেকে হাজার হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছে এ প্রতারক চক্রটি।

এ ব্যাপারে লামা বিদ্যুৎ বিভাগের প্রকৌশলী গীতি বসু চাকমা বলেন, কোন ধরনের অনিয়ম দুর্নীতি হয়নি । এ সকল মিথ্যা বলেন ,তিনি আরো বলেন,ফরিদ মিয়া (ওয়ার্ড কমিশনার) কে ছাড়া ভাল কাজ করার লোক লামায় নেই। তাই তাকে দিয়েই আমরা কাজ করাচ্ছি। তিনি বিএনপি নেতা হলেও করার কিছুই আমাদের নেই। যেহেতু তিনি এ সকল কাজ পূর্বে করেছেন, যার জন্য তাকে দেয়া হচ্ছে। টাকা গ্রহন করার কথা অস্বীকার করেন। তিনি আরো বলেন, ভাল কাজ যে করে তাকে আপনারা এনে দেন আমরা কাজে নিব। কমিশনার ফরিদ ও তার ছেলে আলমগীর ভালো কাজ করে বলেই নিতে হচ্ছে। এক প্রশ্নকালে তিনি বলেন,আলমগীর আলীকদমের মিটার পাঠক হলেও লামা ভাল কাজ করছে বলে তাকে নিতে হচ্ছে। তাতে দোষের কিছুই নেই।

এ ব্যাপারে চট্টগ্রাম বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলীকে তার মোটোফোনে আলাপকালে তিনি বলেন, বান্দরবান জেলার বিদ্যুতের কাজ কক্সবাজার জেলার প্রকৌশলী দেখাশোনা করেন। এবিষয়ে কক্সবাজার জেলা প্রকৌশলী সাথে তার মোটোফোনে আলাপকালে তিনি বলেন, জনস্বার্থে বিদ্যুতের খুঁটি সরাতে পারেন। তবে নিয়মানুসারে আবেদন করে ,অনুমতি নিতে হবে কর্তৃপক্ষের। সরেজমিনে তদন্ত করে যদি সরাতে হয়, তাকে অনুমতি দেয়া হয়। তবে এবিষয়ে আমার নিকট কোন আবেদন আসেনি।

লামা আলীকদমে নতুন লাইন সংযোগ কাজ প্রকল্প মাধমে দেয়া হয়েছে ।সেখানে কাজ চলমান ও রয়েছে। এক প্রশ্নকালে তাকে বলা হলে প্রকল্পকাজ চলছে তবে এক দিনের জন্য ও ঠিকাদার এলাকায় আসেনি। একজন ওর্য়াড কমিশানার কে দিয়ে এসকল কাজ করাচ্ছেন বলে জানালে, তিনি এবিষয়ে ঠিকাদার প্রতিষ্টানের সাথে আলাপ করবেন বলে আশ্বাস দেন। নতুন খুঁটি বসাতে হলে মোটাঅংকের উৎকোচ গ্রহন করার কথা বলা হলে। তিনি বলেন, এ বিষয়টি আমাদের নজরে এসেছে ,আমরা তদন্ত করে এ সকল অনিয়ম দূর্নীতি বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অপরদিকে উপজেলায় নতুন সংযোগ দিতে ব্যাপক ঘুষ বানিজ্যের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এক শ্রেণীর দালাল চক্র এ বানিজ্য চালাচ্ছে। উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়ার নামে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে ওই চক্রটি। বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়নবোর্ড, রাঙ্গামাটি জেলার অধীনে সম্প্রসারিত বিদ্যুতের ঠিকাদারের সহযোগী হিসাবে এবং লামা বিদ্যুৎ সরবরাহ অফিসের নাম ভাঙ্গিয়ে ওই সব দালাল চক্র বিদ্যুতের খুঁটি, লাইন স্থাপন এবং মিটার সংযোগ নিশ্চিত করার অজুহাতে আগ্রহী গ্রাহকদের কাছ থেকে এ টাকা আদায় করছে।

