বিয়ের ‘জাল হলফনামা’ বানিয়ে ছাত্রলীগ নেত্রীকে বিবাহিত দাবী পদবঞ্চিতদের

5067
বিয়ের জাল হলফনামা

।।দেশরিভিউ-ঢাকা।।
বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ৩০১ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ কেন্দ্রীয় কমিটি ঘোষণার পরপরই পদপ্রাপ্ত অর্ধশতাধিক নেতা নেত্রীর বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ এনে প্রতিবাদ জানাচ্ছেন সংগঠনটির পদবঞ্চিত নেতারা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাড়াও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকেও এর উত্তাপ ছড়িয়েছে। পদপ্রাপ্ত নেতাদের অনেকের বিরুদ্ধে সংগঠন বিরোধী কর্মকান্ডের দালিলিক প্রমান ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ছে।

অন্যদিকে সুযোগটি কাজে লাগিয়ে পদে আসা অনেক নারী নেত্রীদের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করছেন খোঁদ ছাত্রলীগের একটি অংশ। এমন একটি বিয়ের “জাল হলফনামা” নিজের ফেসবুকে আপলোড করে ছাত্রলীগের সাবেক গ্রন্থনা ও প্রকাশনা বিষয়ক উপ সম্পাদক সুস্ময় দে নতুন বিতর্ক জন্ম দিয়েছেন। নতুন কমিটির উপ-পাঠাগার সম্পাদক ফাতেমা তুজ জোহরা রুশীকে (রুশী চৌধুরী) বিবাহিত বলে অভিযোগ তুলেছেন তিনি। রুশি বিগত কেন্দ্রীয় কমিটির উপ সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক ছিলেন।

জাল সনদ

ছাত্রলীগ নেতা সুস্ময় দে তার ফেসবুকে হলফনামাটি আপলোড করে ছাত্রলীগ নেত্রী রুশী চৌধুরী ২০১৪ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারী বিয়ে করেছেন এমন অভিযোগ তুললেও হলফনামাটিতে বর ও কনের কোন স্বাক্ষর না থাকায় বিষয়টি সকলের সন্দেহের চোখে আসে। বিয়ের হলফনামায় সাধারণত নোটারি পাবলিক করার ক্ষমতা আছে এমন ব্যক্তি বা উকিলের স্বাক্ষর থাকার কথা থাকলেও এখানে তা দেখতে পাওয়া যায়নি। ছাত্রলীগ নেতা সুস্ময় দে’র ফেসবুকে আপলোড করা জাল হলফনামায় বরের নাম সাদা কালিতে ডেকে দিতে দেখা গেছে। সাধারন হলফনামায় লাল রংয়ের সিল মোহর ব্যবহার করার নিয়ম থাকলেও সুস্ময় দে’র ফেসবুকে দেওয়া হলফনামায় তা খুঁজে পাওয়া যায়নি।

একজন নারী নেত্রীকে সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করার ঘটনাটি দেখতে পেয়ে অনেকই ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছেন। ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম সাধারন সম্পাদিকা শারমিন আক্তার লিলি এ বিষয়ে বিষ্ময় প্রকাশ করে লিখেছেন “এগুলো ঠিক নাহ! ভাবতে খুব অবাক লাগে কি ভাবে কর তোমরা এইসব’

এদিকে রুশী চৌধুরীকে নিয়ে এমন আরো ‘জাল বিয়ের হলফনামা’ ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়তে দেখা গেছে। সুস্ময় দে’র ফেসবুকে দেয়া হলফনামাটির বরের ছবি পাল্টিয়ে
ময়মনসিংহ মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এহতেসামুল আলমের সন্তান তাহমিদ আলম রিয়াদের ছবি ব্যবহার করে আরো একটি “জাল হলফনামা” ফেসবুকে প্রচার করতে দেখা গেছে।

এ বিষয়ে জানতে তাহমিদ আলম রিয়াদের সাথে যোগাযোগ করে হলে তিনি বলেন, রুশী আমাদের ময়মনসিংহের মেয়ে। এই রকম জাল হলফনামা যে করেছে সে মানসিক ভারসাম্যহীন। তার ডাক্তার দেখানো উচিত। বিষয়টি বিব্রতকর দাবী করে রিয়াদ বলেন, কোন নারীকে এভাবে সামাজিকভাবে হেয় করার বিচার হওয়া উচিত।

ছাত্রলীগের কমিটিতে সদ্য উপ পাঠাগার সম্পাদক পদ পাওয়া রুশী চৌধুরীকে এ বিষয়ে জানতে ফোন করলে তিনি বক্তব্য দিতে রাজি হননি। রুশী চৌধুরী বলেন, এটা আমাদের সাংগঠনিক বিষয়। এ নিয়ে আমার বক্তব্য আমি সংগঠনকে জানাবো।

এর আগেও ক্লোজআপ ওয়ান তারকা সঙ্গীতশিল্পী মেহেরাবের সাথে রুশীর একটি ছবি ফেসবুকে দিয়ে রুশিকে বিবাহিত বলে অভিযোগ করা হয়েছিলো। তখন এর প্রতিবাদ জানিয়ে রুশী নিজের ফেসবুকে লিখেন, মেহরাব আমার বাবার আপন খালাতো ভাই এর ছেলে। আমাদের দীর্ঘ দিনের রিলেশন। ছাত্রলীগ করতে গেলে রিলেশন করা যাবে না এটা গঠনতন্ত্রতে নেই। আর আমাদের ফেসবুকে রিলেশন স্ট্যাটাস দেওয়া “এনগেজড” যা সবাই দেখছে।

নিজের জন্মদিনের অনুষ্ঠানে বাকদান অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা দাবী করে তিনি বলেন, আমাকে “বিবাহিত” বলা ভুল হচ্ছে। বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা হয়নি বা সরকারী ভাবে কোন কাবিন হয়নি জানিয়ে রুশী চৌধুরী নিজের ফেসবুকে
লিখেন আমরা বিয়ে করলে সবার আগে আমি ছবি দিবো। মেহরাব-ও তখন প্রেস কনফারেন্স করে সবাইকে জানাবে। জন্মদিনের অনুষ্ঠানে ছাত্রলীগের অনেকই উপস্থিত ছিলো জানিয়ে রুশীর বক্তব্য “আমি সব সময় বলে আসছি যেহেতু রিলেশন আছে এতে লুকানোর কিছু নাই”

নারী নেত্রীদের সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করার বিষয়ে জানতে চাইলে সাবেক কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের এক নারী সহসভাপতি বিষয়টিকে দু:খজনক বলে উল্লেখ করেন। সাবেক এই নেত্রী দেশরিভিউকে বলেন, বিতর্কিতদের বিরুদ্ধে কথা বলতে গিয়ে নারী নেত্রীদের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করা মোটেও উচিত হচ্ছেনা। আমাদের সমাজে ২৮/২৯ বছর বয়সী একজন মেয়ে নিজের পারিবারিক ও সামাজিক প্রতিবন্ধকতার মধ্যেই ছাত্রলীগ করতে হয়। এরপরেও যদি
ছাত্রনেতারা মিথ্যাচার ও অপপ্রচার চালিয়ে নারী নেত্রীদের হেয় করেন তবে এমন কর্মকান্ডের বিচার হওয়া উচিত।

SHARE