মহিউদ্দিন চট্টগ্রামকে মন-প্রাণ দিয়ে ভালোবাসতেন, চট্টগ্রামই ছিল তার ধ্যান-জ্ঞান

407


ড. অনুপম সেন
খ্যাতনামা সমাজবিজ্ঞানী, শিক্ষাবিদ ও লেখক।
উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ।
উপাচার্য, প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়।

ছোট্ট পরিসরে মহিউদ্দিন চৌধুরীকে নিয়ে কি লেখা সম্ভব! তার জীবন ও কর্মপঞ্জির খতিয়ান তো অনেক বিস্তৃত। আমি তাকে চিনি সেই ষাটের দশক থেকে। বাঙালিরা ১৯৫২ সালের সফল ভাষা আন্দোলনের পর ফের পাকিস্তানের শাসক-শোষক গোষ্ঠীকে চ্যালেঞ্জ জানাতে শুরু করেছে। এ লড়াইয়ের সামনের সারিতে চট্টগ্রাম। ১৯৬৬-তে যখন সারা বাংলায় আন্দোলন তুঙ্গে, তখন এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী আমাদের এই চট্টগ্রামের রাজনীতির অঙ্গনে এক তরুণ রাজনীতিক হিসেবে ঝড় তুলতে থাকেন। বঙ্গবন্ধুর ৬ দফা নিয়ে সারা বাংলা উত্তাল। এ কর্মসূচি জনগণের মাঝে ছড়িয়ে দিতে তিনি প্রথমেই বেছে নিলেন মাস্টারদা সূর্য সেনের চট্টগ্রামকে। বীর চট্টলাকে মাস্টারদা সশস্ত্র সংগ্রাম চালিয়ে তিন দিন স্বাধীন রেখেছিলেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান চট্টগ্রামের লালদীঘি ময়দানে সভা করলেন। বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক সহযোদ্ধা চট্টগ্রামের বীর রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব এমএ আজিজ ও জহুর আহমেদ চৌধুরীর সঙ্গে তরুণ মহিউদ্দিন চৌধুরী তখনকার রাজনীতির মাঠে অন্যরকম জোয়ার সৃষ্টি করলেন। পাকিস্তানি শাসকদের রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে তারা অসম সাহসে এগিয়ে যান। এ সময়ে তরুণ মহিউদ্দিন চৌধুরীর রাজনৈতিক বিচক্ষণতা, দূরদর্শিতা চোখে পড়তে থাকে। তারপর থেকে ধীরে ধীরে তিনি রাজনীতির মঞ্চে পরিণত থেকে পরিণততর হতে থাকেন। মুক্তিযুদ্ধ পর্বে তার অসীম বীরত্বপূর্ণ অবদানের কথা নতুন করে স্মরণ করিয়ে দেওয়ার প্রয়োজন নেই। তার জীবনের অন্যতম অধ্যায় ওই পর্ব।

পঁচাত্তরে সপরিবারে বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের পর নানাভাবে প্রতিবাদকারীদের মধ্যে তিনি ছিলেন সামনের সারিতে। তার রুখে দাঁড়ানোর প্রত্যয়টা ছিল ভিন্নতর। তখন মৌলভী সৈয়দ ছিলেন চট্টগ্রামে ছাত্রলীগের সভাপতি, সম্পাদক ছিলেন মহিউদ্দিন চৌধুরী। সভাপতিকে তখন অপশক্তি আটক করে মেরে ফেলে। মহিউদ্দিন চৌধুরী কোনোরকমে জীবন নিয়ে পালিয়ে যান ভারতে। কলকাতায় তিনি চা বিক্রি করেছেন এবং ওই অবস্থায়ও বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রতিবাদ চালিয়েছেন ভিন্নভাবে, কায়দা-কৌশলে। জিয়াউর রহমান ও এইচএম এরশাদের সামরিক শাসনামলে প্রতিটি গণতান্ত্রিক-সাংস্কৃতিক আন্দোলন-সংগ্রামে এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী ছিলেন প্রথম কাতারে। এ জন্য তাকে নিপীড়ন-নির্যাতনও কম সহ্য করতে হয়নি। প্রতিটি অগণতান্ত্রিক সরকারের শাসনামলে তাকে জীবন বিপন্নের মুখোমুখি হতে হয়েছে। তবুও তিনি তার আদর্শচ্যুত হয়ে অন্যায়ের কাছে মাথা নত করেননি। তিনি ছিলেন আপসহীন লড়াকু একজন সৈনিক। তিনি প্রতিটি সংগ্রামে জনগণকে সম্পৃক্ত করেছেন এবং তারা ছিলেন সর্বদা তার পাশে। ১৯৯৬ সালের মার্চ মাসের আন্দোলনের কথা আমরা স্মরণ করতে পারি। খালেদা জিয়া সরকার তাকে গ্রেফতার করায় গোটা চট্টগ্রাম বিদ্রোহে ফেটে পড়েছিল। এত বিদ্রোহ কখনও দেখেনি কেউ- এটাই ছিল সবচেয়ে বড় সত্য। প্রিয় নেতার মুক্তির দাবিতে জনগণ সবকিছু বন্ধ করে দিয়েছিল।

