মিয়ানমার ফিরলো ৫ সদস্যের রোহিঙ্গা পরিবার

11

বাংলাদেশ থেকে একটি রোহিঙ্গা পরিবারের পাঁচ সদস্যকে মিয়ানমার ফিরিয়ে নিয়েছে বলে দাবি করেছে । তবে জাতিসংঘ বলছে, মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্য এখন পর্যন্ত রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে প্রস্তুত নয়।

দেশটির কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম এ তথ্য জানিয়েছে।

 

গতকাল শনিবার (১৪ এপ্রিল) মিয়ানমার সরকারের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়, পাঁচ সদস্যের এক মুসলিম পরিবার সকালে রাখাইনের তানজিপিওলেটওয়া অভ্যর্থনা কেন্দ্রে এসেছে।

এছাড়াও আরও জানানো হয়, অভিবাসন ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের যাচাই-বাছাই শেষে তাদের ফিরিয়ে নিয়েছে। সমাজকল্যাণ, ত্রাণ ও পুনর্বাসন মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে তাদের চাল, মশারি, কম্বল ও পোশাক সরবরাহ করা হয়েছে।

প্রত্যাবাসনের জন্য যাচাই-বাছাই শেষে ওই পরিবারকে মিয়ানমারে প্রবেশের আগেই ন্যাশনাল ভেরিফিকেশন কার্ড (এনভিসি) দেওয়া হয়েছে বলে বিবৃতিতে আরও জানানো হয়।

বাংলাদেশ থেকে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেওয়ার চলমান প্রক্রিয়ায় তাদের নিবন্ধনের অংশ হিসেবে এনভিসি দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছে মিয়ানমার। তবে রোহিঙ্গা সম্প্রদায়ের নেতারা জানিয়েছেন, এই কার্ডকে রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব অস্বীকার করে আজীবন শরণার্থী করে রাখার পাঁয়তারা ।

গত বছরের ২৫ আগস্ট। রাখাইনে রোহিঙ্গাদের ‘বাঙালি মুসলমান’ আখ্যা দিয়ে মিয়ানমার সেনাবাহিনী শুরু করে গণ হত্যা , গণধর্ষনসহ অমানবিক সকল নির্যাতন । দেশটি রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশের বাসিন্দা হিসেবে প্রতিষ্ঠা করতে চায়। সেনাবাহিনীর অসহ্যকর নির্যাতনের হাত থেকে বাচতে প্রায় ১০ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা শরণার্থী বাংলাদেশে পাড়ি জমান

আন্তর্জাতিক চাপের মখে দুই বছরে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে গত জানুয়ারিতে দুই দেশের মধ্যে প্রত্যাবাসন চুক্তি স্বাক্ষর হয়। এই উদ্যোগ বাস্তবায়নে মিয়ানমার রাখাইন রাজ্যে দুটি অভ্যর্থনা কেন্দ্র স্থাপন করে। তবে জাতিসংঘ জানিয়েছে, রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে রাখাইন এখনও প্রস্তুত নয়।

সম্প্রতি জাতিসংঘের একটি প্রতিনিধি দল সফর করেন । সফর শেষে রোহিঙ্গাদের ফেরত যাওয়ার জন্য বর্তমান  পরিস্থিতি নিয়ে সংশয় প্রকাশ করে জাতিসংঘের সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল উরসুলা মুয়েলার জানান, সেখানে স্বাস্থ্যসেবার অপ্রতুলতা, নিরাপত্তার অনিশ্চয়তা আর অব্যাহত স্থানচুত্যির ঘটনা ঘটছে।

তবে জাতিসংঘের এই সংশয়কে ছাড়িয়ে প্রত্যাবাসন চুক্তির অংশ হিসেবে নেপিদো প্রথম পাঁচ সদস্যের একটি  রোহিঙ্গা পরিবারকে ফিরিয়ে নিলো।

দেশরিভিউ / আরিফুল ইসলাম

SHARE