মধুমতি নদীর উপর চাপাইল ব্রিজে ‘বাতি আছে আলো নেই’

133

।।সাজিদুল ইসলাম শোভন, নড়াইল।।

নড়াইলের কালিয়া উপজেলার মধুমতি নদীর উপর
চাপাইল ব্রিজের সড়কবাতিগুলো দীর্ঘদিন জ্বলে না। সন্ধ্যা হতেই ঘুঁটঘঁটে অন্ধকারে ডুবে যায় পুরো ব্রিজটি। দীর্ঘ ১ মাস অন্ধকারাচ্ছন্ন থাকাকালে প্রায় প্রতিদিন ঘটছে নানা দূর্ঘটনা।

জানা গেছে কালিয়া এবং গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার সেতুবন্ধনকারী এ ব্রিজটি গোপালগঞ্জ এবং কালিয়া উপজেলায় বেড়াতে আসা অতিথীদের সময় কাটানো আর আড্ডা দেবার স্থান হিসেবেও ব্যাপক পরিচিতি লাভ করেছিলো। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সে “চাপাইল ব্রিজ” নামে প্রায় শত কোটি
টাকা ব্যয়ে ব্রিজিটি নির্মান করার পর ২০১৬ সালের ৩০ এপ্রিল উদ্বোধনের করেছিলেন। অথচ উদ্বোধনের মাত্র তিন বছর যেতে না যেতেই অন্ধকারে নিমজ্জিত হয়ে পড়েছে ব্রিজটি।

উপজেলা বসবাসকারীদের কাছে খুবই স্বাচ্ছন্দের জায়গা হয়ে ওঠা ব্রিজটির অধিকাংশ সড়ক বাতি র্দীর্ঘদিন
ধরে অকেজো হয়ে রয়েছে। গোপালগঞ্জ এলজিইডি এর তত্বাবধানে পরিচালিত এ ব্রিজটিতে সড়কবাতি না জ্বললেও ঐ প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাদের এ নিয়ে মাথাব্যাথা নেই।

অথচ মধুমতি নদীর উপর নির্মিত দৃষ্টিনন্দন এ ব্রিজটিতেই একসময় বিকেল থেকে রাত পর্যন্ত পরিবার পরিজন, বন্ধু বান্ধব এবং নিজের প্রিয় মানুষটিকে নিয়ে অনেকেই আসেন ব্যস্ত সময়ের মাঝে কিছুটা আড্ডা আর নির্মল বাতাস উপভোগ করতে।

স্থানীয়দের অভিযোগ সড়কবাতি বিকল হয়ে যাওয়ায় রাতের সেই মনোমুগ্ধকর দৃশ্য উপভোগ করা থেকে বঞ্চিত হতে হচ্ছে দর্শনার্থীদের। বন্ধুদের সাথে বেড়াতে আসা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থী আব্দুল্লাহ আল রুমি বলে, আগে রাতে বাতির আলোয় ব্রিজে একটা মনোরম
পরিবেশ ছিলো সেটি এখন আর চোখে পড়ে না। পরিবার পরিজন নিয়ে বোড়াতে আসা মোঃ বাইজিদ মোল্লা, আকিবুর রহমান অভি, মাহিন চৌধুরী সহ কয়েকজনের সাথে কথা বলে জানা যায়, সড়ক বাতি না জ্বলায় এখন সন্ধ্যা হলে ব্রিজটি অন্ধকারাচ্ছন্ন হয়ে থাকায় নিরাপত্তার ঝুকি বেড়েছে অনেক। এমনকি বেপরোয়া হয়ে উঠেছে মাদকসেবীরা, ছিনতাইয়ের মতো ঘটনা ঘটেছে।ফুটপাত দিয়ে হাটতেও ভয় পায় দর্শনার্থীরা।

ব্রিজের এক বাদাম বিক্রেতা জিল্লাল মোল্লা বলে, ১ বছর আগে থেকে সড়কের বাতিগুলি ময়লা পড়ে অল্প অল্প জ্বলত, কিন্তু এখন তো একদমই জ্বলছে না। সড়কবাতি না জ্বলার ফলে এখন ব্রিজে তেমন লোকজন আসে না।

এব্যাপারে গোপালগঞ্জ এলজিইডি এর নির্বাহী প্রকৌশলী এ কে এম ফজলুল হক এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, সরকারি কোন বরাদ্দ না থাকার কারনে ঐ সড়কবাতিগুলি মেরামত করা সম্ভব হচ্ছেনা। তবে তিনি বিষয়টি জানেন এবং সমাধানের চেষ্টা করবেন বলে জানান।

SHARE