মঙ্গলবার বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের প্রতিরোধ যোদ্ধা মৌলভী সৈয়দের মৃত্যুবার্ষিকী

316


।।দেশরিভিউ সংবাদ।।
মঙ্গলবার (১১ জুলাই) জাতির জনক বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের পর অন্যতম প্রতিরোধ যোদ্ধা, মুক্তিযুদ্ধকালীন চট্টগ্রাম শহরের গেরিলা বাহিনীর প্রধান শহীদ মৌলভী সৈয়দের মৃত্যুবার্ষিকী।

বাঁশখালীর প্রত্যন্ত অঞ্চলে মাদ্রাসা থেকে আলেম পাশ করে মৌলভী সৈয়দ চট্টগ্রাম শহরে এসে সিটি কলেজে ভর্তি হয়েছিলেন।  ছাত্রলীগের রাজনীতিতে জড়িয়ে পৌঁছেছিলেন নেতৃত্বের কাতারে।  ১৯৭১ সালের মার্চে ‘জয় বাংলা স্বেচ্ছাসেবক বাহিনী’ গঠিত হয়েছিল, যার নেতৃত্বে ছিলেন মৌলভী সৈয়দ এবং প্রয়াত এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী। মৌলভী সৈয়দ একাত্তরে নৌকমান্ডোদের দুঃসাহসিক অপারেশন জ্যাকপটের অন্যতম কমান্ডার ছিলেন।  গেরিলা কমান্ডার হিসেবে রনাঙ্গনে ছিল তার বীরত্বপূর্ণ ভূমিকা।


‘৭৫ সালে বঙ্গবন্ধু হত্যার পর তিনি বদলা নেওয়ার জন্য প্রতিরোধ যুদ্ধে অবতীর্ণ হয়েছিলেন। ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু হত্যার ঘটনা তিনি মেনে নিতে পারেনি। ঘোষনা দিয়েছিলেন প্রতিশোধ নেবার। মহিউদ্দিন চৌধুরীসহ বেশ কয়েকজন মিলে গোপন মিশন শুরু করে। প্রথমে তা প্রতিবাদের মিশন। পরে ঝটিকা মিছিল করল। চট্টগ্রামে কয়েকটি থানায় আক্রমণও করে তারা। ১৯৭৫ সালের ৩ নভেম্বর খালেদ মোশাররফের সামরিক অভ্যুত্থান হলে ৭ নভেম্বর পাল্টা সামরিক অভ্যুত্থানে খালেদ মোশাররফ নিহত হলেন। পরিস্থিতি পুরোপুরি প্রতিকূলে চলে গেলে চট্টগ্রামে ষড়যন্ত্র মামলা হল। মৌলভী সৈয়দশে এক নম্বর মহিউদ্দিন চৌধুরীকে করা হয় ২ নম্বর আসামি।

পঁচাত্তরের অক্টোবরে সামরিক আইনে গ্রেফতারের প্রায় ছয় মাস পর মুক্তি পেয়ে মহিউদ্দিন ভারতে মৌলভী সৈয়দের সঙ্গে যোগ দেন।  খুনী চক্রকে সশস্ত্র প্রতিরোধের প্রশিক্ষণ চলছিল।
১৯৭৭ সালের মাঝামাঝিতে ভারতের রাজনৈতিক দৃশ্যপট পাল্টে যায়। প্রশিক্ষণরত নেতাকর্মীদের অনেককে পুশ ব্যাক করে ভারত। এতে সশস্ত্র প্রতিবাদের পরিকল্পনায় ছেদ পড়ে।  ‘১৯৭৭ সালের ৬ আগস্ট সৈয়দসহ কয়েকজনকে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী আটক করে ময়মনসিংহ বর্ডার দিয়ে পুশ ব্যাক করে। বাংলাদেশের সীমানায় আসার সঙ্গে সঙ্গে আটক করা হয় । পরে তাদের ঢাকা ক্যান্টনমেন্টে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে সেনাবাহিনী মৌলভী সৈয়দের উপর অত্যাচার করে হত্যা করে।’

ত্যাগ, সততা ও আদর্শে বলীয়ান হয়ে মৌলভী সৈয়দ নিজের জীবনকে উৎসর্গ করেছিলেন। শত নির্যাতন-প্রলেভনে খুনি চক্রের কাছে তিনি মাথা নত করেননি। শহীদ মৌলভী সৈয়দ মুজিবাদর্শের কর্মীদের জন্য অন্তকাল অফুরাণ প্রেরণার উৎস হয়ে থাকবেন।

SHARE