মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত হত্যাকান্ড; প্রতিবাদের ঝড় চট্টগ্রামে

616

॥দেশরিভিউ-চট্টগ্রাম॥

ফেনীর সোনাগাজীতে মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফি হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে বন্দরনগরী চট্টগ্রামেও। এই খুনের বিচারের দাবিতে চট্টগ্রামে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশও অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকেলে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সামনে ‘চট্টগ্রামের সর্বস্তরের ছাত্র যুব জনতা’ ব্যানারে এই মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ ‘বোন হত্যার বিচার চাই’ ‘’ ‘জামায়াত নেতা অধ্যক্ষ সিরাজউদৌলার ফাঁসি চাই’ ইত্যাদি দাবী সম্বলিত ব্যানার প্লাকার্ড হাতে বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষের সমাগম ঘটে। মানববন্ধন থেকে বুধবার নগরীর অক্সিজেন কুয়াইশ সংযোগ সড়ক এলাকার আবু বক্বর আস-ছিদ্দিক (রাঃ) ক্বওমী মাদ্রাসায় হাবিবুর রহমান(১৪) নামের এক ছাত্রকে বলৎকার করে হত্যা করার ঘটনার বিচারও দাবী করা হয়।

যুব সংগঠক খোরশেদ আহমেদ সোহেলের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা অনুষদের ডিন শিক্ষাবিদ সেকান্দার চৌধুরী বলেন, গত ২৭ মার্চ সোনাগাজীর ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ জামায়াত নেতা এস এম সিরাজ উদদৌলা নুসরাতকে নিজের কক্ষে ডেকে নিয়ে শ্লীলতাহানি করেন। ওই ঘটনায় থানায় মামলা করে নুসরাতের পরিবার। তিনি বলেন, মামলা তুলে না নেওয়াতেই ক্ষিপ্ত হয়ে আগুনে পুড়িয়ে হত্যার চেষ্টা করা হয় নুসরাতকে।

ছাত্রনেতা এম.ইউ সোহেলের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে কোতয়ালী থানা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক হাসান মনসুর বলেন, জামায়াত নেতা ওই অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে এর আগেও অনেক শিক্ষার্থীকে যৌন নিপীড়ন করার অভিযোগ রয়েছে।

মানববন্ধনে বক্তব্য রাখতে গিয়ে  সুচিন্তা ফাউন্ডেশন চট্টগ্রাম- এর অহব্বায়ক জিন্নাত সোহানা চৌধুরী বলেন, এমন একজন ব্যক্তি কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান হলে তার হাতে কোন শিক্ষার্থীই নিরাপদ নন। শিক্ষক নামের এই যৌন নির্যাতনকারী ও জামায়াত নেতার বিচার না হলে শিক্ষার্থীরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যেতে নিরুৎসাহী হয়ে উঠবে উল্লেখ করে অবিলম্বে এর সাথে জড়িতদের বিচার দাবি করেন তিনি। এসময় জিনাত সোহানা বলেন, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক যখন মাথায় টুপি নিয়ে এমন ঘৃণ্য কাজের দায়ে কারাগারে যেতে দেখি তখন আমাদেরও লজ্জা হয়।

নুসরাতের হত্যাকারীদের অবিলম্বে বিচারের দাবি জানিয়ে চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নুরুল আজিম রনি বলেন, আমরা দেখতে পাচ্ছি বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের দ্বারা শিক্ষার্থীরা যৌন নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন। কিছুদিন পূর্বেও হাটহাজারীতে একটি প্রাইমারি স্কুলে একজন শিক্ষার্থীকে যৌন নির্যাতন করে ওই স্কুলের পিয়ন।

তিনি বলেন, আমাদের যারা শিক্ষিত করবেন ,আলোকিত করবেন, যেখানে আমরা আলোকিত হতে যাই সেই সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আজকে দুই একজন যৌন নিপীড়নকারীর জন্য ভয়ংকর আতঙ্কের জায়গায় পরিণত হয়েছে। শিক্ষক নামের দুই একজন কুলাঙ্গারের জন্য আজকে শিক্ষার্থীদের জীবন, নিরাপত্তা হুমকির সম্মুখীন হয়ে পড়েছে। গতকাল রাতেও চট্টগ্রামের একটি মাদ্রাসায় এক শিক্ষার্থীকে নির্যাতন করে হত্যা করা হয়েছে। পরে ওই শিক্ষার্থীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। অবিলম্বে শিক্ষক নামের এসব নির্যাতনকারীদের বিচারের মাধ্যমে শাস্তির দাবি জানান মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক এই নেতা।

অনুষ্ঠানে উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম বলেন, স্কুল কলেজ মাদ্রাসায় কঠোর নজরদারী করতে হবে। সরকারের পাশাপাশি আমাদেরকেও  এ বিষয়ে সোচ্চার হতে হবে।

ছাত্র যুব জনতার মানববন্ধনে

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন সাবেক কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ সদস্য নাদিম উদ্দিন, আমিনুল করিম, সরওয়ার জাহান, নগর ছাত্রলীগ উপ সম্পাদক মিজানুর রহমান,এম আর হৃদয়, ছাত্রলীগ নেতা রকিবুল ইসলাম সেলিম,বাহরাইন যুবলীগ নেতা মনির হোসেন, ছাত্রলীগ নেতা সাজিদ চৌধুরী, হুমায়ন কবির রানা, চট্টগ্রাম কলেজ সভাপতি মাহমুদুল করিম,ওমর গনি এমইএস কলেজ ছাত্রলীগ নেতা খোরশেদ আলম, শাহাদাত হোসেন পারবেজ,আব্দুল্লাহ আল আহাদ,মহসিন কলেজ আনোয়ার পলাশ, মামুন,কমার্স কলেজ ছাত্রলীগ নেতা মোঃ মোর্শেদ ১০ নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগ সভাপতি শাহ আল মুমিন চৌধুরী ১৮ নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এনামুল হক্ব মানিক ২ নং ওয়ার্ড কামরুল বাবু,বন্দর থানা ছাত্রলীগ নেতা ইসমাইল হোসেন,নিরাপদ সড়ক চট্টগ্রাম এর প্রতিনিধি মিনহাজুল ইসলাম রিফাত,সাজ্জাদুল ইসলাম সোহাগ,মোহাম্মদ আরিফ উদ্দিন,সাফায়েত ফাহিম,আরিফিন রিয়াদ,নাহিদ সহ চট্টগ্রামের বিভিন্ন স্কুল,কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় এর ছাত্র প্রতিনিধি ও সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

উল্লেখ্য, টানা পাঁচদিন প্রায় ১০৮ ঘণ্টা মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করে বুধবার রাতে মৃত্যুর কাছে হার মানেন নুসরাত জাহান রাফি। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন নুসরাতকে বুধবার রাত সাড়ে ৯টায় মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসক।

SHARE