মনোনয়ন দৌড়ে নাটকীয় মোড়, হাইকমান্ডের আলোচনায় তুফান

548

।দেশরিভিউ সংবাদ।

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়নের বিষয়টি সময়ের সাথে সাথে নাটকীয় মোড় নিচ্ছে। দলীয় হাইকমান্ডের প্রথম পছন্দ হিসাবে মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলে নাম থাকলেও তিনি চট্টগ্রামের মেয়র নির্বাচনে অংশ নিতে ব্যক্তিগত অনাগ্রহের কথা বিভিন্ন মাধ্যমে প্রকাশ করেছেন। নওফেলের অনাগ্রহের পর মনোনায়ন দৌড়ে বর্তমান মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিনের সাথে সমান তালে পাল্লা দিয়ে যাচ্ছেন সাবেক সিডিএ চেয়ারম্যান ও দলটির নগর কমিটির অর্থ সম্পাদক আবদুচ ছালাম। চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি খোরশেদ আলম সুজনের নামও দলের হাইকমান্ড নজরে প্রথম থেকে আছে। এছাড়াও গত কয়েকদিনে দলীয় মনোনয়ন কিনে সাবেক বৈদেশিক কর্মসংস্থান ও প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি, নগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম চৌধুরী নিজেদের আলোচনায় আনেন।

অন্যদিকে মনোনয়ন পত্র না কিনলেও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার কাছে বিভিন্নভাবে নিজেদের নাম প্রস্তাব আঁকারে পাঠান চট্টগ্রাম বন্দর আসনের এমপি এম এ লতিফ ও সিটি কর্পোরশনের সাবেক মেয়র এম মনজুরুল আলম। দলটির নেতাদের এ মনোনয়ন দৌড়ে আগেই যুক্ত ছিলেন চিটাগাং চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রির সভাপতি মাহবুবুল আলম। সর্বশেষ গত কয়েকদিনে যুক্ত হয়েছে আরো একঝাঁক ব্যবসায়ীর নাম। এ তালিকায় সর্বোচ্চ আলোচনায় ছিলেন সদ্য একুশে পদক পাওয়া সুফি মিজানুর রহমান। চট্টগ্রাম চেম্বার অব কমার্সের ডিরেক্টর এস এম আবু তৈয়ব, এফবিসিসিআই ও চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন চেম্বারের পরিচালক সৈয়দ নুরুল ইসলাম নুরু ছাড়াও এশিয়ান গ্রুপের চেয়াম্যান এম, এ সালামের নাম।

তবে বুধবার থেকে মনোনয়নের হিসাব নিকাশ পাল্টাতে শুরু করে। এদিন দুপুর থেকে মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক ও বঙ্গবন্ধুর মন্ত্রিসভার সদস্য জহুর আহমদ চৌধুরীর সন্তান হেলাল উদ্দিন চৌধুরী তুফানের নামও মনোনয়ন বোর্ড বিবেচনায় আনছেন। হেলাল উদ্দিন চৌধুরী তুফান বিজেএমইএর সাবেক পরিচালক ছিলেন। এছাড়াও নগর যুবলীগের আহবায়ক কমিটির সদস্যের দায়িত্বে ছিলেন বর্তমান ব্যবসায়ী এ নেতা।

জানা গেছে, এরইমধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে সাক্ষাত করে মনোয়নপত্র কেনার অনুমতি নেন তিনি। তুফানের পারিবারিক সূত্র বলছে, প্রধানমন্ত্রীর সাড়া পেয়ে বুধবার গোপনীয়তা বজায় রেখে ধানমন্ডির কার্যালয় থেকে মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেন হেলাল উদ্দিন চৌধুরী তুফান।

অন্যদিকে আওয়ামী লীগের দলীয়সূত্রে জানা গেছে, বঙ্গবন্ধুর অতি ঘনিষ্টজন জহুর আহম্মদ চৌধুরী পরিবারের প্রতিনিধি হিসাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে দীর্ঘ কয়েকদশক যোগাযোগ রেখে আসছিলেন হেলাল উদ্দিন চৌধুরী তুফান। একারনে প্রধানমন্ত্রীর সাথে হেলাল উদ্দিন চৌধুরী তুফানের ঘনিষ্ঠতা ব্যাপক।

উল্লেখ্য জহুর আহমদ চৌধুরী স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম মন্ত্রিসভায় শ্রম ও সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পালন করেন। জহুর আহম্মদ চৌধুরী পরিবারের বড় ছেলে সাইফুদ্দিন খালেদ চৌধুরী মুক্তিযুদ্ধে শহীদ হন। দ্বিতীয় ছেলে মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী বর্তমান নগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্বে রয়েছেন। আর তৃতীয় ছেলে হেলাল উদ্দিন চৌধুরী তুফান বিজেএমইএ-তে সাবেক পরিচালক ছিলেন। চতুর্থ ছেলে সরফুদদ্দিন চৌধুরী রাজুও চট্টগ্রামের আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে মোটামুটি অংশগ্রহণ করতে দেখা যায়।

SHARE