ভুক্তভোগী গ্রাহকদের অভিযোগ ঘুষ ছাড়া বিদ্যুত লাইন বা সংযোগ কিছুই মিলছে না। লামা বিদ্যুৎ অফিস সূত্রে জানা যায়,উপজেলার ৭টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভায় খুঁটি কাজ চলমান রয়েছে বলে সংশ্লিষ্টরা বলেন। স্থানীয় ভুক্তভোগী এ সব গ্রাহকদের অভিযোগ খুটি, লাইন ও মিটার সংযোগোর জন্য গ্রাহক প্রতি ৩ থেকে ৫ হাজার টাকা করে আদায় করা হচ্ছে। কোন কারনে কোন গ্রাহক টাকা দিতে ব্যর্থ বা অপারগতা প্রকাশ করলে বিভিন্ন অজুহাতে তাকে নতুন বিদ্যুৎ সংযোগ থেকে বঞ্চিত করা হয়। লামা বিদ্যুৎ সরবরাহ অফিসের নাম ভাঙ্গিয়ে সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারদের যোগসাজসে লামা পৌর সভার ১নং ওয়ার্ড কমিশার ফরিদ ও স্থানীয় মাষ্টাররোলে কর্মরত ইলেকট্রিশিয়ানরা এসব কাজ করছেন বলে জানা গেছে। উপজেলার বাসিন্দা সুলতান মিয়ার ছেলে ছগির মিয়া জানান, ২০১৯-২০২০ অর্থ বছরে তাদের গ্রামে নতুন বিদ্যুৎ লাইন সম্প্রসারনের জন্য চলমান রয়েছে।

বিদ্যুৎ সংযোগের কাজ চলাকালীন সময় তারা কোন জায়গায় খুটি স্থাপন করে এবং কিছু খুটি ফেলে রেখে চলে যায়। পরে বিদ্যুৎ অফিসে যোগাযোগ করা হলে তারা জানায় তোমাদের বাড়ি ম্যাপের আওতাভুক্ত নয় তাই একলক্ষ টাকা দিলে সংযোগদেয়া হবে। পরে ৬০ হাজার টাকা দিয়ে সংযোগ নিই। নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় জৈনক ব্যাক্তি বলেন আমি ও ৩০ হাজার টাকার বিনিময়ে বিদ্যুৎ সংযোগ পেয়েছি।

অন্যএকজন বাসিন্দা জৈনক আবুল হোসের জানায়, আমাদের বিদ্যুৎ লাইন স্থাপনের বাড়ি প্রতি ৩ থেকে ৫ হাজার টাকা করে দিতে হয়েছে। আমি নিজেও ৯ হাজার টাকা দিয়েছি। অপর একজন বাসিন্দা ফখরুল আলম (আজাদ) জানায়, আমাদের কাছ থেকে বিদ্যুৎ অফিসের ঠিকাদারের একটি দালাল চক্র ১৫ হাজার টাকা দাবি করে ৫ হাজার টাকা দিই, বাকী টাকা না দেওয়ায় তারা তিনটি গর্ত খুড়ে খুটি স্থাপন না করে চলে যায়। এই বিদ্যুতের খুটির গর্তে পড়ে আমার স্ত্রী গুরুতর আহত হয়। এই এঘটনায় তিনি পার্বত্য মন্ত্রী বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন বলে জানান। উপজেলার রুপসিপাড়ার দক্ষিণ মুসলিম পাড়ায় ইনন্জিয়ার এর ম্যাপ করে চলে যায়। কিছুদিন পরে যখন বিদ্যুতের খুঁটি স্হাপন করে ম্যাপের বাহিরে অন্য ভাবে বর্তমানে উক্ত গ্রামের কয়েকটি পরিবার বিদ্যুৎ সংযোগ থেকে বঞ্ছিত।