চট্টগ্রামের উন্নয়ন-অগ্রগতির প্রতিটি ক্ষেত্রে তার ছোঁয়া রয়েছে। প্রথমবার নির্বাচিত হয়েছিলেন বিএনপির শাসনামলে। দলমতের ঊর্ধ্বে উঠে তিনি কাজ শুরু করেন। চট্টগ্রামকে পরিণত করেন রম্য নগরী চট্টলায়। সিটি মেয়রের পদ থেকে তিনি সরে যাওয়ার পর অনেক উন্নয়ন কর্মকাণ্ডই থেমে আছে। যেভাবে এগোচ্ছিল তা থমকে গেছে। চট্টগ্রামের অনেক কিছুই তো তার অবদান। মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলা, বৃক্ষমেলা, বহুবিধ সাংস্কৃতিক ও শিক্ষামূলক কর্মকাণ্ড অনেক কিছুই তার সৃজনকৃত। শিক্ষা ও স্বাস্থ্যসেবা খাতে তার অবদান অনেক বিস্তৃত। নাগরিক সেবা প্রসারে তিনি ছিলেন উদ্যমী। প্রতিটি ক্ষেত্রেই কাজ করে গেছেন অফুরান প্রাণশক্তি নিয়ে। তিনি নিজ প্রচেষ্টা ও অন্যদের নিয়ে চট্টগ্রামে প্রতিষ্ঠিত করে গেছেন একটি উন্নতমানের বিশ্ববিদ্যালয়। এই বিশ্ববিদ্যালয়টি অনন্য একটি উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠান, যার নাম প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়। এটি আমাদের গর্ব করার মতো। এই বিশ্ববিদ্যালয়ে বেশ কিছু বিভাগ আছে, যেগুলো দৃষ্টান্তযোগ্য। চট্টগ্রামের যে লাইফ লাইন রাস্তাটি খুলশী অর্থাৎ ঢাকার সঙ্গে চট্টগ্রামের যোগাযোগের রাস্তা, সেটি করতে তাকে ব্যাপক প্রতিকূলতা-প্রতিবন্ধকতার মুখোমুখি হতে হয়েছিল। তারপরও তিনি সফল হয়েছেন। তিনি ছিলেন উন্নয়ন ও সেবার প্রতীক। তার অবদান যেদিকে তাকাব, সেদিকেই দেখব আমরা। ছাত্রজীবন থেকেই তার সংগ্রামী জীবনের সূচনা। তার বলিষ্ঠ নেতৃত্বের জন্য তিনি সারাদেশে পরিচিতি পেলেও সব সময় নিজেকে চট্টগ্রামের রাজনীতির গণ্ডিতেই ধরে রেখেছেন। কারণ তার কাছে চট্টগ্রামই ছিল ধ্যান-জ্ঞান। তিনি চট্টগ্রামকে মন-প্রাণ দিয়ে ভালোবাসতেন। মহিউদ্দিন চৌধুরীর মতো রাজনীতিকরা যুগে যুগে জন্মান না। তাকে বলা হতো চট্টলবীর। রাজনীতিক ও একজন জনপ্রতিনিধি হিসেবে বরাবরই জনগণের সেবক হিসেবে কাজ করে গেছেন। কী করেননি তিনি। তার স্মৃতির প্রতি জানাই গভীর শ্রদ্ধা।

SHARE