বিলুপ্তির পথে ‘রয়েল বেঙ্গল টাইগার’ দায় কার?

36

বাংলাদেশের জাতীয় প্রাণী ও বীরত্বের প্রতীক ‘রয়েল বেঙ্গল টাইগার’। অন্যান্য দেশের চেয়ে সুন্দরবনের বাঘের রয়েছে একটু আলাদা বৈশিষ্ট্য। কিন্তু নির্বিচারে বন উজাড়, নানাভাবে হত্যা ও প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের ফলে বিশ্ব ঐতিহ্যের এ প্রাণীটি আজ বিপন্নের পথে। বিশেষজ্ঞদের মতে, বর্তমান সংখ্যাকে দেড়শ’ থেকে দু’শো পর্যন্ত বৃদ্ধি না করতে পারলে ভবিষ্যতে সুন্দরবনের বাঘ বিলুপ্ত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

বন বিভাগ সূত্রে জানা যায়, ২০১৫ সালে বাঘ গণনার প্রাপ্ত ফলাফল অনুযায়ী, সুন্দরবনের বাঘের সংখ্যা ১০৬টি। দুই দশকের ব্যবধানে সবশেষ জরিপে বাঘের সংখ্যায় বড় ধরণের ব্যবধান পাওয়া গেছে। গত চার দশকে সুন্দরবনের বাঘের সংখ্যা গণনা হয়েছে মোট ৬ বার। ১৯৭৫ সালে পায়ের ছাপের মাধ্যমে প্রথম গণনায় বাঘের সংখ্যা পাওয়া যায় সাড়ে তিনশো।

এরপর ১৯৮২ সালে বেড়ে দাঁড়ায় সাড়ে চারশোতে। তবে, ২০১৫ সালে ক্যামেরা ট্যাপিংয়ের মাধ্যমে গণনায় মাত্র ১০৬টি বাঘের হিসাব পাওয়া গেছে। ২০১৭ সালের পর  ২০১৮ সালে আবারও একই পদ্ধতি অনুসরণ করে বাঘ গণনা চলছে। চলতি বছরের শেষদিকে বর্তমান বাঘের চূড়ান্ত সংখ্যা পাওয়া যাবে বলে আশা করছে বন বিভাগ।

বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মো. মদিনাতুল আহসান বলেন, ‘এ বছরের ১৪ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু করে ১২ মে পর্যন্ত আমরা দীর্ঘ তিনমাস আমরা ক্যামেরা পর্যবেক্ষণ চালিয়েছি।’

অবশ্য বন বিভাগের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা বাঘ সুরক্ষায় বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা জানান।

বন সংরক্ষক মো. আমীর হোসাইন চৌধুরী বলেন, ‘৪৯টি গ্রাম্য বাঘ দায়িত্বের টিম তৈরি করেছি। বিটিআরটি করেছি।’

দেশরিভিউ/এস এস