‘মহিউদ্দিন শূন্য চট্টলার ভাগ্যলক্ষী নওফেল’

66

আসন্ন একাদশ সংসদ নির্বাচনে বন্দরনগরী চট্টগ্রামের সর্বোচ্চ চমকপ্রদ প্রার্থী হচ্ছেন ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল। আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ব্যারিষ্টার নওফেল হচ্ছেন বর্ষীয়ান আওয়ামী লীগ নেতা ও চট্টগ্রামের টানা তিনবারের সাবেক মেয়র প্রয়াত এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরীর বড় ছেলে।

আগামী ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে তিনি প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন চট্টগ্রামের সবচেয়ে ‘ভিআইপি – মর্যাদাপূর্ণ ও সৌভাগ্যের’ আসন হিসেবে পরিচিত নগরের কোতোয়ালী-বাকলিয়া (চট্টগ্রাম-৯) আসনে।

ঐতিহাসিকভাবে চট্টগ্রাম আওয়ামী লীগের রাজনীতি অনেক তাৎপর্য বহন করে। যুগে যুগে চট্টগ্রামের মাটি থেকে জন্ম নিয়েছিলো ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনের নেতৃত্ব দেওয়া শত শত বিপ্লবী, অগ্নিকন্যারা। ভাষা আন্দোলন, স্বাধীকার আদায়ের দীর্ঘ আন্দোলন, সম্মুখ মুক্তিযুদ্ধ, বঙ্গবন্ধু হত্যা পরবর্তী প্রতিরোধ যুদ্ধ, স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনের সবটুকুতেই চট্টগ্রাম ছিলো টার্নিং ল্যান্ড। মহান মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক জহুর আহমেদ চৌধুরী, এম এ আজিজ, এম এ হান্নানদের যুগের অবসান হলে চট্টগ্রামের রাজনীতিতে দীর্ঘদিন হাল ধরে রেখেছিলেন, এম এ মান্নান, আকতারুজ্জামান চৌধুরী বাবু, এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরীর মতো বর্ষিয়ান নেতারা। কিন্তু গত বছরের ১৬ ডিসেম্বর এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরী জীবনবসান হওয়ার পর চট্টলার রাজনীতিতে বিগত একটি বছর কোন প্রানউচ্ছাস দৃশ্যমান হয়নি। চশমা হিলের বাড়ির মতো শহরের রাজনীতিতে ছিলো না কোন পুরানো জৌলুশ। এমন শুষ্ক রাজনৈতিক মৌসুমে আকস্মিকভাবে মনোনয়ন পেলেন ব্যারিষ্টার নওফেল। এই আসনে এক প্রকার মনোনয়ন নিশ্চিত ছিলো জাতীয় পার্টি নেতা মহাজোটের শীর্ষ কৌশলী বর্তমান এমপি জিয়াউদ্দিন বাবলু। যাকে  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবার দায়িত্ব নিয়ে নির্বাচনের টিকেট দিলেন রংপুরের একটি আসনে। নওফেলের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর এমন আস্থা দেখে বিস্মিত হয়েছেন অনেকে। অনেকেই প্রকাশ্যে বলছেন ‘মহিউদ্দিনশূন্য চট্টগ্রামে ভাগ্যলক্ষী নওফেল’

আসন্ন নির্বাচন নিয়ে গত শনিবার স্থানীয় ও জাতীয় বিভিন্ন বিষয় নিয়ে গনমাধ্যমের সাথে কথা বলেছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ব্যারিস্টার মহীবুল হাসান চৌধুরী নওফেল।

নওফেল বলেন, ‘দেশের অর্থনীতির প্রাণকেন্দ্র বন্দরনগর চট্টগ্রামের সব আসন (১৬টি) নেত্রীকে উপহার দিতে চাই। নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে আমাদের দলীয়প্রধান বর্তমান প্রধানমন্ত্রী চট্টগ্রামের লালদিঘি মাঠে নির্বাচনী জনসভায় চট্টগ্রামের উন্নয়নের দায়িত্ব নিজ কাঁধে নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছিলেন। নির্বাচিত হয়ে তিনি একের পর এক মেগা প্রকল্পসহ চট্টগ্রামের উন্নয়নে অসংখ্য প্রকল্প দিয়েছেন। চট্টগ্রামে ইতোমধ্যে এক লাখ কোটি টাকার উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। এর মধ্যে অনেক বাস্তবায়ন হয়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী তাঁর প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন করেছেন।

আমরা মনে করি গত ১০ বছরে চট্টগ্রামে যে অভূতপূর্ব উন্নয়ন হয়েছে এবং সেই উন্নয়ন ও অগ্রগতির ধারা অব্যাহত রাখতে নৌকা প্রতীকেই জনগণ তাঁদের মূল্যবান ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। ’

তিনি আরও বলেন, ‘শুধু চট্টগ্রাম নয়, স্বপ্নের পদ্মা সেতুর কাজ দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলছে। চট্টগ্রামের কর্ণফুলী টানেল হচ্ছে। এ রকম অনেক বড় বড় কাজ হচ্ছে। এভাবে গত ১০ বছরে সারাদেশে ব্যাপক উন্নয়ন কাজ হয়েছে। এসব উন্নয়নের কারণে মানুষ আবার বর্তমান মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বাধীন সরকারকে ক্ষমতায় দেখতে চায়। ’

