বেরোবিতে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন করতে দেয়নি প্রশাসন

16

বেরোবি প্রতিনিধি,রংপুর।

বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০১৭-১৮শিক্ষাবর্ষে ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতির সুষ্ঠু তদন্ত,জড়িতদের গ্রেফতার ও বিচারের দাবিতে সাধারণ শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন করতে দেয়নি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। আজ সোমবার দুপুর পৌনে একটায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শেখ রাসেল চত্বরে সাধারণ শিক্ষার্থীদের নিজস্ব অর্থায়ন ও উদ্দ্যেগে এই মানববন্ধনের আয়োজন করলে  বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বন্ধ করে দেয় ।

মানববন্ধন চলার আনুমানিক দশ মিনিটের সময় বেরোবি প্রক্টর আবু কালাম মো: ফরিদুল ইসলাম এবং গণ যোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহকারি অধ্যাপক তাবিউর রহমান প্রধান মানববন্ধনে উপস্থিত হয়ে মানববন্ধন বন্ধ করতে বলেন। প্রক্টোরিয়াল বডির অনুমতি না নেয়ার জন্য মানববন্ধন বন্ধ করার নির্দেশ দেন বলে জানান বেরোবি প্রক্টর।

এর আগে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নোবেল শেখ মানববন্ধনে উপস্থিত হয়ে সাধারণ শিক্ষার্থীদের এ দাবির প্রতি নৈতিক সমর্থন জানান। পরবর্তীতে প্রক্টর ও তাবিউর রহমান প্রধানের নির্দেশনা অনুযায়ী তিনি সাধারণ শিক্ষার্থীদের কে উপাচার্যের কাছে এ দাবিগুলো পৌছে দেয়ার আশ্বাস জানিয়ে মানববন্ধন শেষ করতে বলেন।

মানববন্ধন পণ্ড হওয়ায় ক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা বলেন ,”জালিয়াতির কারনে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রত্যেকটি ছাত্রের একটি দূর্নামের কালিমা লেপন হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের সুনাম ক্ষুন্ন হয়েছে। আমরা কোন ব্যক্তি বা সংগঠনের বিরুদ্ধে মানববন্ধনে দাড়াইনি।নৈতিক দাবি নিয়েই যখন মানববন্ধন করার চেষ্টা করেছি তখন আমাদের কন্ঠ রোধ করার জন্য মানববন্ধনে বাধা দেয়া হয়েছে।

” বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীদের মধ্যে আবাসিক হলে থাকা একজন শিক্ষার্থী নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন “আমাদের কে এতদিন ভর্তি পরীক্ষা চলাকালীন সময়ে আবাসিক হল থেকে বের করে দেয়া হয়েছে। নানা দূর্গতিতে থাকতে হয়েছে। ভর্তি জালিয়াতিতে যাতে কোন শিক্ষার্থী জড়িত না হতে পারে। তা স্বত্ত্বেও যেহেতু জালিয়াতি হচ্ছে তাহলে বলতেই পারি কতিপয় কুচক্রী মহল ভর্তি জালিয়াতির উপায়কে আরও সহজ করার জন্য ছাত্র ছাত্রীদের আবাসিক হলে থাকতে দেয়না।”

জালিয়াতির সুষ্ঠু তদন্ত,জড়িতদের বিচার ও জালিয়াতি বন্ধে প্রশাসনের ভূমিকা পরিলক্ষিত না হলে কঠোর কর্মসূচীর হুশিয়ারি দেন বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা।

SHARE