ব্রাজিলের বিপক্ষে নিজেদের প্রমাণের অপেক্ষায় সার্বিয়া

203

গ্রুপ পর্বে আগের দুই ম্যাচে নিজেদের দারুনভাবে প্রমাণ করেছে সার্বিয়া। যদিও আগের ম্যাচে দারুণ প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেও শেষ পর্যন্ত সুইজারল্যান্ডের কাছে ২-১ গোলে পরাজিত হয়ে কিছুটা হলেও পিছিয়ে পড়েছে মধ্য পূর্বাঞ্চলীয় ইউরোপীয়ান এই দেশটি। কিন্তু এখনো নক আউট পর্বের সুযোগ শেষ হয়ে যায়নি। গ্রুপ-ই’র শেষ ম্যাচে আজ ফেবারিট ব্রাজিলের বিপক্ষে ড্র করলেও তাদের সামনে নক আউট পর্বের দরজা খোলা থাকবে।
মস্কোর এই ম্যাচটিতে জয়ী হতে পারলে তো কথাই নেই। অপর ম্যাচে কোস্টারিকার সাথে সুইজারল্যান্ড যদি এক পয়েন্টও অর্জণ করে তবে এই গ্রুপ থেকে পরের রাউন্ডে যাবে সুইস ও সার্বিয়া। আর গ্রুপ পর্ব থেকেই বিদায় ঘটবে পাঁচবারের চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিলের।
অপেক্ষাকৃত সহজ গ্রুপে পড়লেও এই সমীকরণের সামনে দাঁড়িয়ে থাকা ব্রাজিলের কোচ হিসেবে তিতে পড়েছেন দারুণ চাপের মধ্যে। আর এই সুযোগটাই পুরো কাজে লাগাতে চাচ্ছে সার্বিয়া। তেমনটাই বিশ্বাস করেন দলের তারকা ফরোয়ার্ড আলেক্সান্দার মিট্রোভিচ। স্পার্টাক স্টেডিয়ামে নার্ভাস ব্রাজিলের ওপর তাই চেপে বসতে চায় সার্বিয়া। ম্যাচ পূর্ববর্তী সংবাদ সম্মেলনে মিট্রোভিচ বলেছেন, ‘আমি মনে করি, আমাদের থেকে ব্রাজিলই বেশি চাপে থাকবে। কারণ তারা এই পরিস্থিতির সাথে মানিয়ে নিতে পারছে না। প্রথম রাউন্ড থেকে বিদায়ের শঙ্কায় রয়েছে তারা। অপরদিকে আমাদের হারানোর কিছু নেই। আমি বিশ^াস করি, যতক্ষণ আমরা ম্যাচটা ধরে রাখতে পারবো ততক্ষণই আমাদের সুযোগ থাকবে। আমাদের সেরাটাই দিতে হবে। ভাগ্য সহায় হলে আমাদেরও জেতার সম্ভাবনা আছে।’
শুক্রবার সুইজারল্যান্ডের সাথে এক গোলে এগিয়ে থেকেও শেষ পর্যন্ত ২-১ গোলের পরাজয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে সার্বিয়া। কিন্তু দলের পারফরমেন্সে দারুন সন্তুষ্ট মিট্রোভিচ বলেছেন, ‘এই ম্যাচটিতে আমাদেরও জয়ের সুযোগ ছিল। এবারের বিশ^কাপে ফেবারিটরা সহজে ম্যাচ জিততে পারেনি। যেমন ক্রোয়েশিয়া হারিয়েছে আর্জেন্টিনাকে। কোস্টা রিকা ও সুইজারল্যান্ড প্রমাণ করেছে তারাও ব্রাজিলের সাথে লড়াই করতে পারে। ব্রাজিলকে বিদায় করার আত্মবিশ^াস আমার মধ্যে আছে।’
আগের দুই ম্যাচেই একেবারে শেষ মুহূর্তে দলকে রক্ষা করেছেন ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ডরা। প্রথম ম্যাচে সুইসদের বিপক্ষে ফিলিপ কুতিনহো ও কোস্টা রিকার বিপক্ষে নেইমারের ইনজুরি টাইমের গোলে ব্রাজিল রক্ষা পায়। আরো একবার ডানিলোকে ছাড়াই মূল একাদশ সাজাতে হচ্ছে তিতেকে। কোমরের ইনজুরির কারণে ম্যানচেস্টার সিটির এই ফুল-ব্যাক এখনো নিজেকে ফিট প্রমাণ করতে পারেননি। এদিকে হ্যামস্ট্রিং ইনজুরির কারণে জুভেন্টাসের উইঙ্গার ডগলাস কস্তাও এই ম্যাচে অনুপস্থিত থাকবেন।
বিশ^কাপে হয়তবা অন্য তারকাদের ভিড়ে নিজেকে সেভাবে মেলে ধরতে পারেননি, কিন্তু মিট্রোভিচ যে ব্রাজিলের রক্ষণভাগকে পুরো ম্যাচেই ব্যস্ত রাখবেন তাতে কোন সন্দেহ নেই। ফুলহ্যাম ও সার্বিয়ার হয়ে ২০১৮ সালে মিট্রোভিচ ২৬ ম্যচে করেছেন ১৮ গোল। বিশেষ করে ক্রস থেকে তার গোল করার দক্ষতা প্রতিপক্ষকে অবাক করে দেয়। অন্যদিকে এবারের বিশ^কাপে অন্যতম তারকা সমৃদ্ধ দল হিসেবে পরিচিত ব্রাজিলে নেইমারের পরিপূর্ণ ফর্মের অনুপস্থিতিতে বার্সেলোনা তারকা কুতিনহো দলের আক্রমণভাগকে আগলে রেখেছেন। সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে একমাত্র গোলটি করার পরে কোস্টা রিকার বিপক্ষে ইনজুরি টাইমে তার গোলেই ডেডলক ভেঙ্গেছিল ব্রাজিল।
স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে আত্মপ্রকাশ করার পরে এই নিয়ে দ্বিতীয়বারের মত ব্রাজিলের মুখোমুখি হচ্ছে সার্বিয়া। এর আগে ২০১৪ সালে এক প্রীতি ম্যাচে দু’দলের মোকাবেলায় ব্রাজিল ১-০ গোলে জয়ী হয়েছিল। বিশ^কাপে ইউরোপীয়ান প্রতিপক্ষের বিপক্ষে গত সাতটি ম্যাচে ব্রাজিল মাত্র একটি জয় পেয়েছে। ২০১৪ সালে ঘরের মাঠে ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে সর্বশেষ ৩-১ গোলে জয় তুলে নিয়েছিল সেলেসাওরা।

দেশরিভিউ/এস এস

SHARE