ভালোবাসায় চাই বিশ্বস্ততা

113

।। দেশরিভিউ, বিনোদন ডেস্ক ।।

ভালোবাসায় চাই বিশ্বস্ততা
নাছরিন সুলতানা শিমু

প্রেম কতটা কতটা পেলাম—সেটাই একমাত্র বিবেচ্য নয়। তার চেয়েও বড় কথা, আমি কতটা ভালোবাসলাম।’ কবি জর্জ এলিয়টের এই কথা সেই দিনে মনে পড়বে সবারই।
ও প্রেম করতে দুই দিন ভাঙতে এক দিন, এমন প্রেম আর কইরো না দরদি—এই লোকগানে প্রেমিক-প্রেমিকার ভালোবাসার সম্পর্কে যেকোনো শঠতা-হঠকারিতার অবকাশ নেই, তা স্পষ্টই বলা হয়েছে। বলা হয়, প্রেম কিংবা ভালোবাসা আসে স্বর্গ থেকে। এই স্বর্গীয় বিষয়কে হেলাফেলা করা ঠিক হবে না। বরং এর পবিত্রতাকে কীভাবে রক্ষা করা যায়, সে দিকে নজর দেওয়াই হবে বিবেচকের কাজ।
প্রেমিক-প্রেমিকা হোক আর স্বামী-স্ত্রীর—সব যুগলের প্রেমের মূলমন্ত্র হচ্ছে পরস্পরের প্রতি বিশ্বাস। যত জটিলতাই তৈরি হোক না কেন, ঝড়ঝাপটা যাই আসুক—কেউ যেন বিশ্বাসচ্যুত না হয়। এই বিশ্বাস বিয়ের আগে বা পরে বলে কোনো কথা নেই। এই বিশ্বাস হবে সব সময়ের জন্য। বন্ধন হতে হবে ইস্পাতদৃঢ়। সব রকমের সম্পর্কের মধ্যে থাকবে বন্ধুসুলভ সমঝোতা। বন্ধুত্ব হবে পানির মতো টলটলে পরিষ্কার।

ভালোবাসার কয়েকটি সূত্র
* একে অন্যের শক্তিগুলোকে মূল্যায়ন করুন। সঙ্গীকে যথাসাধ্য বুঝুন। তার দুর্বল দিকগুলো সহানুভূতির সঙ্গে দেখুন। সেগুলো যেন তার বোঝা না হয়। সেসব শুধরে নিতে তাকে শক্তি-সাহস নৈতিক বল জোগান দিন।
* যেখানে যেমন যতটা সম্ভব আপনার ভালোবাসাকে প্রকাশ করুন।

* ভারসাম্যহীন হবেন না। মাত্রাজ্ঞান কাম্য। ভালোবাসা দেওয়া, পাওয়া, নেওয়া—সব ক্ষেত্রেই।

* ভালোবাসার আকুতি শুধু যে শুনবেন তা নয়; আকুতি জানাবেনও।
* সততা ও বিশ্বাস হচ্ছে ভালোবাসার পরম সম্পদ। এটাই প্রেমের ভিত্তিপ্রস্তর।

বিয়ের আগে

বিয়ের আগে প্রেমে পড়লে আমাদের সমাজে এর কাঙ্ক্ষিত পরিণতি হলো বিয়ে পর্যন্ত টেনে নেওয়া। নিজেদের মধ্যে বোঝাপড়া খুবই জরুরি। বিয়ের আগে বা পরে যেই সম্পর্ক হোক না কেন, বিশ্বাসে চিড় যেন কিছুতেই না ধরে সেদিকে লক্ষ রাখতে হবে।

ভালোবাসার গভীরতাগুলো দাম্পত্যজীবনের জন্য রেখে দেওয়াই বুদ্ধিমানের কাজ।

ভালোবাসার সম্পর্ককে গোপন করা ঠিক নয়। পারস্পরিক দেখা, গল্পগুজব, কোথাও একসঙ্গে খাওয়া, অংশগ্রহণ।

বিয়ের পরে

পরস্পরকে যথাযথ সম্মান দিতে হবে। দোষত্রুটি শোধরানোর চেষ্টা করতে হবে। দোষত্রুটি ধরিয়ে না দিয়ে শুধুই খোঁটা দেওয়াটা কাম্য নয়। সঙ্গীর ত্রুটি সংশোধনের ক্ষেত্রে দৃষ্টিভঙ্গি ইতিবাচক হতে হবে।

* নিজের ত্রুটিগুলো সংশোধনে সদিচ্ছা থাকতে হবে। পারস্পরিক লাভক্ষতি মেনে নিয়ে নতুন সম্পর্কের প্রেমময় রূপ দিতে হবে। টিভি সিরিয়ালে শুধু কূটচালই দেখায় না। সংসারকে সুন্দর করে কীভাবে গ্রোথিত করা যায় তাও দেখানো হয়। স্বামী-স্ত্রীর এই ইউনিটকে একান্তভাবে নিজেদের করেই ভাবতে হবে। পিছুটান থাকবেই, কিন্তু এই ইউনিটের ইউনিটির দিকে নজর দেওয়া হবে বুদ্ধিমানের কাজ।
* সন্দেহ হলো মনের বিষ। কানকথায় কান দেওয়া চলবে না।

* সঙ্গীর মীমাংসিত অতীত কোনো জটিলতা নিয়ে জীবন যাপনের ধারাবাহিকতাকে তিক্ত ও বিষময় যেন না করে।
* ভ্যালেন্টাইন জুটি হিসেবে সেই দম্পতিই আদর্শ, একে অপরের সীমাবদ্ধতা, ত্রুটিকে যারা নিজেদের মধ্যে রাখে এবং শোধরাতে তৎপর।

 

 

SHARE