বিত্তবানরাই সঞ্চয়পত্রের সুবিধা বেশি ভোগ করছে

252

৩০ হাজার ১৫০ কোটি টাকা লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে গত অর্থবছরে ৪৬ হাজার ৫৩০ কোটি টাকার সঞ্চয়পত্র বিক্রি হয়েছে । সুদের হার কমে যাওয়ার শঙ্কায় সঞ্চয়পত্র বিক্রি আগের তুলনায় অনেকটা বেড়েছে। লাগামহীন বিনিয়োগের সুযোগে বিত্তবানরাই সঞ্চয়পত্রের সুবিধা বেশি ভোগ করছে বলে মনে করেন অর্থনীতিবিদরা। তাদের মতে, সুদের হার সবার জন্য না কমিয়ে, বিনিয়োগ কাঠামোর পরিবর্তন করা দরকার। সঞ্চয় অধিদপ্তর বলছে, এখাতে বিনিয়োগে অনিয়মরোধে ভবিষ্যতে অনলাইনে গ্রাহকদের তথ্য পর্যালোচনার পরিকল্পনা রয়েছে।

সঞ্চয়পত্র একদিকে সরকারের বাজেট ঘাটতি পূরণে একটি বড় অভ্যন্তরীণ উৎস, অন্যদিকে নারী, বয়স্ক, অবসরপ্রাপ্ত নাগরিকদের একটি নিশ্চিত আয়ের মাধ্যম বলেও বিবেচিত হয়। তুলনামূলক বেশি মুনাফা ও সর্বাধিক নিরাপদ সঞ্চয়ের জন্য এখাতে সব নাগরিকের বাড়তি আগ্রহ থাকে। তবে, জুনের প্রথম সপ্তাহে বাজেটোত্তর সংবাদ সম্মেলনে অর্থমন্ত্রী সঞ্চয়পত্রে সুদের হার কমানোর ইঙ্গিত দেন।

এরপর জুলাই মাসের শুরুতে স্বল্পমেয়াদী ব্যাংক আমানতের সুদহার ৬ শতাংশে নামিয়ে আনায় সঞ্চয়পত্র বিক্রির হার আরও বাড়ে ।

শুধু আয়ের শেষ ভরসা হিসেবে মানুষ সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগ করেন তা নয়, অনেক বিত্তবানরাও আর্থিকখাতের অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের তুলনায় প্রায় দ্বিগুণ মুনাফা পেতে সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগ করছেন বলে মনে করেন সাধারণ গ্রাহকরা।

তারা বলেন, ব্যাংকের মুনাফার হার কমার পর থেকে অনেকেই সঞ্চয়পত্রের দিকে ঝুঁকছেন। সঞ্চয়পত্রে মুনাফার হার কমানো হলে এটাও কমবে।

সঞ্চয়পত্র কিনতে আয়ের উৎস জানানোর বাধ্যবাধকতা নেই, তাই উচ্চবিত্তরা এখাতের সুবিধা বেশি নিচ্ছে বলে মনে করেন অর্থনীতিবিদরা। অর্থনীতিবিদ ড. নাজনীন আহমেদ বলেন, ঢালাওভাবে সঞ্চয়পত্রের সুদের হার কমানো উচিত নয়। যাদের জন্য এই সঞ্চয়পত্র চালু করা হয়েছে যাতে তারা সুবিধা পেতে পারেন সেজন্য মনিটরিং দরকার।

দেশরিভিউ/এস এস

SHARE