ব্রয়লার মুরগি খেলে ‘সমকামী’ হয়ে যাবেন (ভিডিও)

349


।।দেশরিভিউ সংবাদ।।

আলোচিত সমালোচিত ইসলামিক বক্তা মুফতি কাজী ইব্রাহিম এবার ব্রয়লার মুরগী খাওয়া থেকে সকলকে বিরত থাকতে বলেছেন। ইতিপুর্বেও নিজেকে গবেষক দাবী করে বিভিন্ন ওয়াজ মাহফিলে বক্তব্য দিয়ে আলোচনা সমালোচনার জন্ম দেন মুফতি কাজী ইব্রাহিম।

শুক্রবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়া একটি ভিডিওতে দেখা যায়, কাজী ইব্রাহিম সমকামিতার জন্য ব্রয়লার মুরগী খাওয়াকে দায়ী করছেন। ওয়াজ মাহফিলে দেওয়া বক্তব্যে কাজী ইব্রাহিম বলেছেন “কি খাবো আমি তো বুঝেই পাই না। এই যে ব্রয়লার মুরগী! কি এক অখাদ্য দাজ্জাল বানিয়ে দিল, সেক্সুয়েল ডিসঅর্ডার তৈরী করার জন্য দাজ্জাল এই ব্রয়লার মুরগী বানিয়েছে।”

কাজী ইব্রাহিম বলেন “ব্রয়লার মুরগী দীর্ঘদিন খেলে পুরুষ এবং নারী উভয়ই, উভয়ের প্রতি আকর্ষণ হারাবে। পুরুষ পুরুষের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে পড়বে, নারী নারীর প্রতি আকৃষ্ট হয়ে পড়বে। পুরুষ পুরুষকে বিয়ে করবে নারী নারীকে বিয়ে করবে। তারা এমন মুরগী খাওয়াচ্ছে আপনাকে, যেটা খেয়েছে আপনি সমকামী হয়ে যাচ্ছেন। ব্রয়লার মুরগী খাবেন?”

কাজী ইব্রাহিমের উদ্ভট বক্তব্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে সমালোচনার ঝড় উঠেছে।

ফেসবুকে বাঁধন চৌধুরী লিখেছেন, তবে, এই লোকের কাছে একটা জিনিস শেখার আছে। সেটা হচ্ছে কনফিডেন্স। কি কনফিডেন্টলি মিছা কথা কয়।

মুহাম্মদ আবু হানিফে মন্তব্যে লিখেছেন, এই লোকটা এবং তারেক মনোয়ার সাহেব কি মানুষিক সমস্যায় ভুগছেন?

ভিডিওতে রাজু আহমেদ মন্তব্য করেছেন, এই লোকটা বাস্তবিক ই মানব জাতির জন্য ভয়ঙ্কর । খোয়ারে আটকানো জরুরী । কারন বাংলার মানুষ ম্যাক্সিমাম ই সহজ সরল। এই সব কথা বিশ্বাস করার অনেক মানুষ আছে।

আশরাফ লায়েক মন্তব্য করে লিখেছেন, পুরো দুনিয়ার ৯০% মানুষ বয়লার মুরগী খায়, তাহলে সবাই কি সমকামী হয়ে গেছে! নবী সাঃ এর সময় ও সমকামী ছিলো, এর আগে ও ছিলো, তখন তো বয়লার মুরগী ছিলো না! সকল নবী রাসুল সমকামী নিষেধ করেছেন এমনকি বর্তমান সময়ের ও বিবেকবান সাইনটিস্টরা ও সমকামিতা পছন্দ করে না!! এসব কি বয়লার মুরগী হতে? এই মৌলানা গুলো মুর্খ!!!

মোহাম্মদ রাশেদ লিখেছেন, যেই হুজুর করোনাভাইরাসের সূত্র তৈরি করে সেই আবার মুরগী না খাওয়ার ফতোয়াও দিতে জানে! আমি বকি বেশি বেশি ব্রইলার মুরগী খাও, দেশে জনসংখ্যা হ্রাস করো!

আরো পড়ুন: 

মুফতি ইব্রাহিমের চমক: কবুতর ও মাকড়সা থেকে করোনা ভাইরাসের ঔষধ

SHARE