‘মহিউদ্দিন নেই’ অলি খাঁ মসজিদে চালু আছে গণ-ইফতার

4741

।দেশরিভিউ-চট্টগ্রাম।  

সারিবদ্ধভাবে বসে আছেন শত শত রোজাদার মুসল্লি। কেউ তসবিহ পাঠ করছেন, কেউ বা দোয়া-দরুদ পাঠে মশগুল।

তাদের পাশেই ইফতারের প্লেট সাজাতে ব্যস্ত কিছু মুসল্লি। পেঁয়াজু, চনা, বেগুনি, ছোলা, জিলাপিসহ হরেক রকমের ইফতার দিয়ে প্লেট সাজাচ্ছেন তারা। সাথে রয়েছে ঠাণ্ডা শরবতের সারি সারি গ্লাস।

মিনিট দশেকর মধ্যেই এসব প্লেট একটি একটি করে সব মুসল্লির হাতে পৌঁছে দেওয়ার তাড়া। মুসল্লিদের কাতারে দিনমজুর যেমন রয়েছে তেমনি

আছেন ধনাঢ্য ব্যবসায়ী। তবে নেই কোনো ভেদাভেদ। ক্লাবের অন্য ইফতার মাহফিলের মতো নেই কোনো হইচই কিংবা বিশৃঙ্খলা। একই রকমের ইফতার দিয়ে আপ্যায়িত করা হচ্ছে সবাইকে।

এ দৃশ্য নগরের ঐতিহ্যবাহী  নবাব ওয়ালী বেগ খাঁ জামে মসজিদে।

গত বৃহস্পতিবার (৯ মে) ইফতারের আগে কয়েকজন ইফতার করা মুসল্লিদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায় এই গণ ইফতারের আয়োজন এই মসজিদে ছিল না। এটা চালু করেন প্রয়াত মেয়র আলহাজ্জ্ব এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী। তিনি ২০১৫ সালে প্রথমে প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয় অফিস থেকে রান্না করে কয়েক শত রোজাদার মুসল্লিদের অপ্যায়িত করাতেন। সেই থেকে এই ইফতার চালু রেখেছে মুসল্লি পরিষদ। তিনি নেই তারপরও তার দেখানো ও শিক্ষানো আদর্শ ধরে রেখেছে মুসল্লি পরিষদের নেতৃবৃন্দ।

এখন এই মসজিদে প্রায় প্রতিদিন সাড়ে চারশ থেকে পাঁচশত জন রোজাদার ইফতার করে।

ইফতার সরবরাহ করতে ৬জন খাদেম এবং রান্না করতে ৩ জন বাবুর্চি রমজান মাসজুড়ে কাজ করেন বলে জানা যায়।

ইফতার করতে আসা থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আনসারুর হক জানান, আমাদের বিশ্বাস বেশি মানুষ একসঙ্গে বসে ইফতার করলে নেকী বেশি। তেমনি সবাই মিলে আল্লাহর কাছে দোয়া করলে তিনি অব্যশই কবুল করবেন।

এই ব্যাপারে মুসল্লি পরিষদের উপদেষ্ঠা ও থানা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মুহাম্মদ নাজিম উদ্দীন বলেন, আমাদের প্রিয় নেতা চট্টলবীর মরহুম আলহাজ্জ্ব এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরী এই মসজিদে সভাপতির দায়িত্ব নেওয়ার পর রমজান মাসে মাসব্যাপী ইফতারের আয়োজন শুরু করেন, তারই ধারাবাহিকতায় এখন প্রতি বছর ইফতারের আয়োজন করা হচ্ছে, ইনশাল্লাহ তা বজায় থাকবে। উনি নেই কিন্তু উনার ছায়া আমাদের মাঝে আছে, আল্লাহ আমাদের এই প্রিয় নেতাকে জান্নাত নসীব করেন এই দোয়া করি।

SHARE