ভাগ্য খুলেছে ২০ হাজার জেলের

361

বঙ্গোপসাগরের কোল ঘেঁষে বাগেরহাটের পূর্ব সুন্দরবন বিভাগের দুবলার চরসহ ৫টি চরে চলছে শুটকি উৎপাদন। আবহাওয়া অনুকূলে ও জলদস্যুদের উৎপাত না থাকায় এবার কাঙ্ক্ষিত পরিমাণে শুটকি উৎপাদন হয়েছে। ফলে এ খাত থেকে গত বছরের তুলনায় এ বছর অধিক রাজস্ব আদায় হবে বলে আশা করছে বনবিভাগ।

সুন্দরবন উপকূলে দুবলার চরসহ ৫টি চরে গত অক্টোবর থেকে শুরু হয় শুটকি আহরণ মৌসুম। চলবে মার্চ মাস পর্যন্ত। তাই মাছ আহরণ থেকে শুরু করে শুকানোর কাজে দম ফেলার ফুরসত নেই জেলেদের।

বন বিভাগের অনুমোদন নিয়ে ডিপো মালিক, বহরদারসহ প্রায় ২০ হাজার জেলে শত শত ট্রলার ও নৌকায় মাছ আহরণ করছেন। জেলেরা বলছেন, এবার সমুদ্রে ডাকাতদের উৎপাত না থাকা ও আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় গেল বছরের তুলনায় এবার বেশি মাছ আহরণ সম্ভব হয়েছে। লইট্যা, ছুড়ি, চ্যালা, ভেটকি, কোরাল, চিংড়ি, রূপচাঁদা, কঙ্কন, মেদসহ বিভিন্ন প্রকার সামুদ্রিক মাছ শুকিয়ে শুটকি উৎপাদন করা হয়।

জেলে ও মহাজনরা বলছেন, ভোলা মাছ, ছুরি মাছ, খয়রা মাছসহ ইত্যাদি মাছ ধরা পড়ে। মাছ ধরার জন্য প্রায় ৩০ থেকে ৪০ হাজার জেলে আছে। এবছর ডাকাতের তেমন সমস্যা না থাকায় এবার মাছ ধরা ভালো হচ্ছে। এবার মাছও বেশি ধরা পড়ছে। এ বছর কাঙ্ক্ষিত পরিমাণ শুটকি উৎপাদনে খুশি দুবলা ফিশারম্যান সমিতির এ নেতা।

দুবলা ফিশারম্যান গ্রুপের সাধারণ সম্পাদক কামাল উদ্দিন আহমেদ বলেন, এবার ঝড়-বৃষ্টি হয়নি। ফলে জেলেদের কোনো মাছ নষ্ট হয়নি। এবছর আমাদের শুটকির উৎপাদন অনেক ভালো।

খুলনা অঞ্চলের বন সংরক্ষক আমীর হোসাইন চৌধুরীর আশা জেলেরা নির্ভয়ে মাছ ধরতে পারায় গত কয়েক বছরের চেয়ে অধিক রাজস্ব আদায় হবে এবার।

তিনি বলেন, বিগত সময়ে দুবলার চর থেকে শুটকির মাধ্যমে যে রাজস্ব আয় হয়েছে, গত দুই তিন বছরের চেয়ে এবার বেশি রাজস্ব আদায় হবে।

এ মৌসুমে সুন্দরবনের ৫টি চরে ৩৮ জন ডিপো মালিকের অধীনে ৮৭০টি জেলে ঘরে মাছ শুকিয়ে শুটকি উৎপাদন করা হচ্ছে।

SHARE