বিয়ের প্রলোভন : কিশোরীর সাথে দৈহিক সম্পর্ক নোবেলের

79741

।।দেশরিভিউ, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট।।
‘সা রে গা মা পা’ তারকা নোবেলের বিরুদ্ধে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে প্রেম ও সর্বস্ব লুটের অভিযোগ এনেছে ১৬ বছর বয়সী এক ছাত্রী। শাহরিন সুলতানা(ছদ্মনাম) নামের ভূক্তভোগী ছাত্রী অভিযোগ করে বলেছে পিতার চাকরি সূত্রে গোপালগঞ্জে থাকার সময় থেকে নোবেলের সাথে তার প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। এমনকি বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে নোবেল নিজের বাসায় তার সাথে ৭/৮ বার দৈহিক সম্পর্কেও মিলিত হয়।

সম্প্রতি নোবেলের নগ্ন/অর্ধনগ্ন ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ার পর বিষয়টি প্রথম আলোচনায় আসে। এ বিষয়ে ভিকটিম ছাত্রী শাহরিন সুলতানার (ছদ্মনাম) সাথে দেশরিভিউর পক্ষ থেকে যোগাযোগ করা হলে নোবেলের বিরুদ্ধে তার অভিযোগের বিস্তারিত জানায় সে।

সম্প্রতি সঙ্গীতশিল্পী নোবেলের নগ্ন/অর্ধনগ্ন ছবি এবং তার বেডরুমের কিছু ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ার

শাহরিন সুলতানা সঙ্গীতশিল্পী নোবেলের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে বলেন, গত পাঁচ বছর আমার বাবার চাকরি সূত্রে আমি গোপালগঞ্জে ছিলাম। সারেগামাতে যাওয়ার ছয় মাস আগে তার সাথে আমার পরিচয়। সে আমাকে মিথ্যা প্রেমের জালে ফাসিয়ে আমার থেকে অনেক কিছুই নিয়েছে, আমাকে অনেক স্বপ্ন দেখিয়েছে, আমাকে বিয়ে করবে বলেছে। আমার সাথে সাত আট বার দৈহিক সম্পর্কে লিপ্ত হওয়ার পরে সে এবং তার ফ্যামিলি আমাকে নেগলেক্ট করেছে, আমাকে চিনে না বলেছে। তারা আমার সাথে খুব খারাপ আচরণ করেছে।

নোবেলের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে ভিকটিম ছাত্রী বলেন,
সে জাস্ট আমার শরীর পাওয়ার জন্য এইসব করেছে। আসলে সে আমাকে কখনো ভালোবাসে নাই। তার ইনটেনশন ছিল আমাকে ভোগ করা। এভাবে সে অনেক মেয়েদের জীবন নষ্ট করছে।

সে আমাকে নানা ধরনের স্বপ্ন দেখাতো। বলতো “আমরা তো বিয়ে করবো, বিয়ে করার আগে এগুলো করলে কিছু হবে না”। আমিও ভাবছি সে আমাকে বিয়ে করবে। একটা ছেলে যখন তার ফ্যামিলিতে একটা মেয়েকে উপস্থিত করে নিশ্চয় তার ফ্যামিলিও জানে যে তার সাথে আমার কি ধরনের সম্পর্ক!

দেশরিভিউ প্রতিবেদককে এই ছাত্রী জানায়, নোবেলের বাসায় গিয়ে শারীরিক সম্পর্ক যখন নিয়মিত পর্যায়ে চলছিলো হঠাৎ একদিন নোবেল এবং তার পরিবারের সদস্যরা তার সাথে খুবই দুর্ব্যবহার করে এবং বাড়ি থেকে ধাক্কা দিয়ে বের করে দেয়।

ভিকটিম ছাত্রী দেশরিভিউকে এসময় বলেন, এই ছেলে অনেকবার ড্রাগস নিয়েছে, মাতাল অবস্থায় গোপালগঞ্জের যেখানে সেখানে পড়ে থাকতো। নেশা করতে করতে ওর ভিতরে কিছু ছিলো না। সে এভাবে অনেক মেয়ের জীবন নষ্ট করছে কারণ তার কাছে এগুলো জাস্ট খেলাধুলা। প্রথমে সে একটা মেয়েকে প্রেমের জালে ফাসাবে, তাদেরকে ভোগ করবে তারপর তাদেরকে লাথি মেরে জীবন থেকে বের করে দিবে।

সম্প্রতি সঙ্গীতশিল্পী নোবেলের আপত্তিজনক বেশকিছু ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে।

শাহরিন সুলতানা(ছদ্মনাম) সঙ্গীতশিল্পী নোবেলের বিচার চেয়ে বলেন, এই ছেলে নেক্সট টাইম যাতে কোনো মেয়ের জীবন নষ্ট করতে না পারে সেই ব্যবস্থাটা আপনারা নিন। ওকে এমন শিক্ষা দেন যাতে ওর যত মেয়ে ভক্ত আছে তারা সবাই যেন ওর মুখে সবাই থুথু মারে। ওর আসল চরিত্র সম্পর্কে জানলে আমার মনে হয় না কোনো ভদ্র ঘরের মেয়ে ওর প্রতি কোনো ফিলিংস রাখবে। এরকম ছেলের যদি বিচার না হয় মেয়েদের জীবন জালিমের শিকার হয়ে যাবে যেটা কিনা আমাদের ভবিষ্যত অন্ধকার করে দিবে। তার তো কিছু হবে না। ক্ষতি আমাদের হবে। ক্ষতিপূরণটা কে দিবে? আমি আপনাদের বারবার অনুরোধ করে বলছি ওর মতো জালিমকে আপনারা একটা শিক্ষা দেন।

অভিযোগের বিষয়ে বক্তব্য জানার জন্য ‘সা রে গা মা পা’ তারকা নোবেলকে ফোন করা হলে তার মোবাইল বন্ধ পাওয়া যায়। হোয়াটসআপে রিং হলেও তা রিসিভ করেননি সঙ্গীতশিল্পী নোবেল।

SHARE