বেরোবিতে “বাংলাদেশ বিনির্মাণে বঙ্গবন্ধু” র্শীষক সেমিনার

187

তরিকুল ইসলাম পিয়াস, বেরোবি প্রতিনিধি,রংপুর।

বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে মুক্তিযুদ্ধ ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানএর চেতনা,আদর্শ ও মূল্যবোধে উজ্জীবিত শিক্ষকদের সংগঠন নীল দলের আয়োজনে স্বদেশ প্রত্যাবর্তন পরবর্তী সময়ে ”বাংলাদেশ বিনির্মাণে বঙ্গবন্ধু” শিরোনামে সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান-এর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস ২০১৮উপলক্ষে এই সেমিনারের আয়োজন করা হয়।

আজ বৃহস্পতিবার (০৯জানুয়ারি) বিশ্ববিদ্যালয়ের একাউন্টিং এন্ড ইনফরমেশন বিভাগের গ্যালারী রুমে সেমিনারের আয়োজন করে নীল দল।

সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. নাজমুল আহসান কলিমুল্লাহ। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শিক্ষক সমিতির সভাপতি ড. তুহিন ওয়াদুদ ও শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক গোলাম রব্বানী।

নীলদলের সাধারণ সম্পাদক আপেল মাহমুদের স্বাগত বক্তব্য শেষে স্বদেশ প্রত্যাবর্তন পরবর্তী সময়ে বাংলাদেশ বিনির্মাণে বঙ্গবন্ধু শিরোনামের মূল প্রবন্ধ পাঠ করেন করেন প্রবন্ধের লেখক ভূগোল ও পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সৈয়দ আনোয়ারুল আজিম। প্রবন্ধের উপর আলোচনা করেন বাংলা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড.নিত্য ঘোষ।

সেমিনারে বক্তারা স্বাধীনতাত্তোর বঙ্গবন্ধুর রাজনীতি,স্বাধীন বাংলাদেশ বিনির্মানে বঙ্গবন্ধুর অবদান,স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস সহ নানা দিক নিয়ে আলোচনা করেন। বক্তারা বলেন “মুক্তিকামী জনতা বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের আহবানে সাড়া দিয়ে নিজেদের জীবনের বিনিময়েও বাংলাদেশকে স্বাধীন করার প্রস্তুতি নিয়েছিল।শত অত্যাচার সহ্য করেছেন তিনি,কখনও স্বাধীনতার অপশক্তিদের কাছে মাথা নত করেননি।

দীর্ঘ নয়মাস কারাভোগ করার পর বঙ্গবন্ধু দেশে ফিরে জনতার উচ্ছ্বাস দেখার জন্য ব্যাকুল ছিলেন। ১০জানুয়ারী দেশে ফিরে তিনি লাখো জনতাকে নতুন স্বাধীন জাতি রাষ্ট্র গঠনে অনুপ্রেরনা যুগিয়েছিলেন। স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের পর মাত্র সাড়ে তিন বছরের মধ্যে তিনি দেশের সার্বিক উন্নয়নের জন্য সুদূরপ্রসারী কর্মসূচী গ্রহন ও বাস্তবায়ন করেছিলেন। যার ফলশ্রুতিতে আজ আমরা বিশ্বের উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে বাংলাদেশকে দেখতে পাচ্ছি।

স্বাধীন রাষ্ট্রকে সার্বিকভাবে গঠন করতে প্রশাসনিক ব্যবস্থার পূনর্গঠন,সংবিধান গ্রহণ,এক কোটি মানুষের পূনর্বাসন,যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন,গ্রামীন অর্থনীতির চালিকাশক্তি হিসেবে সমবায় বাস্তবায়ন,শিক্ষার বিস্তার,জাতীয় নির্বাচন,সহ বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের সমর্থন আদায় সহ বিবিধ কার্যাবলীর মাধ্যমে বাংলাদেশকে সুন্দর রুপরেখা দিয়েছিলেন।এত কিছু সহ্য না করতে পেরে ঈর্ষান্বিত হয়ে বিপথগামী ও স্বাধীনতা বিরোধী একটি চক্র ১৫ই আগষ্ট বঙ্গবন্ধুকে স্বপরিবারে হত্যা করার মত গর্হিত অপরাধ সংগঠিত করে।

তরুন প্রজন্মকে বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধারন করে স্বপ্নের বাংলাদেশ বিনির্মাণের আহবান জানান বক্তারা।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে শিক্ষক সমিতির সভাপতি ড.তুহিন ওয়াদুদ বলেন “বাংলাদেশকে জানতে হলে আগে জানতে হবে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানকে। কেননা ব্রিটিশ শাসনামল থেকে দু:খিনী বাংলা যে চরম পরাধীনতাতে ভুগছিল তা থেকে আমরা মুক্তি পেয়েছি বঙ্গবন্ধুর আহবানে সাড়া দিয়ে নয় মাসের রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে।

বঙ্গবন্ধু জায়গাগুলোতে দাড়িয়েছিলেন সেখানে বঙ্গবন্ধু না থাকলে আজ স্বাধীন বাংলাদেশকে কল্পনা করা যেতনা ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপাচার্য ড.নাজমুল আহসান কলিমুল্লাহ বলেন “স্বাধীন বাংলাদেশ বিনির্মাণে সর্বোচ্চ ভূমিকা পালন করেছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান।” শুধু ফিদেল ক্যাস্ত্রোই তার মহত্বকে হিমালয়ের সাথে তুলনা করেননি। বরং জোসেফ মার্শাল এফ টিটো,শ্রীমতি ইন্দিরা গান্ধী সহ বিশ্বনেতারা বঙ্গবন্ধুর মহত্বকে স্বীকার করেছেন।তার শাসনামলে অল্প সময়ের মধ্যেই ১৪০টি দেশ বাংলাদেশকে স্বাধীন হিসেবে স্বীকৃতি প্রদান করেছে।”

এছাড়াও সেমিনারে বক্তব্য রাখেন লোকপ্রশাসন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক জুবায়ের ইবনে তাহের,শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো: গোলাম রব্বানী,বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি তুষার কিবরিয়া ও সাধারণ সম্পাদক নোবেল শেখ প্রমুখ।

SHARE