নির্বাচনী এলাকায় ভোটারদের কাছে টানতে আপনার প্রতিশ্রুতি কী-এ প্রশ্নের জবাবে নওফেল বলেন, ‘দল থেকে নির্বাচনী ইশতেহার দেওয়া হবে। আমাদের দলের ইশতেহার মানে চমক। বিগত নির্বাচনগুলোতেও যেসব ইশতেহার দেওয়া হয়েছে। সরকার গঠনের পর ইশতেহার বাস্তবায়ন করা হয়েছে। আজকে মানুষের মুখে মুখে ডিজিটাল বাংলাদেশ। আসন্ন নির্বাচনী ইশতেহারেও চমক থাকবে। ইশতেহার এ দেশের জনগণ-ভোটারদের মন জয় করবে। তবে আমি কেন্দ্রীয় ইশতেহার স্থানীয়ভাবে বাস্তবায়নের কাজ করব। ’

আপনার আসনেই ইভিএম পদ্ধতিতে সব কেন্দ্রে ভোট হবে-এ ব্যাপারে অনুভূতি জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘দেশের ৬টি আসনের মধ্যে চট্টগ্রামে আমার নির্বাচনী আসনে ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট হতে যাচ্ছে। চট্টগ্রামবাসী ইভিএমকে স্বাগত জানিয়েছে। দেশ যখন প্রযুক্তিতে এগিয়ে যাচ্ছে তখন একটি মহল এর বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে। এ দেশের মানুষ ভালো করে জানে ইভিএমকে কারা প্রশ্নবিদ্ধ করতে চাচ্ছে। যারা বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে তারা চায় না দেশ প্রযুক্তিতে এগিয়ে যাক। ইভিএম নিয়ে ভোটাররা সন্তষ্ট। এতে চিন্তার কিছুই নেই। ইভিএম নিয়ে বিরোধী জোটের অপপ্রচার ছাড়া আর কিছুই নয়। ’

প্রথমবার নির্বাচনী মাঠে, বিজয়ী হলে নির্বাচনী এলাকার পাশাপাশি চট্টগ্রামবাসীর জন্য কী পরিকল্পনা রয়েছে আপনার?-এ ব্যাপারে ব্যারিস্টার নওফেল বলেন, ‘আমার বাবা (এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরী) চট্টগ্রামে টানা তিনবার মেয়র হয়েছিলেন। প্রায় সাড়ে ১৬ বছর টানা দায়িত্ব পালনকালে আওয়ামী লীগ মাত্র ৫ বছর ক্ষমতায় ছিল। বিএনপি-জামায়াত জোট ক্ষমতায় থাকাকালে অনেক প্রতিকূলতার মাঝেও বাবাকে দায়িত্ব পালন করতে হয়েছে। কিন্তু এর মধ্যেও যে উন্নয়ন কাজ করেছেন তা আজও চট্টগ্রামবাসীর মুখে মুখে। এছাড়া অনেক বড় বড় প্রকল্প তিনি গ্রহণ করেছিলেন যেগুলোর অনেক এখন বাস্তবায়ন হচ্ছে। ’

ভোটারদের উদ্দেশে নওফেল বলেন, ‘দেশে অন্য যেকোনো সময়ের চাইতে এখন সবকিছুতেই স্থিতিশীলতা রয়েছে। উন্নয়ন ও অগ্রগতির ধারা অক্ষুণ্ন রাখতে নৌকা প্রতীকে ভোট দেওয়ার বিকল্প নেই। আজকে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন স্বাধীনতার পক্ষের শক্তির সবাই ঐক্যবদ্ধ। আ. লীগ যদি ক্ষমতায় না আসে শুধু চট্টগ্রাম নয়, সারাদেশের উন্নয়ন প্রকল্পগুলো থমকে যাবে। যেভাবে অতীতে একটি দল ক্ষমতায় আসার পর আওয়ামী লীগের আমলে গ্রহণ করা অনেক উন্নয়নপ্রকল্প বন্ধ করে দিয়েছিল। তারা আবার ক্ষমতায় আসলে দেশকে দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ন করবে। দেশকে পেছনের দিকে নিয়ে যাবে। তবে মানুষ এখন অনেক বেশি সচেতন। তাঁরা জানেন একমাত্র আওয়ামী লীগই পারে উন্নয়নে দেশকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে। ’

মহীবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বলেন, ‘আসন্ন নির্বাচনে ভোটারদের সিদ্ধান্তের ওপর নির্ভর করছে চট্টগ্রামসহ দেশের চলমান উন্নয়নের ভবিষ্যত। যদি আ. লীগ ক্ষমতায় যেতে না পারে তাহলে বর্তমানে দেশে আমাদের দল সমর্থিত যাঁরা জনপ্রতিনিধি রয়েছেন তাঁরা তো উন্নয়ন কাজ করতে পারবেন না। তাঁদেরকে কাজ করতে দেবে না। ’

নিজের প্রথম প্রার্থীতা প্রসঙ্গে নওফেল বলেন, ‘আমি সাংগঠনিক সম্পাদক হওয়ার পর নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুর সিটি নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর পক্ষে কাজ করেছি। এ ছাড়া বেশ কয়েকটি স্থানীয় সরকার ও জাতীয় নির্বাচনে আমি চট্টগ্রামে আমাদের দল সমর্থিত প্রার্থীর পক্ষে কাজ করেছি। ’

 

SHARE