এছাড়াও উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামের একাধিক ব্যক্তি অভিযোগ করে জানান, বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়ার নামে লামা পৌরসভার ১নং ওয়ার্ড কমিশনার ও স্থানীয় কয়েকজন ব্যক্তির মাধ্যমে গ্রাহক প্রতি ৩ থেকে ৫ হাজার টাকা করে উত্তোলন করা হয়েছে। এদিকে টাকা না দিলে বিদ্যুৎ সংযোগ পাবে না বলে বিভিন্ন হুমকি ধমকি দেওয়ায় কেউ প্রতিবাদ করেনি। এব্যপারে বান্দরবান বিদ্যুৎ অফিসের প্রকল্প পরিচালক মুটোফোনে বলেন, অনিয়মের বিষয়ে তদন্ত করে দেখা হবে। ঠিকাদারি প্রতিষ্টানের নাম জানতে চাইলে বলেন, ফরিদ মিয়া দীর্ঘদিন যাতব এসকল কাজ করে আসছেন তাই তিনি লামা উপজেলায় খুঁটি কাজ দেখাশোনা করছেন। একজন ওয়ার্ড কমিশনার হয়ে তিনি কিভাবে বিদ্যুতের কাজ করছেন এবং জনগন থেকে টাকা নিচ্ছেন জানতে চাইলে এসকল কথা বলতে রাজি হননি।

অপর দিকে লামা বিদ্যুৎ অফিস ফরিদের পরিবারের ৪ জন সদস্য মাষ্টাররোল ও একজন মিটার পাঠক হিসেবে কিভাবে দায়িত্ব পালন করছে এ ব্যপারে লামা বিদ্যুৎ অফিস সহকারী প্রকৌশলী সাজ্জাদ ছিদ্দিকীর সাথে আলাপকালে তিনি সাংবাদিকের প্রশ্নকালে বলেন। দীর্ঘদিন যাবৎ কাজের অভিজ্ঞতা আছে, তাই নেয়া হয়েছে। কোন প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা নেই জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমার পূর্বে যারা দায়িত্ব পালন করেছেন তারা এসকল লোকজন নিয়োগ সহ বিভিন্ন ভাবে কাজের জন্য এদেরকে ব্যবহার করেছে।

এব্যপারে লামা পৌরসভার ওয়ার্ড কমিশনার ফরিদ মিয়ার সাথে আলাপকালে তিনি বলেন, আমাকে ডেকে নিয়ে তারা কাজ দিলে আমি লেভার সাপ্লাই দিয়ে থাকি ,সাথে আমি কাজ করি। আমাকে কাজ না দিলে আমি এ সকল কাজ করবো না। টাকা বিষয়ে প্রশ্নকালে বলেন,টাকা কে না খায়! দেশের বিদ্যুৎ খাতে একদিকে রাষ্ট্রীয় অর্থের বিপুল অপচয়, অনিয়ম চলছে, অন্যদিকে উচ্চমূল্য ও ভৌতিক বিলের কারণে গ্রাহক ভোগান্তির চরমে গিয়ে ঠেকেছে। জনগণের কাছে সংশ্লিষ্টদের জবাবদেহিতা উপেক্ষিত থাকায় এই খাতে অনিয়ম ও বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি দিন দিন অবনতি হচ্ছে। এদিকে বিভিন্ন প্রত্র পত্রিকাসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লামা উপজেলার বিদ্যুৎ বিভাগের অনিয়ম দুর্নীতি নিউজ প্রকাশ হলে তা সাধারন মানুষের মাঝে সাড়া জাগে এবং ফেসবুকে এসকল বিষয়ে পক্ষে -বিপক্ষে প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন।

বান্দরবান জেলার লামা আলীকদম উপজেলায় ব্যাপক অনিয়ম দুর্নীতি নগ্ন থাবা থেকে মুক্তি পেতে সাধারন গ্রাহকরা। একাধিক অভিযোগ করেও কোন প্রতিকার না পেয়ে হতাশ ও চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে সচেতন মহলের ।
এব্যাপারে বাংলাদেশ বিদ্যুৎ বিভাগের সচিব ড. সুলতান আহম্মদ সাথে তার মোটোফোনে আলাপকালে তিনি বলেন,কোন ধরনের অনিয়ম দুর্নীতির সাথে আপোষ নেই । বান্দরবান জেলায় হলে তা সংশ্লিষ্ট কর্মকতার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলে তিনি জানান।

SHARE