ভর্তি জালিয়াতিতে শিক্ষককে ফাঁসানোর অভিযোগে বেরোবিতে মানববন্ধন।

246

বেরোবি প্রতিনিধি,

২০১৭-১৮ শিক্ষার্ষের ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতিতে ধরা পড়া এক ছাত্রের অডিও ফাঁস এবং গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ড. নজরুল ইসলামের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগকে মিথ্যা দাবি করে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবিতে মানববন্ধন করেছেন বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজ।সোমবার বেলা ১১ টায় বেরোবি ক্যাম্পাসে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

ম্যানেজমেন্ট বিভাগের শিক্ষক রাফিউল আজম খানের সঞ্চালনায় ও বেরোবি প্রক্টর আবুল কালাম মো: ফরিদুল ইসলামের সঞ্চালনায় মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজের মো.সায়েদুর রহমান,গাজী মাজহারুল আনোয়ার রানু,মো: তরিকুল ইসলাম,ড.হাফিজুর রহমান সেলিম,ড.শরিফা সালোয়া ডিনা প্রমুখ।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন,বিশ্ববিদ্যালয়ের­­­ কোনো শিক্ষক কখনো সম্পৃক্ত ছিল না। কতিপয় ব্যক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এর সুনাম নষ্ট করছেন। কারা এ কাজ করেছেন তা বের করা হোক। অভিযুক্তদের অবিলম্বে শাস্তি চাই। বক্তারা আরও বলেন, নজরুল ইসলাম জড়িত আছে নাকি নেই তার সুষ্ঠু তদন্ত হোক। তদন্তে যদি প্রমাণ হয় তবে আমরা অবশ্যই তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা চাই। তবে সবার আগে সুষ্ঠু তদন্ত দরকার।

পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অভিযোগ করে বলেন,ভর্তি জালিয়াতিতে আটককৃত শামস বিন শাহরিয়ারকে ভাইভা বোর্ডে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনের সাথে সম্পর্কিত এক শিক্ষক তাকে ড. নজরুলের নাম উচ্চারনে উষ্কিয়ে দেয়।এই শিক্ষকের উচিৎ তার চাকুরি থেকে পদত্যাগ করা।

এ বিষয়ে ভাইভা বোর্ডের সদস্য শিক্ষকদের সাথে যোগাযোগ করলে লোকপ্রশাসন বিভাগের শিক্ষক আসাদুজ্জামান মন্ডল আসাদ,সামান্থা তামরিন,অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষক বেলাল উদ্দিন সহ অন্যান্যরা দেশ রিভিউকে জানান,জিজ্ঞাসাবাদে তাকে কোন কিছু জোড় করে স্বীকার করানো হয়নি। শামস নিজের মুখেই সেদিন ড. নজরুলের নাম উচ্চারন করে।জোড় করে স্বীকারোক্তির অভিযোগ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন বলেও অভিযোগ করেন তারা।

এদিকে বেরোবি শিক্ষক সমিতির সভাপতি ড. তুহিন ওয়াদুদ বলেছেন,যেহেতু মামলাটি এখনও চলমান সেজন্য মানববন্ধনে মামলার বাদী প্রক্টর আবুল কালাম মো: ফরিদুল ইসলামের মানববন্ধনে সভাপতিত্ব কিংবা উপস্থিত থাকা উচিৎ হয়নি।মামলার সুষ্ঠু সাপেক্ষে দোষীদের বিচারের আওতায় আনার দাবিও জানান তিনি।

উল্লেখ্য ভর্তি জালিয়াতির অভিযোগে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের মাষ্টাররোলের কর্মকর্তা রায়হান চৌধুরী পিন্টুকে আটক করেছে পুলিশ।রংপুর কোতোয়ালী থানার রংপুর কোতোয়ালী থানার উপ পরিদর্শক ও বিশ্ববিদ্যালয়ের পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ মহিব্বুল ইসলাম জানান,পিন্টু স্বীকার করে যে জালিয়াতির অভিযোগে আটককৃত ছাত্র শামস বিন শাহরিয়ার ও তার বাবাকে ড. নজরুলের নাম শিখিয়ে দেয় সে।

SHARE