বৃদ্ধাশ্রমে অসহায় মায়েদের মুখে হাসি ফোটালেন পূর্ণিমা

709

।দেশরিভিউ।

সোশ্যাল মিডিয়ায় বেশ সক্রিয় এক সময়ের জনপ্রিয় চিত্রনায়িকা পূর্ণিমা। প্রায়ই হাস্যরসে ভরপুর ছবি, ভিডিও দিয়ে ভক্ত-অনুরাগীদের মন জুগিয়ে যাচ্ছেন।

তার পোস্ট মানেই ভাইরাল কিছু। তবে সম্প্রতি মজার কোনো ছবি বা ভিডিও আপলোড না করে নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্টে এমন সব ছবি ছেড়েছেন যে কারণে বেশ প্রশংসিত হচ্ছেন পূর্ণিমা।

গতকাল শনিবার চিত্রনায়িকা ফেসবুক পোস্টে দেখা গেছে, কোনো এক বৃদ্ধাশ্রমে বৃদ্ধাদের সঙ্গে হাস্যজ্বল পূর্ণিমা। তাকে পেয়ে অসহায় বৃদ্ধারাও খুশিতে আত্মহারা। যে যেভাবে পারছেন পূর্ণিমাকে নিজের সন্তানের মতো আপন করে নিচ্ছেন।

পূর্ণিমাও তাদের সঙ্গে খোশ গল্পে মেতেছেন। এসবই প্রকাশ পেয়েছে ফেসবুকে পূর্ণিমার আপলোড করা ২৫টি ছবিতে।

জানা গেছে, গত শুক্রবার রাজধানীর উত্তরখান ইউনিয়ন পরিষদের মৈনারটেক এলাকায় মৈনারটেক এলাকায় অসহায় ও দুস্থ নারীদের জন্য নির্মিত ‘আপন নিবাস’ নামের একটি বৃদ্ধাশ্রমে গিয়েছিলেন পূর্ণিমা।

ওই আশ্রমে প্রায় ৫০ জন নারী বসবাস করছেন। তাদের কারও কারও শারীরিক সামর্থ্য নেই। আশ্রমই তাদের ভরসা। সেই আশ্রমে নিজ হাতে খাবার রান্না করে নিয়ে গিয়েছিলেন পূর্ণিমা। তাদের সঙ্গে দারুণ কিছু সময় কাটিয়ে তাদের জন্য খাবার পরিবেশন করেন তিনি।

জানতে চাইলে পূর্ণিমা গণমাধ্যমকে বলেন, ‘ওখানে নির্যাতিত মেয়েদের দেখেছি। তাঁদের বাসা থেকে বের করে দেওয়া হয়েছে। কেউ হারিয়ে গেছেন। একজন নারী তো এতটাই নির্যাতিত, তিনি এখন কাউকে চিনতে পারেন না। তাঁর মুখ থেকে শুধু একটাই কথা—পুলিশ পুলিশ।’

বৃদ্ধাশ্রমে বাস করা নারীদের গল্প শুনে স্তব্ধ হয়ে যান পূর্ণিমা। বললেন, ‘অনেক ধরনের কষ্টের কাহিনি শুনেছি, নির্যাতনের গল্প শুনেছি। এসব বলতে পারব না, লিখতে পারব না। আমি কেঁদে ফেলেছি। ইচ্ছা আছে সামনে আরও বেশি করে যাওয়ার। তাঁদের পাশে থাকার।’

বৃদ্ধাশ্রমে বৃদ্ধ নারীদের পাশাপাশি আছেন কিছু প্রতিবন্ধীও। তাঁদের সঙ্গে অসাধারণ সময় কেটেছে বলে জানান পূর্ণিমা। কেউ কেউ তাঁর অভিনীত ছবির গল্প করেছেন। পূর্ণিমা বলেন, ‘প্রতিবন্ধী যাঁরা, তাঁরা আমাকে চিনেছেন। কয়েকজন জড়িয়ে ধরে কেঁদেছেন। বলেছেন, আপনার “নিঃশ্বাসে তুমি বিশ্বাসে তুমি” সিনেমা দেখেছি। কেউ বলছেন, নায়িকা হবেন। আর নায়ক হবেন শাকিব খান। আমি বললাম, আমি শাকিব খানকে জানাব।’

বৃদ্ধাশ্রমের বাসিন্দাদের অনুরোধে পূর্ণিমা তাঁদের গান শুনিয়েছেন। পূর্ণিমাকেও তাঁরা গান শুনিয়েছেন। বললেন, ‘একজন বললেন গান শুনাবেন। আমি বললাম শোনান। একটি হিন্দি গান শোনালেন। এরপর আমাকে বললেন আসিফের গান গাইতে। তাঁদের অনুরোধে “ও প্রিয়া ও প্রিয়া তুমি কোথায়” গাইলাম।’

আপন নিবাস বৃদ্ধাশ্রমটির নির্বাহী প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক সৈয়দা সেলিনা শেলী বলেন, ‘আমাদের এই বৃদ্ধাশ্রমে এসেছিলেন সবার প্রিয়মুখ পূর্ণিমা; অসম্ভব ভালো মনের মানুষ তিনি। মায়েদের জন্য খাবার এনেছেন, গল্প করেছেন, গান করেছেন আর অফুরন্ত ভালোবাসা দিয়েছেন। দিনটির কথা আমাদের মা এবং ছোট প্রতিবন্ধী বোনরা কখনোই ভুলবে না। ‘

SHARE