চট্টগ্রাম বিজ্ঞান কলেজের ভয়ংকর ফাঁদ; ভর্তিচ্ছুর অজান্তে কলেজ নির্ধারন (ভিডিও)

4249

।।দেশরিভিউ চট্টগ্রাম।।
গত রোববার থেকে শুরু হয়েছে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির আবেদন প্রক্রিয়া। অনলাইন ও এসএমএসের মাধ্যমে এবছরও একজন শিক্ষার্থী সর্বোচ্চ ১০টি কলেজ তার পছন্দ তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করতে পারবে। সেই পছন্দের ১০টি কলেজের নামের তালিকা নিয়ে ভয়ংকর ফাঁদ পেতেছে চট্টগ্রাম বিজ্ঞান কলেজ নামে একটি বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।

শিক্ষার্থীরা মোবাইলের দোকানে ও বিভিন্ন কম্পিউটার সেন্টারে গিয়ে মূলত এসএমএস ও অনলাইনে ভর্তির আবেদন করে থাকে। তেমনি একটি দোকানের মালিকের সাথে বেসরকারী এই কলেজটির একজন মার্কেটিং অফিসারের কথোপকথনের ভিডিও দেশরিভিউ এর হাতে এসেছে।

ভিডিওতে কলেজ থেকে আগত ব্যক্তি উক্ত দোকানদারকে বলতে শুনা যায়, ভর্তিচ্ছু আবেদনকারীর তালিকার এক নম্বরে যদি বিজ্ঞান কলেজটির নাম অন্তর্ভূক্ত করতে পারে সেক্ষেত্রে কলেজ কর্তৃপক্ষ ৩০০ টাকা কমিশন দিবে। এছাড়াও ২ থেকে ৫ নং কলেজের তালিকায় যদি চট্টগ্রাম বিজ্ঞান কলেজের নাম অন্তর্ভূক্ত করতে পারে সেক্ষেত্রে প্রতি আবেদনে ১০০ টাকা করে কমিশন কলেজ থেকে দেয়া হবে। কমিশনের টাকা বিকাশ অথবা সরাসরি দোকানদারের কাছে পৌছে দেওয়ার কথাও বলতে শুনা যায়।

অনলাইনে এমন ভয়ংকর ফাঁদের বিষয়ে কোন শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে কিনা জানতে চাইলে চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক শাহেদা ইসলাম বলেন, অভিযোগ ও ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেলে অবশ্যয় সর্বোচ্চ শাস্তি আরোপ করা হবে।ভিডিওটি দেখুন:

এদিকে বিভিন্ন সময়ে শিক্ষা বানিজ্যে জড়িত থাকা কলেজটির মালিক ও অধ্যক্ষ দাবীদার জনৈক জাহেদ খান নিজেকে ডক্টরেট পরিচয় দিলেও শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের এক তদন্ত প্রতিবেদনে তা ভুয়া হিসাবে প্রমানিত হয়। এছাড়াও কলেজটি মিথ্যা তথ্য সম্বলিত বিজ্ঞাপন প্রচারের মাধ্যমে প্রতিবছর বিশাল সংখ্যক শিক্ষার্থী কলেজে ভর্তি করিয়ে নামে বেনামে টাকা হাতিয়ে নিয়েছে অভিযোগ রয়েছে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কলেজের এক শিক্ষক ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, কলেজের বিজ্ঞাপন চটকদার না হলে ছাত্র ভর্তি হবেনা।

অনুসন্ধানে দেখা গেছে, কলেজটি চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডে বেসরকারি কলেজের মধ্যে ১ম স্থানে রয়েছে দাবী করে সাইনবোর্ড পোষ্টার লিফলেট এমনকি গণমাধ্যমেও বিজ্ঞাপন প্রচার করছে। কিন্তু ২০১৮ সালের এইচএসসি পরীক্ষার ফলাফলে কলেজটির পাশের হার মাত্র ৫৮.৩৪ শতাংশ। ৮৫৭ জন পরীক্ষায় অংশ নিয়ে অকৃতকার্য হয়েছে ৩৫৭ জন। এমনকি বিশেষায়িত বিজ্ঞান কলেজ দাবী করলেও ২০১৮ সালের এইচএসসি পরীক্ষায় একজনও এ প্লাস পায়নি। এদিকে কলেজটির এসকল অনৈতিক কর্মকান্ড এবং শিক্ষা বানিজ্যের বিরুদ্ধে বারবার আন্দোলনে নেমেছে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকবৃন্দ।

SHARE