ব্যারিস্টার রাজ্জাকের পদত্যাগ নাটক: জামায়াতের গোপন কর্মকান্ডের আনুষ্ঠানিক সূচনা

6722
  • দেশরিভিউ/ বিশেষ করেন্সপন্ডেন্ট: দল বিলুপ্ত ও ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে ভুমিকার জন্য ক্ষমা চাওয়ার পরামর্শ দিয়ে জামায়াতের সিনিয়র নেতা ব্যারিস্টার রাজ্জাক পদত্যাগ করেছে মর্মে খবরে প্রকাশ পেলেও মূলত এটি জামায়াতের কৌশলের একটি অংশ।

২০১০ সালে জামায়াত নেতা কামারুজ্জামান জেল থেকে ৩২ পৃষ্টার একটা গোপন চিঠি তৎকালীন জামাত নেতাদের উদ্দেশ্যে লিখেন। ‘পরিবর্তিত প্রেক্ষাপটে নতুন কর্মকৌশল গ্রহণ সময়ের দাবি’ ঐ চিঠিতে তিনি জামাত সংগঠনটি সংস্কারের বিষয়টি প্রাধান্য দিয়েছিলেন। তৎকালীন জামাত নেতারা তখনও বিশ্বাস করতেন জামাতের শীর্ষ নেতাদের ফাঁসি দেওয়া সম্ভব না। তাই তারা কামারুজ্জামানের চিঠির সাথে সরকারের আতাঁত খুঁজেছিলো।এ নিয়ে জামায়াতের অভ্যন্তরীণ কোন্দল চরম আঁকার ধারন করেছিলো। বেশ কিছু নেতা কর্মীকে বহিস্কারও করা হয়েছিলো সেসময়ে। কিন্তু ২০১৪/১৫ সালে জামায়াত নেতাদের ফাঁসি যখন শুরু হতে থাকে তখনি বর্তমান জামায়াত নেতারা অনুধাবন করতে পারে, জামায়াত সংস্কারের বিষয়টি কার্যকর করা সময়ের দাবী। আর বর্তমানে ব্যারিস্টার রাজ্জাক সেই চিঠির প্রথম ধাপটি অনুসরন করলেন মাত্র। বিশ্লেষকরা বলছে, ব্যারিস্টার রাজ্জাকের পদত্যাগ ও জামায়াত বিলুপ্তের প্রস্তাব সেই চিঠির নির্দেশনা মোতাবেক হচ্ছে। জামায়াতের গোপন কর্মকান্ডের আনুষ্ঠানিক সূচনা এই পদত্যাগ নাটকের মধ্য দিয়ে হতে যাচ্ছে বলেও তাদের মতামত।

কি ছিলো সেই চিঠিতে? কামারুজ্জামান ওই চিঠিতে লিখেন, ‘‘আন্দোলন করে আমাদের মুক্ত বা সরকারের পতন করা যাবে এমন সম্ভাবনা নেই। বর্তমান সরকারের আমলেই আমাদের কিছু সংখ্যকের ‘বিচারের নামে প্রহসন’ হবে। আমরা ন্যায় বিচার পাব না। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় বিচার নিয়ে প্রশ্ন তুললেও একটি ইসলামী দলের নেতাদের শাস্তি হলে তো ভেতরে ভেতরে তারা অখুশি হবে না। জামায়াত নেতাদের যুদ্ধাপরাধের মতো স্পর্শকাতর ইস্যুতে বিচার করার পর জামায়াতের ভাব-মর্যাদা দারুণভাবে ক্ষুণ্ন হবে। জামায়াতের রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ ধ্বংস হয়ে যাবে।’’

পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে জামায়াত সিদ্ধান্ত নিয়ে পেছন থেকে একটি নতুন সংগঠন গড়ে তুলবে। এই সংগঠন প্রজ্ঞা ও দৃঢ়তার সঙ্গে ধর্মহীন শক্তির মোকাবিলা করবে।’

আমাদের যাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধের মিথ্যা অভিযোগ আনা হচ্ছে, তারা জামায়াতের নেতৃত্ব থেকে সরে দাঁড়াব এবং সম্পূর্ণ নতুন লোকদের হাতে জামায়াতকে ছেড়ে দেব। ’

নতুন প্লাটফর্ম: তিনি বলেন, আপাতদৃষ্টিতে জামায়াতে ভাঙ্গন সৃষ্টি হয়েছে এমনটি মনে হলেও ক্ষতির কিছু নেই। নতুন প্লাটফর্ম তৈরী হলে রাজনৈতিকভাবে কেউ সরাসরি আক্রমণ করতে পারবে না। নতুন দলের পদ-পদবির নাম বাংলাতেই হতে হবে। তিনবারের বেশী কেউ কেন্দ্রীয় বা জেলা সভাপতি থাকতে পারবেন না। কেন্দ্রীয় কমিটিতে সব পেশার লোকদের প্রতিনিধিত্ব থাকতে হবে। নির্বাচনে প্রথমে স্থানীয় সরকার ব্যবস্থার উপর গুরুত্বারোপ করতে হবে। যতটি মন্ত্রণালয় আছে ততটি ডিপার্টমেন্ট করে (সম্পাদক) প্রতিটি ডিপার্টমেন্টের জন্য দুইজনকে দায়িত্ব দিতে হবে। এছাড়া দলে একটি অভিভাবক বা উপদেষ্টা পরিষদ থাকবে। এতে জ্যেষ্ঠ নাগরিকসহ বিভিন্ন পেশার অভিজ্ঞতাসম্পন্ন লোক, বিশিষ্ট আলেম ও পণ্ডিত ব্যক্তিরা থাকবেন।এছাড়া চিঠিতে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হয়। 

SHARE