মহান স্বাধীনতা দিবসে ‘করোনা যুদ্ধ’ জয়ের শপথ

175


।।দেশরিভিউ সংবাদ।।

আজ মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস। আজ বাঙ্গালির ২৬ মার্চ। দিনটি বাঙালি জাতির জীবনে অনন্যসাধারণ একটি দিন।

১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ কালরাতে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী স্বাধিকারের দাবিতে জেগে ওঠা নিরীহ বাঙালির ওপর চালিয়েছিল নির্মম হত্যাযজ্ঞ। এমন সময়ে বাঙ্গালির অবিসাংবাদিত নেতা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান গ্রেপ্তারের আগমুহূর্তে ২৬ মার্চের প্রথম প্রহরে আনুষ্ঠানিকভাবে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করেন।

প্রতিবছর স্বাধীনতার ঘোষণা ও মুক্তিযুদ্ধের সূচনার এই সময়টি সমগ্র জাতি নিবিড় আবেগের সঙ্গে স্মরণ করে। তবে এবারের স্বাধীনতা দিবসের স্বাদ সম্পূর্ন অপরিচিত।

সারাবিশ্বের মতো নভেল করোনাভাইরাস আজ বাংলাদেশেও আঘাত হেনেছে। প্রচুর প্রানহানীর শংকা থেকে স্বাধীনতা দিবসের সব কর্মসূচী বাতিল করেছে সরকার।

স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে বুধবার (২৫ মার্চ) সন্ধ্যায় দেয়া ভাষণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা করোনা পরিস্থিতি নিয়ে সরকারের অবস্থান তুলে ধরেন। শেখ হাসিনা বলেন, করোনায় পুরো বিশ্ব অনিশ্চয়তায় রয়েছে তবে কঠিন যে কোনো পরিস্থিতি মোকাবিলায় সরকার প্রস্তুত রয়েছে।

করোনা মোকাবিলাকে একটি যুদ্ধ উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতির উদ্দেশ্যে দেয়া ভাষণে বলেছেন, এ যুদ্ধে ঘরে থাকাই প্রত্যেকের দায়িত্ব।

একাত্তরের ২৫ মার্চের মৃত্যুর বিভীষিকা থেকে এক হয়ে মাথা তুলে দাঁড়িয়েছিল দেশের মানুষ। ওই দিন দিবাগত রাতেই (একাত্তরের ২৫ মার্চ) গ্রেপ্তার হন বঙ্গবন্ধু। তার আগেই বার্তা পাঠিয়ে দেন স্বাধীনতার ঘোষণার। এরপর গঠিত হয় প্রবাসী সরকার। তাদের নেতৃত্বে সংগঠিত রূপ নেয় মুক্তিযুদ্ধ। নয় মাসের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে ৩০ লাখ মানুষের আত্মদান, ৩ লাখ নারীর সম্ভ্রম আর বিপুল ক্ষয়ক্ষতির মধ্য দিয়ে অর্জিত হয় বিজয়। পৃথিবীর মানচিত্রে অভ্যুদয় ঘটে স্বাধীন বাংলাদেশের।

স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে পৃথক বাণী দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
রাষ্ট্রপতি তাঁর বাণীতে দেশবাসীসহ প্রবাসী বাংলাদেশিদের আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানান। রাষ্ট্রপতি বলেন, বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের মহাসড়কে অপ্রতিরোধ্য গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। উন্নয়নকে জনমুখী ও টেকসই করতে সুশাসন, সামাজিক ন্যায়বিচার, স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি নিশ্চিত করতে হবে।

বাণীতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, লক্ষ প্রাণের বিনিময়ে অর্জিত স্বাধীনতা বাঙালি জাতির শ্রেষ্ঠ অর্জন। এই অর্জনকে অর্থবহ করতে সবাইকে মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত ইতিহাস জানতে হবে। প্রধানমন্ত্রী মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে দেশের সব নাগরিক এবং প্রবাসী বাংলাদেশিদের আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানান।

SHARE